• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    অলৌকিকভাবে বেঁচে যাওয়া ওরা ৫ জন

    অনলাইন ডেস্ক | ০৪ জুন ২০১৭ | ১২:২৮ অপরাহ্ণ

    অলৌকিকভাবে বেঁচে যাওয়া ওরা ৫ জন

    সারা বিশ্বে বিমান দুর্ঘটনা সবচেয়ে বিপজ্জনক ঘটনার মধ্যে অন্যতম। কারণ দুর্ঘটনায় বিমান বিধ্বস্ত বা বিস্ফোরিত হলে বেঁচে থাকাটা অলৌকিক ব্যাপার। কিন্তু, তারপরও কিছু অলৌকিক ঘটনা ঘটে এবং বেঁচে যায় কেউ কেউ। বিমান দুঘর্টনায় অলৌকিকভাবে বেঁচে থাকা তেমনি পাঁচজনের কথা।

    ১. রুবিন ভ্যান অ্যাসু। নেদারল্যান্ডসের এই শিশু বিমান দুর্ঘটনায় রক্ষা পায় অলৌকিকভাবে


    নয় বছরের ডাচ বালক রবিন ভ্যান আসু বাবা-মা ও ভাইয়ের সঙ্গে আফ্রিকা এয়ারওয়েজের একটি বিমানে ভ্রমণ করছিল। ২০১০ সালের ১২ মে ত্রিপোলি যাওয়ার পথে তাদের বিমান দুর্ঘটনায় পতিত হয়। লিবিয়ার মরুভূমির বালিতে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা ধ্বংসাবশেষের মধ্যে আসুকে একটি সিটের মধ্যে অচেতন অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখা যায়। দুর্ঘটনায় তার একটি পা ভেঙ্গে যায়। বিমানের বাকী ১০৩ আরোহীর সবাই মারা যান।

    ২. পল অস্টন ভিক। বিমান দুর্ঘটনায় বেঁচে যাওয়া বিশ্বের কনিষ্ঠতম

    ajkerograbani.com

    ১৯৪৭ সালের জানুয়ারিতে চায়না ন্যাশনাল অ্যাভিয়েশন করপোরেশনের বিমান দুর্ঘটনায় বেঁচে যায় ১৬ মাসের শিশু পল অস্টন ভিক। তার বাবা রবার্ট ভিক কানেকটিকাটের একজন খ্রিষ্টান ধর্মযাজক যিনি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শেষে চীনে ধর্মপ্রচারক হিসেবে কাজ করতেন। ভিকটর, তার স্ত্রী এবং দুই পুত্রকে নিয়ে সাংহাই থেকে চুংকিং যাচ্ছিলেন। বিমানের একটি ইজ্ঞিনে আগুন ধরে গিয়ে দ্রুত কেবিনে ছড়িয়ে পড়ে। বিমানের ২৩ যাত্রী আতঙ্কে লাফালাফি করতে থাকে। ভিক এবং তার স্ত্রী দুই সন্তানকে কোলে নিয়ে লাফিয়ে পড়েন। ভিক ও তার ছেলে পল বেঁচে যায়। কিন্তু ৪০ ঘণ্টা পরে হাসপাতালে ভিক মারা যান। বেঁচে ছিল তার ১৬ মাস বয়সের শিশুটি।

    ৩. মোহাম্মদ আল ফতেহ ওসমান। মাত্র তিন বছরের এই শিশু অলৌকিকভাবে বেঁচে যায়

    ২০০৩ সালে ফতেহ ওসমান সুদান এয়ারওয়েজের একটি ফ্লাইটে ভ্রমণ করছিল। ১১৭ আরোহী নিয়ে পোর্ট সুদান থেকে উড্ডয়নের পর একটি পাহাড়ে বিমানটি বিধ্বস্ত হয়। এ সময় ফতেহ ওসমান ছিটকে গিয়ে পড়ে একটি গাছের ওপর। সেখান থেকে এক ভবঘুরে তাকে উদ্ধার করেন। দুর্ঘটনায় ছেলেটি তার ডান পা হারায়। বিমানের বাকী ১০৫ যাত্রী এবং ১১ জন ক্রুর সবাই নিহত হন।

    ৪. অং ইউ ম্যান। বিমান ছিনতাইয়ের চেষ্টাকালে দুর্ঘটনা ঘটিয়ে বেঁচে যান

    অং ইউ হচ্ছেন বিমান দুর্ঘটনায় বেঁচে যাওয়াদের একজন যিনি কিনা নিজেই ওই বিমানটি ছিনতাইয়ের চেষ্টা করেছিলেন। ১৯৪৮ সালে অং ইউ ক্যাথে প্যাসিফিকের একটি বিমান ছিনতাই করতে গিয়ে দুর্ঘটনা ঘটান যেখানে ২৫ জনের প্রাণহানি ঘটে। এই বিমানে বিত্তশালীরা যাতায়াত করতেন। দুর্ঘটনায় বিমানটি পানিতে পড়ে যাওয়ার পর জেলেরা অচেতন অবস্থায় অং ইউকে ভাসতে দেখে উদ্ধার করে। পরে তাকে ছিনতাইকারীদের অন্যতম হিসেবে চিহ্নিত করা হয় এবং তিন বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

    ৫. সিসিলিয়া সিচান। যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে সবচেয়ে মারাত্মক বিমান দুর্ঘটনায় একমাত্র জীবিত

    ১৯৮৭ সালে নর্থওয়েস্ট এয়ারলাইন্সের একটি বিমান ডেট্রয়েটের মেট্রো বিমানবন্দর থেকে উড্ডয়নের কয়েক মিনিট পর বিধ্বস্ত হয়। এতে ১৫৪ আরোহী নিহত হয়। একমাত্র বেঁচে ছিল চার বছরের সিসেলিয়া সিচান। ওই দুর্ঘটনায় তার মা, বাবা, ভাই নিহত হয়। বেঁচে যাওয়া সিচানের পরিচয় বলতে পারছিল না কেউ। অবশেষে কয়েকদিন পরে তার দাদি সংবাদপত্রে তার ছবি দেখে তাকে সনাক্ত করেন। তিনি সিচানের বেগুনি নেইলপলিশ ও সামনের দাঁত দেখে তাকে চিনতে পারেন।

    Facebook Comments Box

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4757