• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    অদ্ভুত যুক্তি দেখিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ খারিজ!

    অগ্রবাণী ডেস্ক | ২২ মার্চ ২০১৭ | ৯:২২ পূর্বাহ্ণ

    অদ্ভুত যুক্তি দেখিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ খারিজ!

    ভারতের একটি আদালত অদ্ভুত এক যুক্তি দিয়ে ২৩ বছরের এক তরুণীর দায়ের করা ধর্ষণ মামলা খারিজ করে দিয়েছে। ধর্ষণের শিকার তরুণীর অভিযোগ শুনে আদালতের যুক্তি, একা কোনো ব্যক্তির পক্ষে কি কোনো প্রাপ্তবয়স্ক নারীকে তুলে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করা সম্ভব। যার ফলে মুম্বাই হাইকোর্ট ধর্ষণের অভিযোগ খারিজ করে দেয়।


    সেই তরুণীর অভিযোগ অনুযায়ী, ২০১৪ সালের ১১ জুন সকালে শিরোন্দায় বোনের বাড়ি থেকে ফিরছিলেন ওই তরুণী। ওই সময় অভিযুক্ত সমীর যাদব রাস্তার পাশ থেকে তাকে জোর করে গাড়িতে তুলে নেয়। এর পর একটি হোটেলে নিয়ে গিয়ে তাকে ধর্ষণ করে। এরপর ২০১৫ সালের মে মাসে থানায় অভিযোগ জানান তিনি।

    ajkerograbani.com

    এরপর তরুণীর দায়ের করা ওই মামলার ভিত্তিতে অভিযুক্তকে সাত বছরের কারাদণ্ড দিয়েছিল মুম্বাইয়ের এক দায়রা আদালত। ওই রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে হাইকোর্টে আবেদন করে সমীর।

    পরবর্তীতে মামলাটি হাইকোর্টে গেলে বিচারপতি অনন্ত বাদার বলেন, বাদী আদালতকে বিশ্বাস করাতে চাইছিলেন, অভিযুক্ত তার মুখে রুমাল বেঁধে জোর করে গাড়িতে তুলে নেয়। এরপর নিজে সেই গাড়ি চালিয়ে নিয়ে গিয়ে একটি হোটেলের কক্ষে তাকে ধর্ষণ করে। কিন্তু কোনো একজন পুরুষের পক্ষে কি কোনো প্রাপ্তবয়স্ক নারীকে এ ভাবে তুলে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করা কি সম্ভব?’

    বিচারপতি আরও বলেন, ‘অভিযোগকারী জানিয়েছেন- মুখে রুমাল বাঁধা থাকলেও তার হাত বাঁধা ছিল না। অভিযুক্ত যদি নিজেই গাড়ি চালাতে ব্যস্ত থাকেন তা হলে উনি নিজে হাত খোলা থাকা সত্ত্বেও কিছু করতে পারলেন না কেন?’

    আদালতের যুক্তি, বাদীর বক্তব্য অনুযায়ী বাধা দেয়ার কোনো প্রমাণও স্পষ্ট নয়। উপরন্তু, ঘটনার ১১ মাস পর কেন তিনি এফআইআর করলেন? এ অভিযোগ কোনভাবেই যুক্তিযুক্ত নয়।

    -এলএস

    Facebook Comments Box

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
    ১০১১১২১৩১৪
    ১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
    ২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
    ২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4757