• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    আগামী সংসদ নির্বাচন কর্ণেল অলির জন্য আগাম চ্যালেঞ্জ

    আজকের অগ্রবাণী ডেস্ক | ৩১ আগস্ট ২০১৭ | ১১:১৮ পূর্বাহ্ণ

    আগামী সংসদ নির্বাচন কর্ণেল অলির জন্য আগাম চ্যালেঞ্জ

    দক্ষিণ চট্টগ্রামের সাতকানিয়া, লোহাগাড়া ও চন্দনাইশে রাজনীতির নয়া মেরুকরণে আগামী সংসদ নির্বাচন কর্ণেল অলির জন্য আগাম চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছে তার প্রতিপক্ষরা। চট্টগ্রাম-১৪ (চান্দনাইশ ও সাতকানিয়া উপজেলার কিছু অংশ) এই আসনটি এখনো জোটের একটি শরিক দলের নির্ধারিত শরিকদের জন্য। আগে এখানে কর্নেল অলি আহমেদ নির্বাচন করেছেন। যদি জোটের কাউকে না দেয়া হয় তাহলে বিএনপির প্রার্থী ড. হোসেন মহসিন জিল্লুর রহমান নির্বাচন করবেন বলে জানা গেছে।


    এদিকে চট্টগ্রাম-১৪ জামায়াতের এবং চট্টগ্রাম-১৩ আলহাজ ড. কর্নেল (অব:) অলি আহমদ বীর বিক্রমের ঘাঁটি হিসেবে দীর্ঘদিন ধরে পরিচিত। এই দুটো আসনে জামায়াতের সাথে ড. অলির সম্পর্ক বরাবরই সাপে-নেউলে। এ দুটো আসনে নতুন মুখ নিয়ে জামায়াত-এলডিপিকে চ্যালেঞ্জ করতে আওয়ামী লীগ থাকছে বলে জানা গেছে।

    ajkerograbani.com

    জানা যায়, ১৯৯১ সালে বিএনপি প্রার্থী মোস্তাফিজ চৌধুরী ও আওয়ামী লীগ প্রার্থী আখতারুজ্জামানকে চৌধুরী বাবুকে হারিয়ে শাহজাহান চৌধুরীর জয়ের মধ্য দিয়ে সাতকানিয়া-লোহাগাড়ায় জামায়াতের রাজত্ব শুরু হয়। সরকার গঠনে কেন্দ্রীয়ভাবে বিএনপিকে জামায়াত সমর্থন দিলেও চট্টগ্রাম-১৩ ও ১৪ আসনে বিএনপি-জামায়াত দূরত্ব রয়ে যায়। চট্টগ্রাম-১৩ আসনের সাংসদ, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য, শহীদ জিয়ার ঘনিষ্ঠ সহযোদ্ধা, বিএনপি সরকারের যোগাযোগমন্ত্রী অলি আহমদকে নিয়ে এ অঞ্চলের বিএনপি শক্তিশালী অবস্থান তৈরি করে। ১৯৯৬ সালে চট্টগ্রাম-১৩’র পাশাপাশি চট্টগ্রাম-১৪ আসনেও নির্বাচন করে জিতে যান বিএনপি নেতা অলি আহমদ বীর বিক্রম। সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ। এক পর্যায়ে সারাদেশে সরকার বিরোধী আন্দোলনে চারদলীয় জোট গঠিত হলে সমগ্র বাংলাদেশে বিএনপি-জামায়াতের মাঝে ঐক্য প্রতিষ্ঠিত হলেও সাতকানিয়া-লোহাগাড়া-চন্দনাইশে তা হয়নি।

    ২০০১ সালে অনেকটা একক সিদ্ধান্তে অলি আহমদ দুটো আসনে নির্বাচন করে সাতকানিয়া-লোহাগাড়ায় হেরে যান। এতে দল, সরকার ও সংসদীয় এলাকায় তার প্রভাব-মূল্যায়ণ কমে যায়। এক পর্যায়ে বিএনপি ছেড়ে এলডিপি গঠন করে মহাজোটে শামিল হন। এতে স্থানীয় বিএনপির বিপর্যস্ততা শুরু তখন থেকেই। সিংহভাগ বিএনপি নেতা-কর্মী তার সাথে পাড়ি জমান এলডিপিতে। বাকি বিএনপি দুভাগে ভেঙে যায়। একভাগ অলিভক্ত অপর ভাগ অলি বিরোধী হিসেবে এলাকায় পরিচিতি পায়। উভয় অংশই নিজেদেরকে বিএনপির মূলধারার কান্ডারি দাবি করে বিভিন্ন কর্মসূচি চালিয়ে যায়।

