• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    আগাম নির্বাচন আসছে !

    আজকের অগ্রবাণী ডেস্ক | ০৮ অক্টোবর ২০১৭ | ২:৫৫ অপরাহ্ণ

    আগাম নির্বাচন আসছে !

    জাতীয় সংসদ নির্বাচন হতে আরও এক বছর বাকি। কিন্তু সরকার আকস্মিকভাবে আগাম নির্বাচনে যেতে পারে। বিএনপি অপ্রস্তুত রেখে নির্বাচনের ঘোষণা সরকারকে বাড়তি সুবিধা দেবে। সরকারের একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র এরকম অভিমত ব্যক্ত করেছেন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে নানামুখী ষড়যন্ত্র ও চক্রান্ত চলছে বলে সরকারের কাছে নিশ্চিত খবর আছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও অন্তত দুবার বলেছেন, ‘একটি মহল নির্বাচন বানচালের ষড়যন্ত্র করছে।’ আগাম নির্বাচনের মাধ্যমে, সরকার কেবল অগোছালো বিএনপিকে অপ্রস্তুত করতেই চায়না, বিএনপির আন্দোলনের শক্তিকেও দূর্বল করতে চায়। বিএনপি বারবার বলছে তারা সহায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন চায়। কিন্তু সহায়ক সরকারের রূপরেখা এখনো বিএনপি ঘোষণা করতে পারেনি। প্রায় তিনমাস ধরে দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া লন্ডনে অবস্থান করছেন।


    দল নেতৃত্বহীন এবং দিক নির্দেশনাহীন। ইস্যুভিত্তিক বক্তৃতা বিবৃতির মধ্যেও বিএনপির কার্যক্রম সীমিত। অন্যদিকে আওয়ামী লীগ নির্বাচনের মাঠ প্রায় গুছিয়ে ফেলেছে। সবগুলো আসনেই সম্ভাব্য প্রার্থী চূড়ান্ত হয়েছে। আগাম নির্বাচন দিলে আওয়ামী লীগ তার অভ্যন্তরীন বিরোধকে সহনীয় মাত্রায় রাখতে পারবে।


    আওয়ামী লীগের একাধিক সূত্র বলেছে, নির্বাচন বানচালের একটি চক্রান্ত চলছে। ‘জুডিশিয়াল ক্যু’ এর মাধ্যমে বর্তমান সরকারের হটিয়ে একটি অনির্বাচিত সরকারকে ক্ষমতায় বসানো ছিল নির্বাচন বানচালেরই একটি চক্রান্ত। এরকম আরও নানামুখী ষড়যন্ত্র এখনো চলছে। আওয়ামী লীগের একজন প্রভাবশালী নেতা মনে করেন, ‘বিএনপি দেশে একটা অস্থির পরিস্থিতি সৃষ্টি করে নির্বাচনকে অনিশ্চিত করতে চায়। সেরকম অস্থির পরিস্থিতির আগেই নির্বাচন করা প্রয়োজন।’

    শুধু ষড়যন্ত্র নয়। আগাম নির্বাচন অপ্রস্তুত বিএনপির একটি বড় অংশকে মাঠে আনবে, এরকম নিশ্চিত খবর সরকারের কাছে আছে। এর বাইরেও সরকারের অভিজ্ঞতা হলো, শেষ বছরে প্রশাসন এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ওপর সরকারের নিয়ন্ত্রণ আলগা হয়ে যায়। অনেকেই সরকারের নির্দেশনা ও সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে নানা অজুহাত দেখায়। এ কারণে আগাম নির্বাচন সরকারের নিয়ন্ত্রণকে আলগা হতে দেবে না।

    বর্তমান সংবিধান অনুযায়ী, সংসদের মেয়াদ শেষ হবার ৯০ দিন আগে জাতীয় সংসদ নির্বাচন করা বাধ্যতামূলক। সে হিসেবে আগামী বছরের ২৮ অক্টোবর থেকে ২৮ জানুয়ারির মধ্যে নির্বাচন করার সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে। তবে, সংসদ ভেঙ্গে দিয়ে এর আগেও নির্বাচন করা যায়। সেক্ষেত্রে নির্বাচন হবে, সংসদ ভেঙ্গে দেওয়ার ৯০ দিনের মধ্যে। সরকার যে আগামী বছরের শেষ পর্যন্ত নির্বাচনের জন্য অপেক্ষা করবে না তা স্পষ্ট। কিন্তু নির্বাচন কতটা এগিয়ে আনা হবে, সেটাই দেখার বিষয়।

    Facebook Comments

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫
    ১৬১৭১৮১৯২০২১২২
    ২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
    ৩০৩১  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4673