• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    ‘কোর্ট-কাচারি নিয়ে ফাজলামো নাকি?’

    | ০৫ মে ২০২১ | ৮:২৪ অপরাহ্ণ

    ‘কোর্ট-কাচারি নিয়ে ফাজলামো নাকি?’

    করোনাকালীন লকডাউন চ্যালেঞ্জ করে রিট আবেদন দাখিলের শুনানির জন্য আদালতে উপস্থিত না থাকায় অ্যাডভোকেট ড. ইউনুছ আলী আকন্দকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা (কস্ট) করেছেন হাইকোর্ট। আদালতের সময় নষ্ট করার জন্য তাকে এ জরিমানা করা হয়েছে। আদালত বলেছেন, ‘কোর্ট-কাচারি নিয়ে ফাজলামো নাকি? উনি মামলা করেই মিডিয়ায় বলে দেন মামলা করা হয়েছে। কিন্তু শুনানির দিন উনি আর উপস্থিত থাকেন না। কয়েকদিন পর এই রিটটি কার্যতালিকায় এলো। কিন্তু উনি অনুপস্থিত। তাই তাকে কস্ট দেওয়া হলো ১০ হাজার টাকা।’


    বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সরদার মো. রাশেদ জাহাঙ্গীরের হাইকোর্ট বেঞ্চ বুধবার (০৫ মে) এ আদেশ দিয়েছেন। এ সময় আদালতে উপস্থিত আইনজীবী মোহাম্মদ মিজানুর রহমান জরিমানা কমিয়ে ৫ হাজার টাকা করতে আদালতে মৌখিকভাবে আবেদন জানান। অপরদিকে রাষ্ট্রপক্ষে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিপুল বাগমার ২০ হাজার টাকা জরিমানা করার জন্য মৌখিক আবেদন জানান। আদালত আদেশের আগে ব্যারিস্টার মোস্তাফিজুর রহমান খানের বক্তব্য শোনেন।

    ajkerograbani.com

    জরুরি অবস্থা জারি করা ব্যতিত লকডাউন দেওয়ার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে গত ২৫ এপ্রিল হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন অ্যাডভোকেট ইউনুছ আলী আকন্দ। রিট আবেদনে চলমান লকডাউনের ওপর স্থগিতাদেশ চাওয়া হয়। একইসঙ্গে আর যাতে লকডাউন দেওয়া না হয়, সেজন্য নির্দেশনা চাওয়া হয়। এই রিট আবেদনটি শুনানির জন্য গত ২ মে বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের নেতৃত্বাধীন হাইকোর্ট বেঞ্চের কার্যতালিকায় থাকলেও আদালত রিট আবেদনকারীর আইনজীবীকে কয়েকদফা খুঁজলেও তাকে পাননি। পরে আদালত ওই আইনজীবীকে বলেন, শুনানির সময় আপনাকে পাওয়া গেল না। এবিষয়ে আদেশ ৪ মে। এ অবস্থায় ৪ মে মামলাটি কার্যতালিকার এক নম্বরে থাকলেও ইউনুছ আলী আকন্দ শুনানির জন্য উপস্থিত ছিলেন না। এ কারণে আদালত ‘নট টুডে’ বলে আদেশ দেন। এ অবস্থায় বুধবারের কার্যতালিকার এক নম্বরে ছিল মামলাটি।

    বুধবারও ওই আইনজীবী আদালতে যুক্ত ছিলেন না। আদালত শুনানি জন্য আইনজীবী ইউনুছ আলী আকন্দকে খুঁজলেও তাকে পাননি। এসময় আদালতে ভার্চুয়ালি যুক্ত থাকা আইনজীবী ব্যারিস্টার মোস্তাফিজুর রহমানের বক্তব্য জানতে চান। তার মতামত নেওয়ার পর ইউনুছ আলী আকন্দকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করে আদেশ দেন। এই আদেশের পর যুক্ত থাকা আরেক আইনজীবী মোহাম্মদ মিজানুর রহমান জরিমানা ক্ষমা করে ইউনুছ আলীকে ভবিষ্যতের জন্য সতর্ক করে দেওয়ার পরামর্শ দেন। আদালত ইউনুছ আলী আকন্দের অতীতের কর্মকাণ্ড তুলে ধরলে ওই আইনজীবী জরিমানা কমিয়ে ৫ হাজার টাকা করার অনুরোধ করেন।

    Facebook Comments Box

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4757