• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    ‘অভিযানে জঙ্গিদের মারা হচ্ছে না, আক্রমণে মরছে ওরা’

    অনলাইন ডেস্ক | ১১ এপ্রিল ২০১৭ | ১০:০২ অপরাহ্ণ

    ‘অভিযানে জঙ্গিদের মারা হচ্ছে না, আক্রমণে মরছে ওরা’

    স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেছেন, যুবকরা জঙ্গিবাদে জড়িয়ে বিপদগ্রস্ত হচ্ছে, আর তাদের জঙ্গিবাদে জড়ানোর কারণও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী উপলব্ধি করেছে। পথভ্রষ্ট এসব যুবকদের সঠিক পথে ফিরিয়ে আনতে হবে। এই জন্য কুরআন ও হাদিসের সঠিক ব্যাখ্যা দিয়ে বই প্রকাশ করা হয়েছে। জঙ্গি দমনে এটি ভূমিকা রাখবে। তাছাড়া কোনো অভিযানে জঙ্গিদের মেরে ফেলা হচ্ছে না। আক্রমণে ওরা মরছে।


    আজ মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর একটি হোটেলে ‘কতিপয় বিষয়ে জঙ্গিবাদীদের অপব্যাখ্যা এবং পবিত্র কুরআনের সংশ্লিষ্ট আয়াত ও হাদিসের সঠিক ব্যাখ্যা’ শীর্ষক বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন পুলিশের মহাপরিদর্শক এ কে এম শহীদুল হক, স্বরাষ্ট্র সচিব ড. কামাল উদ্দিন আহমেদসহ গন্যমান্য ব্যক্তিরা।


    জানা গেছে, জঙ্গিরা কুরআনের যেসব আয়াতের অপব্যাখা দিয়ে সাধারণ মানুষকে জঙ্গিবাদে উদ্ধুদ্ধ করছে, পবিত্র কুরআন ও হাদীসের সেসব আয়াতের সঠিক ব্যাখ্যা র‌্যাব ফোর্সেস কর্তৃক প্রকাশিত বইটিতে তুলে ধরা হয়েছে।

    স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, জঙ্গিরা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য হত্যার পরিকল্পনা করেছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী আস্তানা ঘিরে ফেললেও জঙ্গিরা আত্মসমর্পণ না করে তারা উল্টো হামলা চালাচ্ছে। ইদানিং তো তারা নিজেরাই মরছে। সুইসাইড করছে। সিলেটে ঘণ্টার পর ঘণ্টা আমরা অপেক্ষা করেছি। শত শত প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ওপর হামলা করে পালিয়ে যাবে- এমন যারা ভাবেন তারা বোকার স্বর্গে বসবাস করছেন। আজ শুধু ইসলাম কেন, কোনো ধর্মে মানুষ হত্যার বিধান নেই। সেখানে ইসলাম তো শান্তির ধর্ম।

    আসাদুজ্জামান খান বলেন, ইসলাম মানবতার কথা বলে, শান্তির কথা, উন্নয়নের কথা বলে; সেখানে আজ আমাদের ভুল বোঝানো হচ্ছে। আমাদের ভুল পথে ধাবিত করার চেষ্টা করছে গুপ্তঘাতকরা। জঙ্গিবাদের পেছনে একটা ষড়যন্ত্র আছে। কখনো হুজি, কখনো বাংলা ভাই, কখনো বা আনসার আল ইসলাম, আনসারুল্লাহ বাংলাটিম, হরকাতুল জিহাদ, জেএমবি, নয়া জেএমবি ইত্যাদি নাম একই। তাদের অপকর্ম একই। তাদের ষড়যন্ত্র একই। তারা ইদানিং নয়া ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। তারা নিজেরা যা করে এর পেছনে নাকি আইএস রয়েছে। আইএস কোত্থেকে আসবে? কেন, কী কারণে আসবে? এর কোন ব্যাখ্যা আমরা পাইনি। পৃথিবীব্যাপী ষড়যন্ত্র চলছে। আজ শুধু বাংলাদেশ নয় অনেক আগে থেকে এ ধরনের ষড়যন্ত্রের মোকাবেলা করতে হচ্ছে বিশ্বকে।

    তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশের মানুষ অত্যন্ত ভাল হৃদয়ের অধিকারী। আবেগপ্রবণ হলেও জঙ্গিবাদকে আশ্রয়-প্রশ্রুয় দেয় না। আর আইনশৃঙ্খলা বাহিনী জঙ্গিবাদকে মোকাবেলা করা চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়েছে। নিজেদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদ মোকাবেলা করে যাচ্ছে। আজ তারা মনে করছে অপারেশনের বাইরে আরও কিছু করা দরকার। জঙ্গিবাদ বিরোধী প্রচার-প্রচারণা করা দরকার, ইসলাম কী বলে তা জানানো দরকার। এক্ষেত্রে র‌্যাবের নতুন প্রকাশনাটি কাজে আসবে বলে মনে করেন তিনি।

    পুলিশের মহাপরিদর্শক শহীদুল হক বলেন, জঙ্গিবাদীদের তাদের পথ থেকে ফিরিয়ে আনার কাজ শুধু পুলিশের নয়। অন্যান্য বাহিনী কিংবা সংস্থারও কিছু করা উচিত। এ বিষয়ে সরকার সিদ্ধান্ত নেবে। সম্প্রতি নারী জঙ্গিদের গ্রেপ্তারের পর মাওলানা দিয়ে আমরা তাদেরকে কাউন্টার মোটিভেটেড করেছি, বুঝিয়েছি। তারা ভালোও হয়ে গেছেন। কিন্তু জেলখানায় যাওয়ার পর আবারো জঙ্গিবাদে জড়িয়ে পড়ছেন।

