• শিরোনাম

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    গোপালগঞ্জের সন্তান ও মসজিদের খাদেম হানিফকে হত্যার পর নামাজ পড়তে যান এই ঘাতক

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ১০ জুলাই ২০১৯ | ৯:৫৫ পূর্বাহ্ণ

    গোপালগঞ্জের সন্তান ও মসজিদের খাদেম হানিফকে হত্যার পর নামাজ পড়তে যান এই ঘাতক

    রাজধানীর আজিমপুর মসজিদের খাদেম ও গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ার সন্তান মো. হানিফ শেখ (৩০) হত্যা মামলার প্রধান আসামি সাইফুল ইসলামকে (৩৮) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। সোমবার চট্টগ্রামের আগ্রাবাদ এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সাইফুল হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন বলে জানিয়েছে পিবিআই।

    গত বুধবার আজিমপুর কবরস্থান জামে মসজিদের বারান্দা থেকে প্রধান খাদেম মো. হানিফের বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় হানিফের শ্বশুর মো. জাকির শেখ (৬০) বাদী হয়ে সাইফুল ইসলামসহ চারজন এবং অজ্ঞাতনামা আরও দুই থেকে তিনজনের বিরুদ্ধে লালবাগ থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। এ ঘটনার পর থেকে সাইফুল ইসলাম পলাতক ছিলেন।

    মঙ্গলবার বেলা ১১টায় ধানমন্ডিতে পিবিআই সদর দপ্তরে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান পিবিআইয়ের উপমহাপরিদর্শক বনজ কুমার মজুমদার। তিনি বলেন, আজিমপুর পুরনো কবরস্থান মেয়র মোহাম্মদ হানিফ জামে মসজিদের প্রধান খাদেম ছিলেন সাইফুল। কাজে ফাঁকি দেয়ায় কর্তৃপক্ষ তাকে পছন্দ করত না। সম্প্রতি তার স্থলে মো. হানিফ শেখকে প্রধান খাদেম নিয়োগ

    দেয়া হয়। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে পদ ফিরে পাওয়ার জন্য মরিয়া সাইফুল মো. হানিফ শেখকে খুন করার পরিকল্পনা করেন।

    বনজ কুমার মজুমদার জানান, মসজিদ কর্তৃপক্ষ গত বছর ৪ নভেম্বর হানিফকে নিয়োগ দেয়। হানিফসহ এ মসজিদে তিনজন খাদেম ও একজন পরিচ্ছন্নতা কর্মী ছিলেন। সাইফুলকে বিভিন্ন কাজের নির্দেশ দিতেন হানিফ। এ নিয়ে সাইফুলের মনে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। একপর্যায়ে গত বুধবার হানিফের কথামতো কাজ করবে না বলে জানিয়ে দেয় সাইফুল। এ নিয়ে দুজনের মধ্যে কথা-কাটাকাটি হয়।

    ওই দিন জোহরের নামাজের পর হানিফ খেয়েদেয়ে দোতলায় তার নিজের কক্ষের মেঝেতে ঘুমিয়ে পড়েন। এই সুযোগে সেই কক্ষের দরজা লাগিয়ে সাইফুল রান্নাঘর থেকে একটি চাকু এনে হানিফের পেটে পরপর দুবার আঘাত করেন। হানিফ জেগে উঠলে তার মুখ চেপে ধরে বুক, পেট ও গলায় ১১টির মতো আঘাত করেন।

    হানিফের মৃতু্য নিশ্চিত করে সাইফুল প্লাস্টিকের বস্তা ও পলিথিন নিয়ে আসেন। মৃতদেহ বস্তায় ঢুকিয়ে পলিথিন দিয়ে পেঁচিয়ে বেঁধে ব্যালকনিতে একটি বাঁশের ঝুড়িতে রেখে দেন। বাথরুম থেকে বালতিতে পানি এনে তোশকের কভার ভিজিয়ে ফ্লোরের রক্ত পরিষ্কার করেন। এরপর সাইফুল আসরের নামাজ পড়তে যান। নামাজ শেষে সাইফুল তার ব্যবহৃত রক্তমাখা কাপড় বাথরুমে পরিষ্কার করেন।

    রাত নয়টার দিকে সাইফুল বাইরে খেতে গিয়ে ১০টার মধ্যে রুমে ফিরে আসেন। ঝাড়ুদার বাহাউদ্দিন ও নতুন খাদেম ফরিদ বাইরে থেকে মসজিদে এসে খাদেম হানিফ কোথায় আছেন জিজ্ঞেস করেন সাইফুলকে। সাইফুল জানায়, হানিফ বাইরে গেছেন। সাইফুলের পরিকল্পনা ছিল, গভীর রাতে খাদেম হানিফের লাশ আজিমপুর কবরস্থানের কোনো একটি ভাঙা কবরে ফেলে দেবেন। কিন্তু খাদেম ফরিদ অনেক রাত পর্যন্ত জেগে থাকায় সাইফুল তার সিদ্ধান্ত বদলায়।

    রাত সাড়ে ১১টার দিকে সাইফুল খাদেম ফরিদকে জানায়, তার বাবা মারা গেছে। এই বলে সাইফুল তার সব ব্যবহার্য জিনিস নিয়ে চলে যায়। গত বুধবার রাতে ক্লিনার বাহাউদ্দিন ও নতুন নিয়োগকৃত খাদেম ফরিদ নিহত খাদেম হানিফের কক্ষে ঘুমাতে যান। সেই সময় তারা দুর্গন্ধ পেয়ে পাশের ব্যালকনির থাই গস্নাস টান দিয়ে একটি বাঁশের খালি ঝুড়ির মধ্যে পলিথিন দিয়ে প্যাঁচানো একটি বস্তা দেখেন। সেটি খুলে তারা খাদেম হানিফের লাশ শনাক্ত করেন।

    সাইফুল পালিয়ে প্রথমে সেনবাগ নোয়াখালী তার বাবার বাড়িতে যায়। পরে সেখান থেকে তার শ্বশুরবাড়ি চট্টগ্রামের খুলশীতে গিয়ে আশ্রয় চায়। তার শ্বশুর আশ্রয় দিতে অস্বীকৃতি জানালে রেলওয়ে হাসপাতালে চাচার কাছে যায়। সেখানে আশ্রয়ের সুযোগ না পাওয়ায় আগ্রাবাদ বেপারীকান্দি এলাকায় তার ফুপুর কাছে আশ্রয় নেয় সাইফুল। সেখানেই আত্মগোপন করে সে।

    পিবিআইয়ের একটি দল সাইফুলের ফুফুর বাসার দরজা ভেঙে দেখতে পায়, সাইফুল দাড়ি কামানো অবস্থায় খাটে নিশ্চিন্তে ঘুমাচ্ছে। খাদেম হানিফ হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত রক্তমাখা চাকুটি ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। জবানবন্দি দিতে সাইফুলকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

    Comments

    comments

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২
    ১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
    ২০২১২২২৩২৪২৫২৬
    ২৭২৮২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী