সোমবার, এপ্রিল ১৯, ২০২১

ইলিয়াস আলী ইস্যুতে আব্বাসের বক্তব্যে ক্ষুব্ধ তারেক রহমান

বিশেষ প্রতিবেদক   |   সোমবার, ১৯ এপ্রিল ২০২১ | প্রিন্ট  

ইলিয়াস আলী ইস্যুতে আব্বাসের বক্তব্যে ক্ষুব্ধ তারেক রহমান

মির্জা আব্বাস ও তারেক রহমান

ইলিয়াস আলী নিখোঁজের ৯ বছর পর বিস্ফোরক মন্তব্য করে বিএনপির ভেতর ও বাইরে আলোচনার ঝড় তুলেছেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস। আব্বাসের বক্তব্যে বিএনপির ভেতর তীব্র প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়েছে বলে জানা গেছে। যদিও আব্বাস রবিবার এক সংবাদ সম্মেলনে দাবি করেছেন, তাঁর বক্তব্য বিভিন্ন গণমাধ্যমে বিকৃতভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে, কাটপিস করা হয়েছে। তবে আব্বাসের ওই বক্তব্যের সন্তুষ্ট নন বিএনপির নেতাকর্মীরা। তাদের দাবি মির্জা আব্বাস ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের চেষ্টা করেছেন। নিজে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য হয়েও দলকে বিতর্কিত করতে তিনি এ বক্তব্য দিয়েছেন।
২০১২ সালের ১৭ এপ্রিল রাজধানীর বনানী থেকে গাড়িচালক আনসার আলীসহ নিখোঁজ হন ইলিয়াস আলী। এত দিন বিএনপি অভিযোগ করে আসছিল, তাঁকে সরকারই ‘গুম’ করে রেখেছে।
জানা গেছে, কী কারণে মির্জা আব্বাস ওই বক্তব্য দিয়েছেন, সরাসরি সংবাদ সম্মেলন ডেকে সে বিষয়টি ‘ক্লিয়ার’ করতে নির্দেশনা দিয়েছেন দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলন বা সংবাদ বিজ্ঞপ্তি দিয়ে এ ঘটনার ব্যাখ্যা আব্বাস দিতে চাইলেও ক্ষুব্ধ তারেক তা নাকচ করে দেন। তারেক ছাড়াও দলটির বেশির ভাগ নেতাকর্মী, এমনকি আব্বাসের ঘনিষ্ঠজনরাও তাঁর বক্তব্যে হতবাক হয়েছেন বলে জানা গেছে।
সূত্র মতে, ঘনিষ্ঠজনদের অনেকেই ফোন করে এই বিষয়ে আব্বাসের কাছে জানতে চেয়েও কোনো উত্তর পাননি।
জানতে চাইলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার বলেন, ‘আব্বাসের মতো পুরনো একজন রাজনীতিক এ ধরনের কথা বলবেন, সেটি চিন্তাও করতে পারি না। এ বিষয়ে অবশ্যই তাঁর কৈফিয়ত দিতে হবে।’ প্রশ্ন তুলে সাবেক এই স্পিকার বলেন, ‘ইলিয়াসের গুমের সঙ্গে সরকার জড়িত, এটাই আমরা জানি। এখন উনি (আব্বাস) অন্য লোকদের কথা বলে থাকলেও সেটা উনারই ক্লিয়ার করা উচিত।’
দলটির স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় মনে করেন, ‘মির্জা আব্বাস হয়তো দলের খারাপ লোকদের সম্পর্কে কিছু বলতে চেয়েছেন। কিন্তু ঠিকমতো গুছিয়ে না বলতে পেরে তালগোল পাকিয়েছেন।’ ‘তা ছাড়া এ ধরনের কথা বলার জন্য কেউ তাঁকে ফাঁদেও ফেলতে পারে’—সংশয় প্রকাশ করে বলেন গয়েশ্বর।
দলটির বিভিন্ন পর্যায়ের আরো অন্তত এক ডজন নেতার সঙ্গে কথা বললেও আব্বাসের বক্তব্যের বিষয়ে তাঁরা কোনো প্রতিক্রিয়া জানাতে রাজি হননি। তবে আলাপচারিতায় তাঁরা প্রায় সবাই উষ্মা প্রকাশ করেন। জ্যেষ্ঠ একজন নেতা বলেন, বিএনপির রাজনীতিতে আব্বাসের সারা জীবনের অর্জন এক বক্তব্যে তিনি নিজেই শেষ করে দিয়েছেন।
আরেক নেতা জানান, নিখোঁজের আগের দিন খালেদা জিয়ার বিশেষ সহকারী শিমুল বিশ্বাসের সঙ্গে ইলিয়াস আলীর বাগবিতণ্ডা হয়েছে বলে শুনেছেন তিনি। কিন্তু ইলিয়াস আলীর মতো নেতাকে গুম করার মতো ‘লম্বা হাত’ শিমুলের রয়েছে বলে দলটির কোনো নেতা বিশ্বাস করেন না।
জানা গেছে, এমন আলোচনায় বিএনপিতে আব্বাসের বর্তমান অবস্থান, তাঁর চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য এবং আব্বাসের অতীত ও বর্তমানের নানা ঘটনা যুক্ত করে হিসাব মেলানোর চেষ্টা করছেন নেতারা। তাঁরা বলছেন, বিএনপি নেতাদের মধ্যে আব্বাস কিছুটা ‘ধনাঢ্য’ হিসেবে পরিচিত। তাঁর টিকে থাকার ব্যাপার আছে। আবার কেউ কেউ মনে করেন, ইলিয়াস আলী ‘গুমের’ সঙ্গে শক্তিশালী একটি দেশ এবং ওই দেশটির প্রতি আনুগত্য থাকা বিএনপির একটি অংশের জড়িত থাকার কথাই বলতে চেয়েছেন আব্বাস। কিন্তু ওই দেশের কথা না বলে সরাসরি তিনি বিএনপি নেতাদের টার্গেট কেন করলেন, সে হিসাব মিলছে না। ঢাকা মহানগরের রাজনীতিতে একসময় আব্বাসের চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন সাদেক হোসেন খোকা। কিন্তু এখন তিনিও নেই। অনেকের মতে, বিএনপিতে আব্বাসের ওইভাবে প্রকাশ্যে-অপ্রকাশ্যে কোনো শত্রুও নেই। তাই তাঁর ওই বক্তব্য অনেকের কাছেই ‘রহস্যময়’ ঠেকছে।


Posted ২:৩১ অপরাহ্ণ | সোমবার, ১৯ এপ্রিল ২০২১

ajkerograbani.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

Archive Calendar

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০