    ২০০৮ সালের নির্বাচনেও অলি আহমদ উভয় আসনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করে সাতকানিয়া-লোহাগাড়ায় জামায়াত নেতা শামসুল ইসলামের কাছে হেরে যান। সে নির্বাচনে মহাজোটও তাকে মূল্যায়ন করেনি।
    অপরদিকে তার নিজের ঘরেই দাঁড়িয়ে যান তার প্রতিদ্বন্দ্বী তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ড. হোসেন জিল্লুর রহমানের ভাই ডা. মহসিন। তিনি সাতকানিয়া-চন্দনাইশে বিএনপির বড় এক অংশ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন শুরু করে।

    ১৯৭৮ সালের ১ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) প্রতিষ্ঠার পর ১৯৮০ সালের ফেব্রুয়ারিতে কর্নেল অলি আহমদ বিএনপিতে যোগ দেন। ওই বছরের মার্চে চট্টগ্রাম-১৩ (চন্দনাইশ-সাতকানিয়া) আসনের উপনির্বাচনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে জেনারেল জিয়ার মন্ত্রিসভায় নিয়োগ পান প্রতিমন্ত্রী হিসেবে। এরপরে একই আসন থেকে আরও চার দফায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন অলি আহমদ। বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের সবচেয়ে ঘনিষ্ঠদের একজন কর্নেল অলি।

    ১৯৮৪ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ছিলেন। ১৯৯১ সালের নির্বাচনে জয়ী হয়ে বিএনপি সরকার গঠন করলে তিনি যোগাযোগমন্ত্রীর দায়িত্ব পান। ২০০১ সালের সংসদ নির্বাচনে জামায়াতের সঙ্গে আসন বণ্টন নিয়ে দলের সঙ্গে মতভেদ সৃষ্টি হলে ২০০৬ সালের ২৬ অক্টোবর অলি আহমদ বিএনপি থেকে পদত্যাগ করেন। সাবেক রাষ্ট্রপতি এ কিউ এম বদরুদ্দোজাকে চৌধুরীকে নিয়ে গঠন করেন বিকল্পধারা। পরে ওখান থেকে বেরিয়ে এলডিপি গঠন করেন তিনি। সেই থেকে নিজের প্রতিষ্ঠিত দলের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। মাঝে ২০০৮ সালে সেনাসমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নবম সংসদ নির্বাচনে এলডিপি থেকে নির্বাচন করে সংসদ সদস্য হন অলি আহমদ। ওই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ বিজয়ী হয়ে সরকার গঠন করে। অলি আহমদকে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত কমিটির সভাপতি করা হলেও ২০১২ সালে সেখান থেকে তাকে সরিয়ে দেয়া হয়।

    নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোটের বাইরে গিয়ে চট্টগ্রাম-১৪ (লোহাগাড়া-সাতকানিয়া) ও চট্টগ্রাম-১৩ (চন্দনাইশ-সাতকানিয়া) আসনে ভোটযুদ্ধে অবতীর্ণ হন অলি আহমদ। এর মধ্যে চট্টগ্রাম-১৪ আসনে পরাজিত হলেও চট্টগ্রাম-১৩ আসনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির প্রার্থীদের বিপুল ভোটে হারিয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন তিনি।

    ওই নির্বাচনে অলি আহমদের ছাতা প্রতীকে ভোট পড়ে ৮২ হাজার ৩৩টি। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের প্রার্থী আফসার উদ্দিন আহমদের নৌকা পায় ৬১ হাজার ৬৩৬টি ও বিএনপির প্রার্থীী মো. মিজানুল হক চৌধুরীর ধানের শীষ প্রতীকে ভোট পড়ে ৩৩ হাজার ৩৫টি। চট্টগ্রাম-১৪ আসনে বিএনপি নেতৃত্বাধীন চার দলীয় জোট মনোনীত জামায়াতের প্রার্থী আ ন ম শামসুল ইসলামের কাছে পরাজিত হলেও ড. অলি আহমদ ভোট পান ৬২ হাজার ৭৯০টি। এ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ৪৯ হাজার ৫০৮ ভোট পেয়ে তৃতীয় হন।

    তবে জোটগতভাবে নির্বাচন করলে তার প্রতিদ্বন্দ্বী কেউ হবে না বলে জানিয়েছেন এলডিপির কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার সভাপতি কফিল উদ্দিন। তিনি জানান, নির্বাচনে আসার সিদ্ধান্ত এখনো চূড়ান্ত হয়নি। তবে ২০ দলীয় জোটের অংশগ্রহণ থাকলে কর্নেল অলি নির্বাচন করবেনই। কর্নেল অলি নিয়মিত এলাকায় আসছেন। দলীয় কর্মকান্ডে অংশ নিচ্ছেন। তবে বিএনপির সিদ্ধান্তের উপরই নির্ভর করবে সবকিছু। তবে কর্নেল অলি তার উপর থাকা প্রতিপক্ষদের আগাম চ্যালেঞ্জগুলো জানেন। আর নির্বাচনে অংশগ্রহন করলে তা তিনি সুসংহতভাবেই প্রতিহত করবেন বলে জানান কফিল উদ্দিন।

    Facebook Comments

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২
    ১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
    ২০২১২২২৩২৪২৫২৬
    ২৭২৮২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4755