বুধবার ৪ঠা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২০শে শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

আ.লীগ সভাপতির কার্যালয়ে কাদের-নাসিমের বাগবিতণ্ডা

ডেস্ক   |   শনিবার, ২১ মার্চ ২০২০ | প্রিন্ট  

আ.লীগ সভাপতির কার্যালয়ে কাদের-নাসিমের বাগবিতণ্ডা

আওয়ামী লীগ সভাপতির ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে কর্মীদের প্রবেশ নিয়ে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিমের মধ্যে বাগবিতণ্ডার ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গেছে।
শনিবার (১৪ মার্চ) সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগ সভাপতির ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে সম্পাদকমণ্ডলীর জন্য নির্ধারিত কক্ষে ছাত্রলীগসহ সহযোগী সংগঠনের সাবেক নেতাদের নিয়ে বসাকে কেন্দ্র করে বিতর্কে জড়িয়ে পড়েন উভয় নেতা। সেখানে উপস্থিত একাধিক কেন্দ্রীয় নেতা এ তথ্য নিশ্চিত করেন।
ঘটনাস্থলে উপস্থিত আওয়ামী লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর এক সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘কার্যালয়ের ভেতরে কর্মীদের প্রবেশে একটি অলিখিত নিষেধাজ্ঞা রয়েছে দলের সাধারণ সম্পাদকের। ফলে কর্মীদের কার্যালয়ের ভেতরে প্রবেশে ভীতি কাজ করে। তবে নাছিম সাহেবসহ আমরা মনে করেছিলাম আজকে (শনিবার) সাধারণ সম্পাদক পার্টি অফিসে আসবেন না। সে ধারণা থেকে সাবেক ছাত্রনেতা আতাউর রহমান আতা, পাবনার আরিফসহ আরও কয়েকজন ছাত্রনেতাকে নিয়ে কথা বলছিলেন নাছিমসহ কেন্দ্রীয় কয়েকজন নেতা। এরই মধ্যে দলীয় কার্যালয়ে প্রবেশ করেন সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। ঢুকেই তিনি সরাসরি সম্পাদকমণ্ডলীর ওই কক্ষে যান এবং উচ্চস্বরে বসে থাকা সাবেক নেতাদের বলেন, তোমরা কারা? এখানে কেন ঢুকেছ? এরপর কেন্দ্রীয় নেতাদের দিকে আঙুল উঁচিয়ে ধমক দেন তিনি।’
উপস্থিত নেতাদের ভাষ্য অনুযায়ী, কেন্দ্রীয় নেতাদের উদ্দেশে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমি পার্টির সাধারণ সম্পাদক, আমার নির্দেশ তোমরা মানো না।’ এর জবাবে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, ‘আমিও দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, আমারও কর্মীদের নিয়ে বসে কথা বলার রাইট (অধিকার) আছে। তাছাড়া যাদের নিয়ে বসেছি তারা সবাই দলের, কেউ রাস্তার লোক নয়।’ এ ধরনের বাক্য বিনিময়ে দলীয় কার্যালয়ের পরিবেশ উত্তপ্ত হয়ে ওঠে।
বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, ‘দলীয় কার্যালয় কারও বাপের সম্পত্তি নয়, এটা সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়। এখানে কর্মীরা আসবেই নেতাদের কাছে, বসবে, কথা বলবে এটাই স্বাভাবিক।’
সাধারণ সম্পাদককে উদ্দেশ করে তিনি আরও বলেন, ‘আপনার জন্য থাকা নির্ধারিত কক্ষে তো আমরা বসিনি।’
জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমি দেখে নেব। নেত্রীকে (শেখ হাসিনা) জানাব ‘ জবাবে নাছিম বলেন, ‘জানান। নেত্রীও কারও একার নন, তিনি সবার।’
এ ধরনের বাগবিতণ্ডা প্রায় আধা ঘণ্টা চলে। পরে ওবায়দুল কাদের বের হয়ে যান। এ পরিস্থিতি তৈরি হলে কার্যালয়ে থাকা নেতাকর্মীরা ছোটাছুটি করে যে যার মতো কার্যালয় থেকে বেরিয়ে যান।
আওয়ামী লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর আরেক সদস্য বলেন, কার্যালয়ে প্রবেশের অলিখিত বিধিনিষেধের কারণে অনেকেই আসেন না এখানে। যারা আসেন বাইরে দাঁড়িয়ে থাকেন। নেতারা কার্যালয় থেকে বেরিয়ে গেলে কর্মীরা রাস্তায় দাঁড়িয়ে প্রয়োজনীয় কাজ সেরে নেন নেতাদের সঙ্গে। অলিখিত এ বিধিনিষেধ উঠিয়ে দেয়া উচিত।

Facebook Comments Box


Posted ৭:০৫ অপরাহ্ণ | শনিবার, ২১ মার্চ ২০২০

ajkerograbani.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১