বুধবার, জুন ৩০, ২০২১

কানাডায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪৯.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস, তাপদাহে মৃত্যু কমপক্ষে ৭০

  |   বুধবার, ৩০ জুন ২০২১ | প্রিন্ট  

কানাডায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪৯.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস, তাপদাহে মৃত্যু কমপক্ষে ৭০

যাবতকালের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ও তাপদাহে পুড়ছে কানাডা। সোমবার থেকে কমপক্ষে ৭০ জন আকস্মিকভাবে শুধু বৃটিশ কলাম্বিয়ায় মারা গেছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। এর বেশির ভাগই বয়স্ক মানুষ। এর সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে তাপমাত্রা। টানা তৃতীয় দিনের মতো রেকর্ড পরিমাণ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে বৃটিশ কলাম্বিয়ার লিটনে। সেখানে মঙ্গলবার তাপমাত্রা ছিল ৪৯.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সঙ্গে তাপদাহ পুরো এলাকাকে অগ্নিকুণ্ডের রূপ দিয়েছে। মানুষের শরীর পুড়ে যাওয়ার মতো অবস্থা।
কেউ কেউ বলছেন, গায়ে ফোস্কা পড়ে যাচ্ছে। এ খবর দিয়েছে অনলাইন বিবিসি। এ সপ্তাহের আগে কানাডায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৪৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এ যাবতকালের মধ্যে এর উপরে তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়নি। তবে রোববার এক ধাক্কায় তা উঠে যায় ৪৬.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। তারপর থেকে শুধু বাড়ছেই তাপমাত্রা। যুক্তরাষ্ট্রের অনেক স্থানেও পরিস্থিতি একই রকম।
এ অবস্থায় ভ্যানকোভারের বার্নাবি অঞ্চলে কানাডিয়ান পুলিশের কর্পোরাল মাইক কালাঞ্জ জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, আপনার প্রতিবেশীর খোঁজখবর রাখুন। নিজের পরিবারের সদস্যদের খোঁজখবর রাখুন। প্রবীণদের অসুবিধার কথা জানতে পারলে তাদের দেখাশোনা করুন। তিনি আরো বলেন, আমাদের এই সমাজে ঝুঁকিতে আছেন, এমন সদস্যদের অবস্থা ভয়াবহ হতে পারে এই আবহাওয়ায়, বিশেষ করে প্রবীণ এবং স্বাস্থ্যগত সমস্যায় আছেন এমন সব লোক। আমাদের অগ্রাধিকার হতে হবে তাদেরকে দেখাশোনা করা।
পুলিশের মতে, ভ্যানকোভারের বার্নাবি এবং সারে’তে ৬৯ জন মানুষ মারা যাওয়ার পেছনে তাপমাত্রা দায়ী। তাদের বেশির ভাগই বয়স্ক এবং স্বাস্থ্যগত সমস্যা ছিল। লিটনের একটি ছোট্ট গ্রামের বাসিন্দা মেগান ফ্যানড্রিচ গ্লোব অ্যান্ড মেইল পত্রিকাকে বলেছেন, ঘরের বাইরে যাওয়া একেবারেই অসম্ভব। পরিস্থিতি অসহনীয় হয়ে উঠেছে। বৃটিশ কলাম্বিয়ার যে এলাকায় তুলনামূলক কম তাপমাত্রা, সেখানে পরিবারের এক সদস্যের কাছে ছোট মেয়েকে পাঠিয়ে দিয়েছেন তিনি। তিনি বলেন, যতটা সম্ভব আমরা ঘরের ভিতর থাকার চেষ্টা করছি।
এনভায়রনমেন্ট কানাডা তাপমাত্রা নিয়ে সতর্কতা দিয়েছে বৃটিশ কলাম্বিয়া ও আলবার্তার জন্য। সাসকাচেওয়ানের কিছু অংশ, নর্থওয়েস্ট টেরিটোরিজ এবং ইউকোনের একাংশের জন্যও এই সতর্কতা কাজ করবে। এনভায়রনমেন্ট কানাডার জলবায়ু বিষয়ক সিনিয়র বিশারদ ডেভিড ফিলিপস বলেছেন, আমরা হলাম বিশ্বে সবচেয়ে ঠাণ্ডা ও তুষারপাতের দিক দিয়ে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন তাপমাত্রার দেশ। মাঝে মাঝেই এখানে শৈত্যপ্রবাহ হয়। কিন্তু কখনো এমন ভয়াবহ গরম আবহাওয়ার কথা শুনিনি। আমরা এখন যে তাপমাত্রা উপলব্ধি করছি এর চেয়ে অনেক ঠাণ্ডা দুবাই।
যুক্তরাষ্ট্রের পোর্টল্যান্ড এবং সিয়াটলে ১৯৪০এর দশকের পর সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ওয়েদার সার্ভিসের মতে, অরিগন রাজ্যের পোর্টল্যাণ্ডে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪৬.১ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং সিয়াটলে ৪২.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে। এই তাপমাত্রায় বিদ্যুতের ক্যাবল গলে যাওয়ার জন্য যথেষ্ট। এর ফলে রোববার পোর্টল্যান্ড স্ট্রিটকার সার্ভিস বন্ধ হয়ে যায়। ওয়াশিংটনের স্পোকানেতে বিদ্যুতে ব্লাকআউট করা হচ্ছে। কারণ, সেখানকার অধিবাসীদের এসি চালানো বৃদ্ধির প্রেক্ষিতে বিদ্যুতের চাহিদা আকাশচুম্বী। সিয়াটলের একজন অধিবাসী বলেছেন, তার কাছে ওয়াশিংটন রাজ্যকে মনে হচ্ছে মরুভূমির মতো।


Posted ১২:৪২ পিএম | বুধবার, ৩০ জুন ২০২১

ajkerograbani.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement