• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    কালের সাক্ষী আলফাডাঙ্গার জমিদার সাহা বাড়ী রক্ষায় কর্তৃপক্ষ দৃষ্টি দিবেন কি?

    মিয়া রাকিবুল,আলফাডাঙ্গাঃ | ১২ জুলাই ২০১৮ | ৮:০৯ অপরাহ্ণ

    কালের সাক্ষী আলফাডাঙ্গার জমিদার সাহা বাড়ী রক্ষায় কর্তৃপক্ষ দৃষ্টি দিবেন কি?

    আলফাডাঙ্গা উপজেলার ছবির মতো সুন্দর একটি গ্রামের নাম “মহিষারঘোপ”।শান্ত স্নিগ্ধ গ্রামটির বাজার থেকে আঁকা-বাঁকা মেঠো পথ ধরে কিছুদূর এগুতেই হাতের ডান পাশে কালের সাক্ষী প্রাচীন এক জমিদার বাড়ি।নাম মহিষারঘোপ সাহা বাড়ি।


    স্থানীয় লোকমুখে শোনা সাহা বাড়ির সংক্ষিপ্ত ইতিহাস থেকে জানা যায় এই বাড়িটির বয়স আনুমানিক ২৭০ বছরেরও বেশি।তৎকালীন প্রতাপশালী জমিদার ভগবান বাবু তার পিতা খেন্ত মহিস সাহার নামে এ বাড়িটি নির্মাণ করেছিলেন।সংক্ষিপ্তভাবে স্থানীয়দের মাঝে এটি ‘সাহা বাড়ি’ নামে ব্যাপক পরিচিত।


    কথিত আছে,জমিদার ভগবান বাবুর পূর্বপুরুষগণ বানিয়াচং-এর আলিরাজ জমিদারের ওখানে কাজ করতেন এবং পরবর্তীতে তাঁরা মহিষারঘোপ গ্রামে এসে স্থায়ী নিবাস গড়ে তোলেন।ভগবান বাবুর পূর্বপুরুষদের যাদের নাম পাওয়া যায়, তাদের মধ্যে জমিদার খেন্ত মহিস সাহার ছেলে ছিল জমিদার ভগবান বাবু।ভগবান বাবুর ছিল তিন ছেলে- চারু বাবু,নিরধ বাবু ও খিরধ বাবু।চারু ও নিরধ বাবুর কোন ছেলে-মেয়ে ছিল না।কিন্তু খিরধ বাবুর দুই ছেলে ছিল-চিত্ত বাবু এবং রাধু বাবু।মহিষারঘোপ সহ আশে-পাশের এলাকা নিয়ে ভগবানবাবুর বিশাল জমিদারী ছিল। এই বাড়ি থেকেই তিনি জমিদারী পরিচালনা করতেন। এই বাড়িটি তৈরি করতে ৯ বছর সময় লেগেছিল।

    এখানে মোট বাড়ির সংখ্যা ছিল তিনটি।প্রথমটি বৈঠকখানা, তারপরেই কাচারীঘর এবং একদম ভিতরে অন্দরমহল ছিল। অন্দরমহলের পাশেই একটি জেলখানা রয়েছে। পুকুর রয়েছে দু’টি।একটি বৈঠকখানার বড়বাড়িটির সামনেই ছিল।আরেকটি ভিতরে অন্দরমহলের পিছনদিকে ছিল।অন্দরমহলের পাশেই ছিল রান্না করার জন্যে সুবিশাল এক রান্নাঘর। বৈঠকখানার বড়বাড়িটির সামনে ছিল একটি মন্দির।

    বর্তমান অযত্ন আর অবহেলায় বাড়িটি ঘন গাছপালায় ঢেকে গিয়েছে।ধ্বংসাবশেষ শেওলা পড়া স্যাঁতস্যাঁতে কয়েকটি ইটের প্রাচীর ব্যতীত আর কিছুই এখন নেই। এখানে এখন বড় বড় সাপ এবং অন্যান্য সরীসৃপের বসবাস।

    স্থানীয় কিছু বয়স্ক ব্যক্তিগন তাদের পূর্ব পুরুষ থেকে শুনে আসছে জমিদার বাবুর কিছু অহংকারের কারণে তাদের জমিদারীর পতন হয়।ফলে তাদের সংসারে অভাব নেমে আসে।পরবর্তীতে তারা জমিদারী ছেড়ে দিয়ে একেবারের জন্যে ভারতে চলে যান।বর্তমানে বাড়িটির মালিক ওমল কৃষ্ণ সাহা।

    প্রায় পরিত্যাক্ত এ বাড়িটিকে রক্ষায় কোন উদ্যোগ এখন পর্যন্ত নেওয়া হয়নি। ধুলো-ময়লা আর জংলায় ভরে যাওয়া ইতিহাসের সাক্ষী সাহা বাড়িটিকে রক্ষায় তাই আমাদের মাননীয় সরকার দৃষ্টি দেবেন এবং প্রত্মতাত্ত্বিক এ সম্পদটিকে রক্ষায় তারা এগিয়ে আসবেন – এই আশাবাদ গ্রামবাসীর।

    Facebook Comments

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫
    ১৬১৭১৮১৯২০২১২২
    ২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
    ৩০৩১  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4673