• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    আজ ঈদের শেষ দিনের যাত্রা শুভ হোক

    অগ্রবাণী ডেস্ক | ২৫ জুন ২০১৭ | ৮:৪৭ পূর্বাহ্ণ

    আজ ঈদের শেষ দিনের যাত্রা শুভ হোক

    এবার ঈদে যানজট, ভোগান্তি আর ভ্রমণের ক্লান্তি ঠেলে যাঁরা বাড়ি পৌঁছেছেন তাঁরা নিশ্চয় হাঁফ ছাড়ছেন। কারণ গত শুক্রবার রাতে বঙ্গবন্ধু সেতুর আগে ও পরে সৃষ্ট যানজটে তীব্র দুর্ভোগে পড়েন উত্তরের যাত্রীরা। ঢাকা-চট্টগ্রাম কিংবা ঢাকা থেকে দক্ষিণের জেলাগুলোর মানুষের যাত্রাও পুরো স্বস্তির ছিল না। তবে গতকাল শনিবার মহাসড়কে বড় জট না হলেও যানবাহন চলেছে ধীরগতিতে।


    আজ রোববার চাঁদ উঠলে কাল ঈদ। আজ ঈদের শেষ দিনের যাত্রা ভালো হোক—এটাই প্রত্যাশা করছে বিভিন্ন বাস টার্মিনালে অপেক্ষায় থাকা ঘরমুখী মানুষ।

    ajkerograbani.com

    ঈদকে কেন্দ্র করে ঢাকা থেকে বিভিন্ন জেলার উদ্দেশে মানুষ ছুটছে গত বুধবার থেকেই। একসঙ্গে অনেক মানুষ, অনেক যানের চাপে মহাসড়কগুলো স্থবির হয়ে পড়েছে। ঈদযাত্রার চতুর্থ দিন গতকাল দিনভর দেশের গুরুত্বপূর্ণ মহাসড়কগুলোয় বড় জট ছিল না। উত্তরের পথে মূল সমস্যা ছিল বঙ্গবন্ধু সেতু ও এর দুই পাশ।

    শুক্রবার রাতে টাঙ্গাইলের এলেঙ্গা থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু এবং বঙ্গবন্ধু সেতু থেকে হাটিকুমরুল পর্যন্ত পাঁচ থেকে ছয় ঘণ্টার জট ছিল। মূলত দুটি সড়ক দুর্ঘটনার জন্য এই পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। এর জের গতকাল সকাল পর্যন্ত ছিল। দুপুরের দিকে যান ধীরগতিতে চললেও জট লাগেনি। অবশ্য রাতের যাত্রাকেই মূল শঙ্কা মনে করা হয়, কারণ এটি দুর্ঘটনাপ্রবণ এলাকা।

    ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে গতকাল যানজট না থাকলেও গাজীপুর অংশে গাড়ি চলেছে ধীরগতিতে। কারণ এই অংশে কিছু খানাখন্দ আছে এবং যানবাহনের চাপও বেড়েছে। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে মালবাহী যান চলাচল কমে গেছে। ফলে দাউদকান্দি সেতুকে কেন্দ্র করে যে জটের সৃষ্টি হয়, তা গতকাল দেখা যায়নি। তবে গজারিয়ায় সামান্য জট ছিল। ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে সামান্য যানজট ছিল। মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ও মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া ঘাটে গাড়ির সারি থাকলেও যাত্রীদের বেশিক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়নি।

    ঈদে ঘরমুখী মানুষকে খোলা ট্রাক ও বাসের ছাদে ভ্রমণ না করার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। গতকাল গাজীপুরের চন্দ্রায় মহাসড়ক পরিদর্শনে গিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এই আহ্বান জানান। রংপুরে ট্রাক উল্টে ছাদে থাকা ১৬ জন নিহত
    হওয়ার ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করে তিনি বলেন, রংপুরের নিম্ন আয়ের মানুষেরা খরচ বাঁচানোর জন্য সিমেন্টবাহী ট্রাকে উঠেছিলেন। তিনি আরও বলেন, ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের চন্দ্রাসহ সারা দেশের সড়ক পরিস্থিতি ভালো রয়েছে।

    দুপুরের দিকে কল্যাণপুর, মাজার রোড ও গাবতলীতে মানুষের ভিড় খুব একটা দেখা যায়নি। বিকেলের পর থেকেই ভিড় বাড়তে থাকে। উত্তরবঙ্গের পথে চলাচলকারী অনেক পরিবহন কোম্পানির কর্মীরা বলছেন, বঙ্গবন্ধু সেতুর আগে-পরের ধীরগতিতে তাদের সময় নষ্ট হচ্ছে।

    শ্যামলী পরিবহনের একটি বাস নওগাঁর উদ্দেশে কল্যাণপুর থেকে ছেড়ে যায় বিকেল চারটার পরপর। যাত্রীরা বলেন, এটি বেলা তিনটায় ছাড়ার সময় নির্ধারিত ছিল।

    চালক মোজাম্মেল হক বলেন, এই বাসটি শুক্রবার বেলা ১টায় নওগাঁর উদ্দেশে ছেড়ে গিয়ে কল্যাণপুর ফিরে আসে বেলা তিনটার দিকে। শুক্রবার যাওয়ার পথে অন্তত চার ঘণ্টা জটে পড়ে থাকতে হয়। ফেরার পথ ভালোই।

    এস আর পরিবহনের কর্মীরা বলেন, তাদের নন-এসি বাস তুলনামূলক বেশি হওয়ায় জটে পড়ার পরও মোটামুটি সময় মেনেই চলতে পারছে। কিন্তু এসি বাসের ক্ষেত্রে যানজটের ধাক্কা সামলানো যাচ্ছে না। এসি বাস চলছে এক থেকে দুই ঘণ্টা দেরিতে।

    বিকেল পাঁচটার দিকে গাবতলী বাস টার্মিনালে হানিফ পরিবহনের বাসের জন্য অপেক্ষায় থাকা ব্যাংকার আমিনুল হক বলেন, সন্ধ্যা ছয়টায় তাঁর বাস ছাড়ার কথা। কাউন্টার থেকে বলা হচ্ছে সময়মতোই যাবে।

    সায়েদাবাদ বাস টার্মিনালে গতকাল শনিবার যাত্রী বৃদ্ধির পাশাপাশি কয়েকটি বাসে ভাড়া বৃদ্ধিরও অভিযোগ পাওয়া গেছে।

    নোয়াখালীর পথে চলা হিমাচল এক্সপ্রেস বাসের কাউন্টারের সামনে অপেক্ষা করছিলেন আল-মামুন। তিনি বলেন, এক ঘণ্টা থেকে বাসের জন্য অপেক্ষা করছেন। কিন্তু বাস এখনো ঢাকায় পৌঁছায়নি। তাই কাউন্টার থেকে টিকিট দেওয়া হচ্ছে না।

    আল-মামুনের মতোই বিভিন্ন কাউন্টারে প্রচুর যাত্রীকে অপেক্ষা করতে দেখা গেছে।

    কুমিল্লার লাঙ্গলকোটগামী তিশা ট্রান্সপোর্টের এক যাত্রী অভিযোগ করেন, এই পথে যেতে আগে ২২০ টাকা ভাড়া নেওয়া হতো। এখন ৩৫০ টাকা নেওয়া হচ্ছে।

    জানতে চাইলে বাসটির সুপারভাইজার মো. রফিক ভাড়া বৃদ্ধির কথা স্বীকার করে বলেন, যানজটের কারণে তাঁরা প্রত্যাশা অনুযায়ী ট্রিপ দিতে পারছেন না।

    মহাখালী টার্মিনালে এনা পরিবহনের টিকিটবিক্রেতা মো. ফারুক হোসেন বলেন, শুক্রবার তাঁদের ছয়টি বাস রংপুরের উদ্দেশে ছেড়ে যায়। গতকাল বিকেল পর্যন্ত দুটি বাস ফিরে এসে পুনরায় যাত্রী নিয়ে যেতে পেরেছে।

    বিকেলে মহাখালী টার্মিনালের প্রায় ৩৭টি পরিবহনের কাউন্টারে দুই হাজারের বেশি যাত্রীকে বাসের জন্য অপেক্ষা থাকতে দেখা যায়। এর মধ্যে ময়মনসিংহের পথের কাউন্টারগুলোতে ভিড় বেশি ছিল।

    মহাখালী বাস টার্মিনাল সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সভাপতি আবুল কালাম প্রথম আলোকে বলেন, শুক্রবার সন্ধ্যা থেকে গতকাল বিকেল পর্যন্ত প্রায় তিন লাখ মানুষ এই টার্মিনাল থেকে বাসে উঠেছে।

    মহাসড়কে রাতে ভোগান্তি, দিনে স্বস্তি

    যানবাহনের চালক, যাত্রী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের গাজীপুর অংশে গতকাল সকাল থেকেই যান চলাচল ছিল স্বাভাবিক। কোনাবাড়ী এলাকায় যান চলাচলে কিছুটা ধীরগতি থাকলেও তা ছিল সহনীয় পর্যায়ে।

    শুক্রবার মাঝরাতে টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলায় বেঙ্গল কারখানার সামনে ঢাকাগামী একটি ট্রাককে পেছন থেকে অপর একটি ট্রাক ধাক্কা দেয়। এতে পেছনের ট্রাকটির চালক ও সহকারী আহত হন। এ সময় যানজটের সৃষ্টি হয়। পুলিশ ঘণ্টাখানেক পরে যান দুটি সরিয়ে নেয়।

    ভোর চারটার দিকে পোষ্টকামুরী এলাকায় বিপরীতমুখী বাস ও ট্রাকের সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলে ট্রাকচালক নিহত হন। দুর্ঘটনার পর মহাসড়কের উভয় পাশে প্রায় ২০ কিলোমিটার এলাকায় যানজটের সৃষ্টি হয়। পুলিশ প্রায় এক ঘণ্টা পর দুর্ঘটনাকবলিত বাস-ট্রাক রাস্তা থেকে সরিয়ে নিলেও পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে সকাল সাতটা বেজে যায়।

    সিরাজগঞ্জের কামারখন্দ উপজেলায় ক্ষতিগ্রস্ত নলকা সেতুর দুই পাশে যানবাহন থামার কারণে অতিরিক্ত সময় লাগে। কিছু যান বিকল্প পথে সিরাজগঞ্জ শহরের ভেতর দিয়ে চলাচল করে।

    রংপুরের যাত্রী মাহমুদুল হাসান বলেন, তিনি শুক্রবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে রাজধানীর কল্যাণপুর থেকে বাসে রওনা দিয়ে বিকেল চারটার দিকে রংপুরে পৌঁছান। স্বাভাবিক সময়ে এ পথ পারি দিতে সাত ঘণ্টা লাগে।

    ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের গাজীপুর অংশে কয়েকটি স্থানে খানাখন্দ রয়েছে। টঙ্গী, স্টেশন রোড, ভোগরা বাইপাস ও চান্দনা চৌরাস্তা এলাকায় যানবাহন চলেছে ধীরগতিতে। কখনো কখনো থেমে থেমে যানজটও লেগেছে।

    বাসচালক আইয়ুব আলী বলেন, কোথাও কোথাও থেমে থেমে যানজট ছিল।

    ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে শুক্রবার রাত থেকে ট্রাক, লরি ও কাভার্ডভ্যান চলাচল কমে গেছে। গতকাল দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে দাউদকান্দিতে মেঘনা-গোমতী সেতুর টোল প্লাজা এলাকা পরিদর্শন করেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) এ কে এম শহীদুল হকসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। এ সময়ও দাউদকান্দি অংশ যানজটমুক্ত ছিল।

    লক্ষ্মীপুরগামী বাসের চালক শাকিল আহমেদ বলেন, তিনি গতকাল বিকেল পাঁচটায় রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থেকে রওনা দেন। সন্ধ্যা ছয়টার দিকে তিনি দাউদকান্দির গৌরীপুরে পৌঁছান।

    গতকাল সকাল ছয়টার দিকে মুন্সিগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার ভাটেরচর এলাকা থেকে মেঘনা সেতুর টোল প্লাজা পর্যন্ত থেমে থেমে জট তৈরি হয়। সকাল ১০টার দিকে তা কেটে যায়।

    মুন্সিগঞ্জের লৌহজং উপজেলায় শিমুলিয়া ঘাটে সকালে গাড়ির সারি থাকলেও পরে তা কেটে যায়। মানিকগঞ্জের শিবালয় উপজেলার পাটুরিয়া ঘাটে যাত্রীবাহী বাসের দীর্ঘ সারি থাকলেও যাত্রীদের খুব একটা ভোগান্তি পোহাতে হয়নি।

    Facebook Comments Box

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4757