শুক্রবার, এপ্রিল ২৪, ২০২০

করোনা থেকে সুস্থ হয়ে যা বললেন কাশিয়ানীর সন্তান ডা. আতিয়ার রহমান

শেখ সোহেল রানা   |   শুক্রবার, ২৪ এপ্রিল ২০২০ | প্রিন্ট  

করোনা থেকে সুস্থ হয়ে যা বললেন কাশিয়ানীর সন্তান ডা. আতিয়ার রহমান

হাসপাতালে না গিয়ে বাসাতে থেকেই করোনার সংক্রমন থেকে সুস্থ হওয়া সম্ভব বলে জানালেন করোনায় আক্রান্ত এক চিকিৎসক। করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর সুস্থ হয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে এসে এ কথাই জানালেন কুয়েত-বাংলাদেশ মৈত্রী সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসক গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলার রাতইল ইউনিয়নের শংকরপাশা গ্রামের কৃতি সন্তান ডা. মো: আতিয়ার রহমান।
শুরু থেকেই কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা করছিলেন এ চিকিৎসক। গত ১৫ এপ্রিল তিনি জানতে পারেন যে, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঘটেছে তার দেহে।এতে তিনি ভয় পাননি বরং সাহসের সঙ্গে রোগের পর্যায়ে পেরিয়ে এসেছেন।
ডা. মো: আতিয়ার এ প্রতিবেদক কে বলেন, প্রথমে খবরটা শুনে একটু ভয় পেয়েছি। রাতে ঘুম আসেনি। সহকর্মীদের সমবেদনা, সান্ত্বনাতেও কোনো সাহস জোগায়নি। চোখের সামনে কয়েক জন কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীকে মারা যেতে দেখলাম। সেই অনুভূতি বলে বোঝানোর নয়।
তিনি আরো বলেন, আমার করোনার লক্ষন ছিলো না। কোনো কারণ ছাড়াই পরীক্ষা করে জানতে পারি যে, আমি করোনা আক্রান্ত। যেহেতু আমার লক্ষণ ছিলো না তাই হাসপাতালে না থেকে আলাদা জায়গায় আইসোলেশনে থাকতে শুরু করি এবং ধীরে ধীরে সুস্থ্য হয়ে উঠি।
তিনি আরো বলেন, কোনো লক্ষণ ছাড়াই এখন অনেকেই করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন। এতে ভয় না পেয়ে সাহসের সঙ্গে এ রোগকে মোকাবিলা করতে হবে। বাসায় একা বিশ্রামে থেকেই এ রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। শুধু প্রয়োজন সাহস। সঠিক নিয়ম মেনে হোম আইসোলেশনে থাকতে হবে। তাহলে ৭ থেকে ১৪ দিনে হাসপাতালে না গিয়েও সম্পূর্ণ সুস্থ হওয়া সম্ভব।
ডা. মো: আতিয়ার রহমান আজকের অগ্রবাণী’কে বলেন , আমি সরকারি নির্দেশে ২০১৬ সাল থেকে কুয়েত-বাংলাদেশ মৈত্রী সরকারি হাসপাতালে কাজ করছি। দীর্ঘদিন যাবৎ এই হাসপাতালটি অকেজো হয়ে পড়ে ছিলো। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে বৃহত্তর উত্তরা, গাজীপুর, টংগী, আশুলিয়া সহ বিভিন্ন এলাকার মানুষের স্বাস্থ্যসেবা দোর গোড়ায় পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্যে হাসপাতালটি চালু করেন।
এটি মূলত ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট একটি হাসপাতাল। আমরা শুনেছি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এই হাসপাতালটিকে একটি মেডিকেল কলেজ করতে চান। বর্তমানে হাসপাতাল টি করোনা ভাইরাসের সংক্রমিতদের চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।
ডা. মো: আতিয়ার রহমানের সাথে আলাপকালে তিনি আজকের অগ্রবাণী’কে বলেন, আমি পজিটিভ হয়েছি কিন্তু আমি সুস্থ আছি। খুব দ্রুত সুস্থ হয়ে আমি করোনা কবলিত মানুষের সেবায় যোগদান করতে চাই।
তিনি আরও বলেন, আমি চিকিৎসক হয়েছি মানুষের সেবা দেওয়ার জন্য। আমি ক্ষতিগস্ত হিসেবে কিছু চাই না। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যেন আমার প্রনোদনা গরীব দুঃখী অসহায় মানুষের মাঝে বিলিয়ে দেন। আমি ২০০৪ সালে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার সময় তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেতা জননেত্রী শেখ হাসিনার সন্ত্রাস বিরোধী সমাবেশে ছিলাম এবং গ্রেনেড হামলায় সামান্য আহত হয়েছিলাম।


Posted ৫:৩২ অপরাহ্ণ | শুক্রবার, ২৪ এপ্রিল ২০২০

ajkerograbani.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

Archive Calendar

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১