    তিনি বলেন, জঙ্গিবাদের সঙ্গে যুক্ত অভিযোগে যারা গ্রেপ্তার হয়েছে, তাদের ৩০ শতাংশ মাদ্রাসার শিক্ষার্থী। বাকিরা সাধারণ শিক্ষায় শিক্ষিত। তাই মাদ্রাসায় পড়লে কেউ জঙ্গি হবে-এই ভাবনা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে।

    আইজিপি সংসদ সদস্য নদভীর বক্তব্যের সঙ্গে দ্বি-মত পোষণ করে বলেন, ‘আমরা জঙ্গিদের হত্যা করি না। তারা হিউজ পরিমাণ এক্সপ্লোসিভ রাখছে। সিলেটে তাদের ঘেরাও করে রাখা হয়। কিন্তু তারা এক্সপ্লোসিভ দিয়ে আত্মহত্যা করে। তারা নাকি জান্নাতে যাবে।

    তিনি বলেন, ‘তাদের হাত-পা খুঁজে খুঁজে মিলিয়ে দেখেছি, আসলে কতজন মারা গেছে। মৌলভীবাজার, সীতাকুণ্ড, সিলেটসহ অন্যান্য জায়গাতে একই অবস্থা দেখা গেছে। অনেক জঙ্গি আমাদের হাতে গ্রেপ্তার হয়েছে। জঙ্গিদের বিরুদ্ধে র‌্যাব-পুলিশের অনেক সফলতা রয়েছে।

    র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ বলেন, হলি আর্টিসানে হামলার পর র‌্যাব জঙ্গি আস্তানায় অভিযান চালিয়ে অনেককে গ্রেপ্তার করেছে। অভিযানকালে খাতা আকারের বই পাওয়া যায়। যেখানে কুরআনের আয়াতের ভুল ব্যাখ্যা দেওয়া হয়েছে। তাই কুরআন ও হাদীসের সঠিক ব্যাখ্যা দিয়ে বইটি প্রকাশ করা হয়েছে। জঙ্গিবাদ দমন করতে ল’ ইনফোর্স দরকার, কাউন্সিলিং করা দরকার।

    স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান টিপু মুন্সি বলেন, সরকারকে অপদস্ত করার জন্য জঙ্গিবাদ বা এসব করা হচ্ছে। মূলত উদ্দেশ্যটা রাজনৈতিক। তবে এসব ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো হবে বলে হুশিয়ারি উচ্চারণ করেন তিনি।

    সংসদ সদস্য প্রফেসর ড. আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভী বলেন, যুবকরা কেন জঙ্গিবাদে জড়াচ্ছে এবং মূল গ্যাপটা কোথায় তা খুঁজে বের করতে হবে। সিলেবাস শিক্ষা দিতে পারলে জঙ্গিবাদে জড়ানোর সম্ভাবনা কম থাকে। সম্প্রতি জঙ্গি দমনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রশংসাও করেন।

    তিনি বলেন, পুলিশ বা র‌্যাব অভিযানে গিয়ে জঙ্গিদের মেরে ফেলছেন। হাদিস কুরআনের বাণীগুলো যাতে সঠিক হয় সেই জন্য সমাজকে জানাতে হবে। আলেম সমাজকে এগিয়ে আসতে হবে।

    সেতু বিভাগের সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, কুরআনে মারামারির কোন কথা নেই। এমনকি কুকুরকে লাথি দেওয়ারও কোন শব্দ নেই। আয়াতে রয়েছে- ‘যুদ্ধের ময়দানে কাফিরদের যেখানে পাবে সেখানে হত্যা করবে’। আর জঙ্গিরা এসব আয়াতের ভুল ব্যাখ্যা দিচ্ছে। অনেকেই বলছে, ইসলামিক জঙ্গি! কিন্তু ইসলামিক জঙ্গি বলে কোন শব্দ নেই।

    বাংলাদেশ ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক শামীম মোহাম্মদ আফজাল বলেন, যারা নির্বিচারে মানুষ হত্যা করে ইসলামী শরীয়া মোতাবেক তাদের জানাজা পড়া যাবে না। তা সত্ত্বেও ইসলামের একটি গ্রুপ ইহুদিদের সঙ্গে মিশে সারা বিশ্বের ক্ষমতা দখলের জন্য কুরআন হাদিসের অপব্যাখ্যা দিয়ে তরুণ সমাজকে জঙ্গিবাদের দিকে ধাবিত করছে।

    মাদ্রাসা শিক্ষা থেকে শিক্ষার্থীরা জঙ্গিবাদে জড়াচ্ছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, অযথার্থ শিক্ষা কারিকলাম ও দাওয়াতি কাজের অভাব এটি হতে পারে। তাই তরুণরা কেন জঙ্গিবাদে জড়াচ্ছে এর কারণ খুঁজে বের করতে হবে।

    কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়া ঈদগাহ ময়দানের ঈমাম মাওলানা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ বলেন, কুরআন ও হাদীসের যেসব আয়াত তুলে ধরে তরুণদের বিপদগামী করা হচ্ছে সেই আয়াতগুলোর সঠিক ব্যাখ্যা তুলে ধরা দরকার। জঙ্গিরা মনে করে, মারা গেলেই তারা জান্নাতে হুরের সঙ্গে থাকতে পারবে। এই চেতনার সঠিক ব্যাখ্যা তুলে ধরতে পারলেই যারা এখনো জঙ্গিবাদে জড়ায়নি তাদের সঠিক পথে ফিরিয়ে আনা সম্ভব।

    Facebook Comments

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    webnewsdesign.com

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4669