• শিরোনাম

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এবার রাবির সমাজবিজ্ঞান বিভাগের সভাপতিকে হত্যার হুমকি!

    | ০৩ মার্চ ২০১৯ | ৮:৫৯ অপরাহ্ণ

    এবার রাবির সমাজবিজ্ঞান বিভাগের সভাপতিকে হত্যার হুমকি!

    রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) দুই শিক্ষকের পর এবার বিশ্ববিদ্যালয়টির সমাজবিজ্ঞান বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. জুলফিকার আলীকে হত্যার হুমকি দেয়া হয়েছে।

    শনিবার সন্ধ্যায় সর্বহারা পরিচয়ে এ হত্যার হুমকি দেয়া হয়। এ নিয়ে গত তিন দিনে সর্বহারা পরিচয়ে হুমকি পেলেন বিশ্ববিদ্যালয়ে তিন শিক্ষক। যাদের দুইজনই সমাজবিজ্ঞান বিভাগের।

    এদিকে একের পর এক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষককে হত্যার হুমকির ঘটনায় উদ্বেগ ও শঙ্কা প্রকাশ করছেন শিক্ষকরা।

    সর্বহারা পরিচয় দিয়ে গত ২৮ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যা ৬টা ৫২ মিনিটে সমাজবিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ও সৈয়দ আমীর আলী হলের প্রাধ্যক্ষ ড. আমিনুল ইসলামের ব্যবহত মোবাইলে ফোন করে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেয় সর্বহারা পরিচয়ে অজ্ঞাতনামা এক ব্যক্তি। ওই ব্যক্তির ব্যবহৃত মোবাইল নং-০১৭২৫-৬৬৪৯৭২। পরে ওই নাম্বারে ফোন করার চেষ্টা করা হলে নম্বরটি ইনভ্যালিড দেখায়। এ ঘটনায় ওই শিক্ষক মতিহার থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছেন।

    এর আগে ২০১৫ সালে একইভাবে ড. আমিনুল ইসলামকে চাঁদা দাবি করে হুমকি দেয়া হয়েছিল বলে জানান তিনি। সে ঘটনায় ততক্ষণাৎ পুলিশকে জানিয়ে থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছিলেন।

    ড. আমিনুল ইসলাম জানান, সর্বহারা পরিচয় দিয়ে ফোন দিয়ে বলে দীর্ঘদিন থেকে আপনি টার্গেটে আছেন। কিডন্যাপ করে মেরে ফেলা হবে আপনাকে। কিন্তু নম্রভদ্র মানুষ তাই আর্থিক সমঝোতা করতে চাচ্ছি। কতো টাকা দিবেন বলেন?

    এদিকে একই দিন একই নাম্বার থেকে সন্ধ্যা ৭টা ০৬ মিনিটে দর্শন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মুহতাসিম বিল্লাহকে ফোন দিয়ে সর্বহারা কমান্ডার মহিউদ্দিন পরিচয় দেয়। এরপর হত্যার টার্গেটে রয়েছেন বলে জানান সর্বহারা কমান্ডার। বাঁচার উপায় রয়েছে। আর তা হলো আর্থিক সমঝোতা। টাকা দিতে অসম্মতি জানালে দেখে নেয়া হবে এবং প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। এ ঘটনায় তিনি মতিহার থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছেন।

    এরপর গত শনিবার সন্ধ্যায় ৭টার দিকে সমাজবিজ্ঞান বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. জুলফিকার আলীকে সর্বহারা লিডার স্বপন কুমার পরিচয় দিয়ে ৫ লাখ টাকা দাবি করেন। টাকা দিতে অসম্মতি জানালে অন্য দুই শিক্ষকের মতো তাকেও হত্যার হুমকি দেয়া হয়। এ ঘটনায় তিনিও মতিহার থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছেন।

    পদক্ষেপের বিষয়ে বিভাগের সভাপতি বলেন, নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কায় রয়েছি। বিভাগের শিক্ষকদের নিয়ে জরুরি মিটিংয়ে বসেছিলাম। এ ঘটনায় জড়িতদের আইনের আওতায় আনার দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের নিকট বিভাগের পক্ষ থেকে আবেদন করেছি বলে জানান তিনি।

    এ ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে বিশ্ববিদ্যালয় সাবেক ছাত্র উপদেষ্টা ও সমাজকর্ম বিভাগের অধ্যাপক ড. ছাদেকুল আরেফিন মাতিন বলেন, এটা বড় উদ্বেগজনক। শিক্ষক হিসেবে আমরা সাধারণ মানুষ। নিরাপত্তা নিয়ে যদি শিক্ষকদের চিন্তা করতে হয় তাহলে শিক্ষার্থীদের কী পাঠ দিব। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও আইনানুগ প্রশাসন গুরুত্বের সঙ্গে বিষয়টি দেখবেন এবং শিক্ষকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দাবি জানান তিনি।

    এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর অধ্যাপক ড. লুৎফর রহমান বলেন, শিক্ষকদের বিভাগগুলোতে আলোচনা চলছে। এছাড়াও মৌখিকভাবে অভিযোগ পেয়েছি। লিখিত অভিযোগ দিলে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হবে। এ ঘটনায় ক্যাম্পাসে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

    মতিহার থানার ওসি শাহাদাৎ হোসেন জানান, সর্বহারা পরিচয়ে হুমকিপ্রাপ্ত শিক্ষকরা মতিহার থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছেন। এ বিষয়ে তদন্ত চলছে।

    Comments

    comments

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫
    ১৬১৭১৮১৯২০২১২২
    ২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
    ৩০৩১  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী