• শিরোনাম

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    কোটালীপাড়ায় মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

    কোটালীপাড়া প্রতিনিধি: | ১৯ জুলাই ২০১৯ | ৭:৩৪ অপরাহ্ণ

    কোটালীপাড়ায় মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

    দীর্ঘ দিন যাবত জমিজমা নিয়ে বিরোধ চলে আসছে ।স্থানীয় ভাবে অনেক বার বসেছেন মিমাংসা করেছে তাতে কোন লাভ হয়নি। জায়গা ছেড়ে দিতে বললে তখন আমাকে মারপিট করে। থানায় অভিযোগ করলে কিছু দিন শান্ত থাকে কয়েক দিন পর আবার আমার পরিবারে লোকদের মারতে আসে।

    শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০ টায় গোপালগঞ্জের কোলীপাড়া উপজেলার রাধাগঞ্জ ইউনিয়নে বহরাবাড়ী গ্রামের হাবিবুর রহমান (৫৫) নিজ বাড়িতে সংবাদ সম্মেল করে কথা গুলো বলেন।

    তিনি আরো বলেন, আমার চাচাতো ভাইয়ের ছেলে শওকত মিয়ার সাথে আমাদের জমিজমা নিয়ে বিরোধ চলে আসছিলো। আমারা একই বংশের লোক বাড়ি জায়গা বন্টন হলে তাদের ঘর আমার জায়গায় পড়ে । আমি তাদের সরিয়ে নিতে বললে আমাকে মারপিট করে । ৩০অক্টোবর২০০৭ এবং ৩ অক্টোবর ২০১৮ সালে আমি কোটালীপাড়া থানায় অভিযোগ করি।

    সাম্প্রতি আমি বাড়িতে ঘর দেয়ার উদ্দেশে ইট আনলে গত ৭জুলাই রাত আমাকে এবং আমার মেয়েকে মারপিট করলে আমরা কোটালীপাড়া হাসপাতালে চিকিৎসা নেই। পরে থানায় মামলা করি ।

    শওকত মিয়া সম্পর্কে আমার আমার ভাতিজা । তার স্ত্রীর ধর্ষনের অভিযোগ এনে আমাকে আসামী করে গত ১০ জুলাই গোপালগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালে আদালতে একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করে। আমি অবসর প্রাপ্ত সেনা সদস্য এই মামলায় দিয়ে সমাজে আমাকে হেয় প্রতিপন্য করেছে।

    বহরাবাড়ী গ্রামের বাসিন্দা আ.জব্বার শেখ(৬৫) এর কাছে জানতে চাইলে তিনি প্রথম আলোকে বলেন,আমারা এই বাড়িতে যারা বসবাস করি সবাই আপনজন। গত ৭ জুলাই রাতে আমি ঘুমিয়ে ছিলাম । রাত সাড়ে ১০টার সময় চিৎকার শুনে ঘুম থেকে উছে বাহিরে আসল দেখি হাবিবুরকে মারপিট করেছে সওকত মিয়া । শুনেছি হাবিবুর নাকি শওকত মিয়ার জানালা দিয়ে তার ঘরে উকি মেরেছে। তবে বাড়ির জায়গা ভাগাভাগি করে শওকতের ঘর হাবিবুরের জায়গায় পড়েছে আর স্থানীয়রা বিচার করে শওকতকে জায়গা দিয়েছে একপাশ থেকে ওই জায়ড়গায় শওকতকে মাটি ভরাট করে দেওয়ার কথা ছিলো এই নিয়ে ওদের মধ্যে একটা বিরোধ ছিলো।

    এবিশয় জানতে চাইলে শওকতের স্ত্রী সুমি বেগম (২৬) প্রথম আলোকে বলেন, ঘটনার রাতে আমি ঘর থেকে বের হয়ে টয়লেটে গেলে আমার চাচা শশুর পেছন থেকে এসে কাপড় দিয়ে মুখ বেঁধে ধর্ষনের চেষ্টা করে। আমি চিৎকার দিলে দৌড়ে পালিয়ে যায়। তাছাড়া থানায় টাকা দিয়ে বিনা কারনে আমার স্বামীকে জেল খাটাচ্ছে হাবিবুর রহমান । ওরা শুধু টাকার গরম দেখায়।

    কোটালীপাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) মো. জাকারিয়া বলেন,হাবিবুর ও শওকতের মধ্যে জমিজমা নিয়ে একটা বিরোধ ছিলো । গত ৭ জুলাই হাবিবুর ও তার মেয়েকে শওকত মারপিট করে হাসপাতালে পাঠিয়েছে। আমাদের কাছে অভিাযোগ করলে আমরা খরব পেয়ে তাকে গ্রেফতার করে জেলে পাঠিয়েছি। এরপর ধর্ষনের অভিযোগ এনে একটা মিথ্যা মামলা দিয়ে তাকে হয়রানি করছে।

    Comments

    comments

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
    ৩১  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী