• শিরোনাম

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহীদের জন্য সুখবর

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ | ৮:২৬ অপরাহ্ণ

    উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহীদের জন্য সুখবর

    উপজেলা নির্বাচনের চেয়ারম্যান পদে প্রথম ধাপে ৮৭ ও দ্বিতীয় ধাপে ১২২ জন মনোনীত প্রার্থীর তালিকা প্রকাশ করেছে আওয়ামী লীগ। উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদের জন্য কোন একক প্রার্থী আওয়ামী লীগ দেয়নি। এ দুটি পদ উন্মুক্ত করে দিয়েছে দলটি।

    তবে চেয়ারম্যান পদের জন্য আওয়ামী লীগ যাদেরকে মনোনয়ন দিয়েছে এর বাইরেও আওয়ামী লীগের কেউ যদি চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করতে চায় তাদেরকে বাধা দেবে না আওয়ামী লীগ। দলটির শীর্ষস্থানীয় নেতারা এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছেন। এর প্রধান কারণ হলো, যেহেতু এই নির্বাচনে ‍বিএনপি অংশগ্রহণ করছে না। তাই নির্বাচন যেন প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হয় সেজন্য আওয়ামী লীগ তাদের দলের যারা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে উৎসাহী তাদেরকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করার সুযোগ দিতে চায়।

    আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল একটি সূত্র বলছে, শুধুমাত্র অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন নিশ্চিত করাই বিদ্রোহীদের উন্মুক্ত করে দেয়ার পিছনে একমাত্র কারণ নয়। এর আরেকটি বড় কারণ হলো, আওয়ামী লীগ আসলে স্থানীয় পর্যায়ের নেতাদের জনপ্রিয়তা দেখতে চায়। তারা কতটুকু সাংগঠনিক দক্ষতা দেখাতে পারে সেটাও আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারকরা দেখতে চায়। তাই এবারের উপজেলা নির্বাচন আওয়ামী লীগের জন্য অন্যরকম একটি তাৎপর্য বহন করছে। আওয়ামী লীগের স্থানীয় পর্যায়ের নেতাদের মধ্যে কে বেশী জনপ্রিয় তার একটি পরীক্ষাও আওয়ামী লীগ নিতে চায়।

    আওয়ামী লীগের শীর্ষস্থানীয় একজন নেতা বলেছেন, যদি আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী কোন প্রার্থী নৌকা প্রতীকের প্রার্থীকে পরাজিত করে বিজয়ী হতে পারে, তাহলে বুঝতে হবে ঐ নেতা এলাকায় অনেক জনপ্রিয়। দলের সাংগঠনিক শক্তি বৃদ্ধিতে পরবর্তীতে তাকে দলের কাজে লাগানো যাবে। আওয়ামী লীগ তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেয়ার আরেকটি কারণ হলো, যদি স্বতন্ত্র প্রার্থীরা বিজয়ী হয়, তাহলে তাকে আওয়ামী লীগে নিয়ে আসার ‍সুযোগ থেকে যাবে। এর ফলে একটি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ এবং একটি প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ নির্বাচন হবে। আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়ে যারা উপজেলা চেয়ারম্যানের মনোনয়ন যারা পেয়েছেন বা পাননি, ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মী হিসেবে উভয়ের সঙ্গেই প্রশাসন ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থার একটি সখ্যতা তৈরি হয়েছে। তাই যারা মনোনয়ন পেয়েছেন তারাই যে শুধু প্রশাসন ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সহযোগিতা পাবেন সেরকম কোন সুযোগ এক্ষেত্রে থাকবে না। শুধু প্রশাসন ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সাহায্য নিয়ে নির্বাচনের ফলাফল নিজের পক্ষে আনা কষ্টসাধ্য হবে। এখানে বিদ্রোহী ও স্বতন্ত্র প্রার্থীও সমান সুবিধা পাবে।

    আওয়ামী লীগের একটি পক্ষ মনে করে, এর মাধ্যমে আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দল বা দ্বন্দ্ব বেড়ে যেতে পারে। যারা স্বতন্ত্র দাঁড়াবেন তারা আওয়ামী লীগের একটি অংশকে নিয়েই প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। সেক্ষেত্রে উপজেলা নির্বাচনে একটি বিভক্ত আওয়ামী লীগের দেখা মিলতে পারে।

    তবে আওয়ামী লীগের নীতি নির্ধারকরা এ ধরনের আশঙ্কা নাকচ করে দিয়ে বলেছেন, আওয়ামী লীগ একটি বড় রাজনৈতিক দল। দলীয় কোন্দল আওয়ামী লীগের একটি সার্বক্ষণিক বিষয়। এটি আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে। আওয়ামী লীগ তখনই ঐক্যবদ্ধ হয় যখন আওয়ামী দুঃসময়ের মুখোমুখি হয়। বরং এ ধরনের সুযোগ দিলে তৃণমূল পর্যায়ে নেতৃত্বের চর্চা হবে। সবাই জনগণের কাছে যাওয়ার সুযোগ পাবে এবং দলের মধ্যে একটি প্রতিযোগিতা তৈরি হবে। এখন পর্যন্ত দেখা গেছে প্রতিটি উপজেলায় অন্তত চারজন এবং কোন কোন উপজেলায় ৮ থেকে ১০জন প্রার্থী নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আগ্রহী হয়েছে। কাজেই বিএনপি বা সমমনা দলগুলো যেটা আশঙ্কা করেছিল, উপজেলা নির্বাচনেও ক্ষমতাসীন দল প্রভাব বিস্তার করবে। সেরকটি হবে না। বরং উপজেলা নির্বাচন একটি অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক হবে বলেই আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারকরা মনে করছেন।

    Comments

    comments

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
    ৩১  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী