সোমবার ১৮ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২রা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

আফগানিস্তান সম্পর্কে অজানা কিছু তথ্য

ডেস্ক রিপোর্ট   |   মঙ্গলবার, ১৭ আগস্ট ২০২১ | প্রিন্ট  

আফগানিস্তান সম্পর্কে অজানা কিছু তথ্য

আনুষ্ঠানিকভাবে ইসলামী প্রজাতন্ত্র আফগানিস্তান। ৬৫২ দশমিক ২৩০ বর্গ কিমি আয়তনের দেশটি বিশ্বের ৩৭তম জনবহুল দেশ। দক্ষিণ এশিয়ার স্থলবেষ্টিত দেশটির রাজধানী এবং বৃহত্তম শহর কাবুল। পশতু এবং দরি এখানকার সরকারী ভাষা। রয়েছে নিজস্ব মুদ্রা আফগান আফগানি।

দেশের আদি বা অধিবাসীদের আফগান বা আফগানিস্তানী বলা হয়। এর ছয়টি সীমান্তবর্তী দেশ রয়েছে যার মধ্যে রয়েছে তাজিকিস্তান, তুর্কমেনিস্তান, উজবেকিস্তান, ইরান, পাকিস্তান এবং চীন। এশিয়ার ডালিমের জন্য আফগানিস্তান বিখ্যাত।


এটি নীল মসজিদ বা ` হজরত আলীর মাজার ` হিসেবে পরিচিত
চলুন যুদ্ধবিধ্বস্ত এই দেশটির আরো কিছ চমকপ্রদ তথ্য জেনে নেয়া যাক-

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুল এর বৃহত্তম শহর। আফগানিস্তান একটি স্থলবেষ্টিত দেশ । ইরান , পাকিস্তান , উজবেকিস্তান , তুর্কমেনিস্তান, তাজিকিস্তান এবং চীন সবদিক থেকে আফগানিস্তান সীমান্ত। আফগানিস্তানের জনগণের আফগানদের বলা হয় আফগানিস্তানী। আফগানদের আয়ের প্রধান উৎস কৃষি । তবে প্রাকৃতিক গ্যাস এবং তেলের মতো প্রাকৃতিক সম্পদেও সমৃদ্ধ এই দেশ।


“বুজকাশি” আফগানিস্তানের জাতীয় খেলা । দুই দলের খেলোয়াড়রা ঘোড়ায় চড়ার সময় ছাগল ধরার চেষ্টা করে। এই খেলাটি শতাব্দী ধরে খেলা হচ্ছে এবং এটি একটি কঠিন খেলা। আফগানিস্তান স্বাধীন হয়েছিল ১৯১৯ সালের ১৯ আগস্ট। ব্রিটেনের সঙ্গে তিনটি যুদ্ধের পরে তারা নিজেদের স্বাধীন ঘোষণা করে। একসময় এদেশের পররাষ্ট্র বিষয়গুলো যুক্তরাজ্য দ্বারা প্রভাবিত ছিল। কিন্তু আফগানীরা সরাসরি ব্রিটিশদের অধীনে থাকতে চায় নি।
গত দশকে আফগানিস্তান যে কোনো দেশের চেয়ে বেশি সংবাদের মধ্যে রয়েছে। আফগানরা ২১ মার্চ নববর্ষ পালন করে। একে তারা বলে “নওরোজ” বলে। এটি একটি প্রাক-ইসলামী উৎসব। যা আফগানিস্তান জুড়ে মাজার-ই-শরীফ শহরে হাজার হাজার ভ্রমণকারীদের সমাবেশের মাধ্যমে উদযাপিত হয়। যেটা শহরের কেন্দ্রে একটি মসজিদ। এটি নীল মসজিদ বা ‘ হজরত আলীর মাজার ‘ হিসেবে পরিচিত। তিনি ছিলেন হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর চাচাতো ভাই ও জামাতা।

দেশটির ৯০ শতাংশেরও বেশি জায়গায় মোবাইল ফোনের কভারেজ পাওয়া যায়। পশ্চিমাঞ্চলীয় শহর হেরাতে বৃহস্পতিবার কবিতার রাত উদযাপন করে। সব বয়সের মানুষ সেখানে সমবেত হয় কবিতার আধুনিক এবং প্রাচীনকালের কবিতা চর্চা করা হয়। সঙ্গে থাকে চা এবং মিষ্টি জাতীয় বিভিন্ন খাবার। আলেকজান্ডার দ্য গ্রেট হেরাত শহর ৩৩০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে দখল করে দুর্গ নির্মাণ করেন। আলেকজান্ডারের আফগানিস্তানের বালখ প্রদেশের এক সুন্দরী নারীকে বিয়ে করেন। পরবর্তীতে তাদের একটি পুত্র সন্তানও ছিল।

"বুজকাশি" আফগানিস্তানের জাতীয় খেলা

কান্দাহার এয়ারফিল্ড একসময় বিশ্বের ব্যস্ততম সিঙ্গেল রানওয়ে এয়ারস্ট্রিপ ছিল। তখন এখানে সপ্তাহে ১৭০০ থেকে ৫ হাজার ফ্লাইট পরিচালনা করত। এখানে ন্যাটো এবং নন-ন্যাটো দেশে তার প্রথম সম্পূর্ণ বিমান চলাচলের ক্ষমতা স্থাপন করেছে। বিশ্বের বৃহত্তম বুদ্ধমূর্তি প্রথম আফগানিস্তানে নির্মিত হয়েছিল। এই মূর্তি ২০০১ সালে তালেবানরা ধ্বংস করে দেয়।

পৃথিবীর প্রথম তৈলচিত্র ৬৫০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে “বামিয়ান” গুহায় আঁকা হয়েছিল। আফগানিস্তানের বামিয়ানের গুহায় আবিষ্কৃত তৈলচিত্রটি বুদ্ধের। শুধুমাত্র একজন ইহুদি এখনো জীবিত আছে আফগানিস্তানে। তার নাম জ্যাবলন সিমিনটোভ। তিনি জন্মগ্রহন করেন ১৯৫৯ সালে। জ্যাবলন একজন আফগান কার্পেট ব্যবসায়ী।

২০১৩ সালে মার্কিন আক্রমণের আগের সাত বছরের তুলনায় আফগানিস্তানে আফিম চাষে ৩০০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। একসময় আফগানিস্তান ছিল গাঁজার সবচেয়ে বড় উৎপাদক।

আফগানিস্তানের ইতিহাস সম্পর্কে তথ্য:
> আফগানিস্তান কয়েক দশক ধরে যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ এবং সোভিয়েত, ব্রিটিশ, মঙ্গোল, মুসলিম আরব, মৌর্য, আলেকজান্দ্রা দ্য গ্রেট এবং সাম্প্রতিক সময়ে পশ্চিমা শক্তির অধীনে অনেক শক্তির সামরিক প্রভাবের অধীনে রয়েছে।

> ৫০ হাজার বছর আগেও আফগানিস্তানে মানুষের বসবাস ছিল বলে অনুমান করা হয়।

> আরব মুসলমানরা আফগানিস্তানে ৬৪২ খ্রিস্টাব্দে হেরাত এবং জারাংয়ে ইসলাম ধর্ম প্রচার করে। তারা আফগানিস্তানকে আল হিন্দ হিসেবে স্বীকৃতি দেয় ( ভারতের সঙ্গে আফগানিস্তানের নৈকট্যের কারণেই এমন নাম)।

> ইসলাম প্রবর্তনের পূর্বে আফগানিস্তানে বৌদ্ধ ও জরথুষ্ট ধর্ম ছিল প্রভাবশালী ধর্ম।

> চেঙ্গিস খান এবং তার মঙ্গোল সেনাবাহিনী ১২১৯ খ্রিস্টাব্দে আফগানিস্তানে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে।

> আহমদ শাহ দুররানি, যিনি ” জাতির পিতা ” নামেও পরিচিত। তিনি শেষ আফগান সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা। তিনি ১৭৪৭ সালে মুকুট পরেন।

> ১৭৭২ সালে আহমদ শাহ দুররানির মৃত্যুর পর তার পুত্র তৈমুর শাহ তার স্থলাভিষিক্ত হন।

> ১৭৭৬ সালে তৈমুর শাহ আফগানিস্তানের রাজধানী কান্দাহার থেকে কাবুলে স্থানান্তর করেন ।

> ১৯৯২ থেকে ১৯৯৬ সালের মধ্যে দেশে একটি গৃহযুদ্ধ সংঘটিত হয় এবং অনুমান করা হয় যে গৃহযুদ্ধের সময় মুজাহিদিনের সংঘর্ষে দেশে কমপক্ষে ৫০ হাজার মানুষ মারা গিয়েছিল।

> তালিবান ( আফগানিস্তানে একটি সুন্নি ইসলামী মৌলবাদী রাজনৈতিক আন্দোলন) ১৯৯৬ এবং ২০০১ এর মধ্যে প্রায় ৫ বছর দেশ শাসন করেছিল।

> ২০০৪ সালে হামিদ কারজাই ওঠে আফগানিস্তানের প্রথম গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট।

> ২০০১ সালে সেপ্টেম্বরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ওসামা বিন লাদেনের আল কায়েদা বাহিনী দ্বারা আক্রমণের পর, একটি মার্কিন এবং যুক্তরাজ্য জোট তালেবান শাসনের বিরুদ্ধে কাবুল সহ আফগানিস্তানের প্রধান শহরগুলোতে সামরিক আক্রমণ শুরু করে।

> আফগানিস্তান শব্দটির অনুবাদ “আফগানদের দেশ”।

> রেশম পথে আফগানিস্তানের অবস্থান এটিকে বিভিন্ন অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক সুবিধা দিয়েছে।

Facebook Comments Box

Posted ৩:২৬ অপরাহ্ণ | মঙ্গলবার, ১৭ আগস্ট ২০২১

ajkerograbani.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১