• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    কালীগঞ্জের পানিতে মাত্রারিক্ত আর্সেনিক, আক্রান্ত হাজারো মানুষ

    আব্দুল্লাহ আল মাসুদ, ঝিনাইদহ প্রতিনিধি | ০৫ এপ্রিল ২০১৭ | ১০:৫৫ অপরাহ্ণ

    কালীগঞ্জের পানিতে মাত্রারিক্ত আর্সেনিক, আক্রান্ত হাজারো মানুষ

    আমি ও আমার স্ত্রী গত ১৫/১৬ বছর আর্সেনিকে আক্রান্ত। প্রথম-প্রথম কিছু লোকজন এসে খোঁজ খবর নিত এখন আর তারা আসেও না, কোন খোঁজও নেয় না। আমাদের নিয়ে দেশের কোন মাথাব্যথা নেই। চেয়ারম্যানও কোন খবর নেয় না।” অত্যন্ত দুঃখের সাথে কথাগুলো জানালেন ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার বড় তালিয়ান গ্রামের ৭০ বছরের বৃদ্ধ আকাল উদ্দিন।
    একই গ্রামের তৌহিদুল ইসলাম জানান, গ্রামের মহিলা-শিশুসহ সকলেই আর্সেনিক নামক ব্যধিতে আক্রান্ত। কোন প্রতিকার ব্যবস্থা নেই। শরীরে নানা স্থানে ক্ষত নিয়ে ধুকছেন অনেকেই । উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গেলে কোন ওষুধই পাওয়া যায় না তাই হাসপাতালে যাওয়া বন্ধ করে দিয়েছে তারা। ইতি মধ্যে আর্সেনিকে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে খোর্দ্দ তালিয়ান গ্রামের মোবারক আলীর ছেলে ইউসুফ মন্ডল, গোহর আলী বিশ্বাসের স্ত্রী সমোত্তবান খাতুন ও মাঝদিয়া গ্রামের ইজ্জত আলী ও একই গ্রামের জয়দেব।
    গ্রামের বধূ বেগম জানান, গা-হাত পা চুলকায়। জ্বালাপোড়া করে। সারা গায়ে ফুসকরি মতন। আর্সেনিক বিষ দুর্বিসহ করে তুলেছে ওই এলাকার মানুষের জীবন যাত্রা। ঝিনাইদহ স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের সূত্রে জানা যায়, ২০০৩ সালে কালীগঞ্জ উপজেলায় আর্সেনিক বিষয়ে একটি জরিপ করা হয়। ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে প্রায় ১০টি ইউনিয়নের ৪০টি গ্রামে আর্সেনিক রোগীর সন্ধান পাওয়া গেছে। ওই সব গ্রামের অধিকাংশ টিউবওয়েলের পানিতে রয়েছে আর্সেনিক । ওই জরিপে সুন্দরপুর-দুর্গাপুর ইউনিয়নে ৫.৩৭% নলকুপে, জামাল ইউনিয়নে ১২.৮৫% কোলা ইউনিয়নে ১৮.৯৪% নলকুপে, নিয়ামতপুর ইউনিয়নে ৮.৯২% নলকুপে, সিমলা রোকনপুর ইউনিয়নে ৩.৮৬%, ত্রিলোচনপুর ইউনিয়নে ২.২২% নলকুপে, রায়গ্রাম ইউনিয়নে ৪.৯৯% নলকুপে, মালিয়াট ইউয়িনয়ে ১৩.৮৯% নলকুপে, বারবাজার ইউনিয়নে ২৭.৩০% নলকুপে, কাষ্টভাঙ্গা ইউনিয়নে ১০.০৮% নলকুপে, রাখালগাছি ইউনিয়নে ৪.৪৩% নলকুপে, এবং কালীগঞ্জ পৌরসভায় ৪.৪৮% নলকুপে আর্সেনিক পাওয়া যায়। টিউবওয়েলগুলোতে লাল চিহ্ন দেওয়া হয় এবং তা পান করার জন্য নিষেধ করেও দেওয়া হয়। কিন্তু আর্থিক স্বচ্ছলতা না থাকার কারণে নতুন করে গভীর নলকুপ দেওয়া সম্ভব না হওয়ায় অধিকাংশরায় পান করছে ওই পানি। ফলে দিনের পর দিন বেড়েই চলছে আর্সেনিক রোগির সংখ্যা।
    ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালের প্রাক্তন আরএমও ডা: রাশেদ আল মামুন জানান, আর্সেনিক একটি মারণব্যধি। আর্সেনিকের সাথে সাথে আরও নানাবিধ জটিল রোগে আক্রান্ত হতে থাকে এ ধরনের রোগীরা। সঠিক সময়ে সুচিকিৎসা না হলে এ রোগে মৃত্যু অনিবার্য। আর্সেনিক মুক্ত পানি পান করা অপরিহার্য।
    ঝিনাইদহ জনস্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী মো: রশিদুল আলম জানান, আর্সেনিক সমস্য সমাধানে এখন কোন প্রকল্প হাতে নেই। ২০০৩ সালে আর্সেনিকের প্রকল্প ছিল। সেই প্রকল্পটি এখন চালু নেই তাই ব্যক্তি উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত নলকুপ গুলোর আর্সেনিক সমস্যা সমাধান করা যাচ্ছে না বলে জানালেন এই জনপ্রকৌশল কর্মকর্তা। তবে জরুরী ভিত্তিতে সরকারী উদ্যগ প্রয়োজন বলে জানালেন তিনি।


    Facebook Comments


    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    webnewsdesign.com

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4669