• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    আওয়ামী লাইনে’ সভাপতি, ‘দৌড়ের ওপর’ সম্পাদক

    আজকের অগ্রবাণী ডেস্ক | ০৬ আগস্ট ২০১৭ | ৯:০৭ অপরাহ্ণ

    আওয়ামী লাইনে’ সভাপতি, ‘দৌড়ের ওপর’ সম্পাদক

    বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের জন্মস্থান বগুড়ায় বিএনপি এখন দুই ধারায় বিভক্ত। বিএনপির দুর্গ হিসেবে পরিচিত বগুড়ায় এক পক্ষের নেতৃত্বে রয়েছেন জেলা সভাপতি সাইফুল ইসলাম ও অপর পক্ষে সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীন। সাইফুলের নেতৃত্বাধীন অংশটি শাসক দল আওয়ামী লীগের সঙ্গে আঁতাত করে চলছেন। ফলে সভাপতিসহ এই অংশের শীর্ষ নেতাদের বিরুদ্ধে কোনো নাশকতার মামলা নেই। তারা আওয়ামী লীগের নেতাদের সঙ্গে মিলেমিশে চলার পাশাপাশি নানা সুবিধাও বাগিয়ে নিচ্ছেন। কারও কারও বিরুদ্ধে দখলবাজির অভিযোগও রয়েছে।


    আরেকটি অংশের নেতৃত্বে আছেন জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীন। তাদের অধিকাংশ নেতার বিরুদ্ধেই নাশকতার মামলা ঝুলছে। তারা রয়েছেন রীতিমতো দৌড়ের ওপর। স্বাভাবিক রাজনীতি করতে না পারায় বগুড়া জেলা বিএনপির সাংগঠনিক অবস্থা দৃশ্যত ভেঙে পড়েছে। দীর্ঘ সময় ধরে রাজপথে দলটির কোনো কর্মসূচি পর্যন্ত নেই।
    আলাপকালে জেলা বিএনপির নেতাকর্মীরা ক্ষোভের সঙ্গে বলেন, দলের সভাপতি শাসক দলের সঙ্গে লিয়াজোঁ করে সুবিধা নিচ্ছেন। আর সাধারণ সম্পাদক দৌড়ের ওপর আছেন। জেলা বিএনপি এখন শীর্ষ নেতাদের জন্ম ও মৃত্যুদিবস ও মিলাদ নিয়ে ব্যস্ত।

    ajkerograbani.com

    জেলা বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সভাপতি সাইফুলের সঙ্গে আওয়ামী লীগের জেলা সভাপতি মমতাজ উদ্দিনের ছেলে মাছুদুর রহমান মিলনের ব্যবসায়িক সম্পর্ক রয়েছে। জেলা শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক শামসুদ্দিন শেখের সঙ্গেও তার ঘনিষ্ঠতা রয়েছে। পরিবহন ব্যবসার পাশাপাশি সাইফুল ইসলাম পেট্রল পাম্পের ব্যবসাও চালিয়ে যাচ্ছেন নির্বিঘ্নে। এছাড়া আওয়ামী লীগ থেকে তিনি নানা সুবিধাও নিচ্ছেন। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি নির্বাচনের পর দেশব্যাপী বিএনপির জ্বালাও-পোড়াও আন্দোলনে সাইফুল ছিলেন অনেকটাই নিষ্ক্রিয়।

    জেলা বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে তখন ৫৭টি নাশকতার মামলা হয়। তাতে ৬ শতাধিক ব্যক্তিকে আসামি করা হয়। সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীনের বিরুদ্ধে ৩০টির বেশি মামলা হলেও জেলা বিএনপির সভাপতি সাইফুলের বিরুদ্ধে কোনো মামলা হয়নি। শুধু তিনি নন, তার অনুসারী জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মীর শাহে আলম, দফতর সম্পাদক মাহফুজুর রহমান, শহর বিএনপির সভাপতি মাহবুবুর রহমান বকুল, সাধারণ সম্পাদক হামিদুল হক হীরু, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের শাহ মেহেদী হাসান হিমুর বিরুদ্ধে নাশকতার মামলা নেই।

    বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, শহর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হামিদুল হক হীরু আওয়ামী ঘরানার বিএনপি নেতা হিসেবে পরিচিত। পরিবহনে চাঁদাবাজিসহ আওয়ামী লীগ থেকে নানা সুবিধা নেয়ার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধেও।

    এসব নিয়ে কথা হয় জেলা বিএনপি সভাপতি সাইফুল ইসলামের সঙ্গে। তিনি বলেন, কারও সঙ্গে লিয়াজোঁ করি না। যারা আমার বিরুদ্ধে এ ধরনের অভিযোগ দিচ্ছে তারাই আওয়ামী লীগের সঙ্গে লিয়াজোঁ করে চলেন। বগুড়ার সব আন্দোলন-সংগ্রামে আমার ভূমিকা রয়েছে। বিরোধীরা অপপ্রচার চালাচ্ছে আমার বিরুদ্ধে। নাশকতার কোনো মামলা আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, মামলা আছে। আমি জামিনে আছি। কতগুলো মামলা আছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটা বলা যাবে না, তবে আছে। এ নিয়ে তিনি আর কোনো কথা বলতে চাননি।

    বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলামের সঙ্গে জেলা শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক শামসুদ্দিন শেখ হেলালের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতার খবরও মানুষের মুখে মুখে। শেখ হেলাল রেলওয়ের জায়গাসহ বিভিন্ন সরকারি জমি দখলের সঙ্গে যুক্ত। রেলের জায়গা দখল করে মার্কেট নির্মাণেও তার সম্পৃক্ততা আছে। তাছাড়া বগুড়ার পুরো পরিবহন সেক্টরের অন্যতম নিয়ন্ত্রক তিনি। মূলত তার মাধ্যমেই জেলা বিএনপির সভাপতি আওয়ামী লীগের সঙ্গে লিয়াজোঁ করেছেন। জেলা বিএনপির সভাপতিকে রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের জন্য অর্থের জোগান দেয়ার অভিযোগও রয়েছে। তিনি জেলা বিএনপি নেতা মিজানুর রহমানের শ্যালক। মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধেও শাসক দল থেকে নানা সুবিধা নেয়ার অভিযোগ রয়েছে। নগর বিএনপি নেতা হীরু পরিবহন সেক্টরের চাঁদাবাজিও নিয়ন্ত্রণ করেন।
    এ বিষয়ে জানতে চাইলে শামসুদ্দিন হেলাল বলেন, আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনা হয়েছে তা ভিত্তিহীন। জেলা বিএনপির সভাপতির সঙ্গে যে ধরনের সম্পর্ক সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গেও তেমন সম্পর্কই রয়েছে। তবে তা ব্যক্তিগত।

    জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মমতাজ উদ্দিন বলেন, জেলা বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলাম আওয়ামী লীগের নেতাদের কাছ থেকে সুবিধা নিচ্ছে এটা আমার জানা নেই। তিনি নাশকতার মামলার আসামি কিনা তাও বলতে পারব না। তবে একটি ককটেল নিক্ষেপ মামলার আসামি ছিলেন বলে শুনেছি। আর আমার ছেলে রাজনীতি করে না। তিনি ব্যবসা করেন। তার সঙ্গে বিএনপির সভাপতির রাজনৈতিক সম্পর্ক থাকার তো প্রশ্নই ওঠে না।

    নাশকতার মামলায় জর্জরিত সাধারণ সম্পাদকপন্থীরা : জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীনপস্থী হিসেবে পরিচিতরা হচ্ছেন- বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও বগুড়া পৌরসভার মেয়র একেএম মাহবুবুর রহমান, সাবেক সংসদ সদস্য হেলালুজ্জামান তালুকদার, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আলী আসগর তালুকদার, জেলা যুবদলের সভাপতি ও পৌর কাউন্সিলর শিপার আল বখতিয়ার, সোনাতলা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আহসানুল তৈয়ব, ছাত্রদলের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম। তারা সবাই বিভিন্ন নাশকতার মামলার আসামি। এদের কারও বিরুদ্ধে ১৫টির অধিক নাশকতার মামলা রয়েছে। সোনাতলা উপজেলা চেয়ারম্যান আহসানুল তৈয়বের বিরুদ্ধে ২৫টি এবং বগুড়া পৌর কাউন্সিলর শিপারের বিরুদ্ধে রয়েছে ১৮ মামলা।

    জেলা বিএনপির একাধিক নেতা জানান, বগুড়া জেলা বিএনপির দুর্গ হলেও দীর্ঘদিন ধরে বিএনপির কোনো কর্মসূচি নেই।

    দলের বিপর্যস্ত অবস্থা নিয়ে জানতে চাইলে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীন কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। তিনি বলেন, দলের অবস্থা নিয়ে আমি কোনো মন্তব্য করব না।

    নারী নির্যাতনের প্রতিবাদে আ’লীগের বিক্ষোভ : বগুড়ায় বঙ্গবন্ধুর ৪২তম শাহাদতবার্ষিক, ছাত্রী নির্যাতন, সন্ত্রাস, মাদক, চাঁদাবাজি, ভূমিদখল ও যানজটের প্রতিবাদে জেলা আওয়ামী লীগ এবং অঙ্গসংগঠনের উদ্যোগে শনিবার দুপুরে শহরের সাতমাথায় দলীয় কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ হয়েছে। মিছিলটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

    শনিবার দুপুরে শহরের টেম্পল রোডে দলীয় কার্যালয়ের সামনে প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ মমতাজ উদ্দিনের সভাপতিত্বে সমাবেশে সাধারণ সম্পাদক মজিবর রহমান মজনু প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের কয়েকজন নেতাকর্মী বলেন, ইতিমধ্যেই বিতর্কিত হিসেবে পরিচিত সামসুদ্দিন শেখ হেলাল, আসাদুর রহমান দুলু, মঞ্জুরুল আলম মোহন মিছিলে যোগ দেয়ায় নানা প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে।

    Facebook Comments

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২
    ১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
    ২০২১২২২৩২৪২৫২৬
    ২৭২৮২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4755