• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    গীতিকার সুরকারদের কর্মমুখর বিদায়ী বছর: ২০১৯

    হাবিব মোস্তফা | ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ | ৯:২৯ পূর্বাহ্ণ

    গীতিকার সুরকারদের কর্মমুখর বিদায়ী বছর: ২০১৯

    অডিও অঙ্গনে বিদায়ী ২০১৯ সালটি ছিল কর্ম চঞ্চল সফল একটি বছর।খ্যাতিমান সুরকার গীতিকারদের পাশাপাশি বেশ কয়েকজন সম্ভাবনাময় নতুন গীতিকার, সুরকার বছর জুড়ে কাজ করেছেন সমান তালে।তারা প্রতিষ্ঠিত শিল্পীদের সাথে যেমন কাজ করেছেন তেমনি নবাগত শিল্পীদের কণ্ঠেও উল্লেখযোগ্য সংখ্যক মান সম্মত গান উপহার দিয়েছেন।


    হালের ব্যস্ততম ও সফল সুরকার নাজির মাহমুদ স্টারদের নিয়ে কাজ করেছেন, তাদের কণ্ঠে শ্রোতাপ্রিয় গান উপহার দিয়েছেন।তার সুরে আহমেদ রিজভীর কথায় ন্যান্সির কণ্ঠে জানিনা কোন কারণে, মেহেদী হাসান লিমনের কথায় আসিফ কর্ণিয়ার কণ্ঠে তোমার হাসি, শরীফ আল দ্বীনের কথায় ইমরানের কণ্ঠে শুধু তোমায় ঘিরে, মিনারের কণ্ঠে একটু ঘর ছাড়া, গানগুলোতে শ্রোতারা নাজির মাহমুদের সুরলহরী খুঁজে পেয়েছে।সুর করার পাশাপাশি শিলার সাথে নিজের কণ্ঠে তুমি আসবে বলে গানটিতে নাজির মাহমুদের স্বতন্ত্র কণ্ঠ আবিস্কার করেছে শ্রোতারা।

    ajkerograbani.com

    সুরকার, সঙ্গীত পরিচালক হাবিব ওয়াহিদ নবাগত প্রতিভাবান গীতিকারদের বাণীতে এ বছর উল্লেখযোগ্য সংখ্যক গান উপহার দিয়েছেন। তার মধ্যে নিজের কণ্ঠে সুহৃদ সুফিয়ান কথায় পাঞ্জা, মনের কিনারায়, অমিতা কর্মকার কথায় আবার কোনদিন, রাতিম মীর’র কথায় আলিঙ্গনে, ফাউজিয়া সুলতানা পলি’র কথায় ডুবে যাই, ইলিয়াস মোল্লা- তুমি যে আমার ঠিকানা, পড়শী’র কণ্ঠে আবাহন শিরোনামের গানগুলো উল্লেখযোগ্য।

    কিংবদন্তী কণ্ঠশিল্পী রুনা লায়লার সুরকার পরিচয় এ বছরটিতে ছিল অনন্য সংযোজন।কবির বকুলের কথায় নিজের সুর ও কণ্ঠে ফেরাতে পারিনি, আজ এত দিন পর, মনিরুজ্জামান মনির’র কথায় আদনান সামীর সাথে দ্বৈতকণ্ঠে থাকো যতই তুমি চোখেরই আড়ালে, আশা ভোসলের কণ্ঠে চলে যাওয়া ঢেউ শিরোনামের গানগুলোতে রুনা লায়লার ধ্রুপদী সুরের পরিচয় পেয়েছে শ্রোতারা।

    প্রিন্স মাহমুদ কাজ করেছেন প্রিন্সের মতই। তার কথা ও সুরে ইমরানের কন্ঠে ভীষণভাবে তোকে, বরষা, ন্যান্সির কণ্ঠে কি করে তোমায়, কোনালের কণ্ঠে ভুল, মিনারের কণ্ঠে বিশ্বাস, মাহাদী ও এলিটার কণ্ঠে কার কাছে যাই এবং সাইদা তানির কন্ঠে কাহার গানে শ্রোতাদের ভরসা অটুট ছিল।

    সুরকার অমিত কর বেশ কিছু গান উপহার দিয়েছেন। তার সুরে প্রসেনজিৎ মন্ডল’র কথায় ঐশীর কণ্ঠে সত্যি করে বল, বেঈমান, পীরিতের রাধা, ইমন খানের কণ্ঠে কষ্ট শিরোনামের গানগুলো ব্যবসাসফল ছিল।পাশাপাশি অমিত কর’র সুরে ইশতিয়াক রূপুর কথায় পান্থ কানাই’র কণ্ঠে গেয়েছেন অন্তর ছারখার, মোহাম্মদ হোসাইন এর কথায় স্বরলীপির কণ্ঠে আমি রাত জাগি, তাপস চৌধুরী’র কথায় শাওন গানওয়ালা’র কণ্ঠে ইচ্ছে এবং অমিত করের নিজের কণ্ঠে আমার বুকে আগুন জ্বেলে গানেও শ্রোতারা সুরের বৈচিত্র পেয়েছেন।

    নন্দিত গীতিকার দেলোয়ার আরজুদা শরফ তার দরদী বাণীর গান দিয়ে শ্রোতাদের মন জয় করেছেন।ফজলুর রহমান বাবুর কণ্ঠে চান্দের আয়না(সুর: অভি আকাশ),কিশোর পলাশের কণ্ঠে ঘরের বাতি(সুর- অভি আকাশ), নাজুর কণ্ঠে চুপি চুপি এই মন(সুর-এস পুলক)গান গুলো তার প্রকৃষ্ট উদাহরণ।

    অনুরূপ আইচের কথায় জেকে মজলিসের সুরে দোষ দেব না, শাহ আলম সরকারের কথা ও সুরে দিলো না দিলো না, গাজী মাজহারুল আনোয়ারের কথায় আলাউদ্দিন আলীর সুরে তুমি আরেকবার আসিয়া শিরোনামের গানে সুফি ফোক গায়িকা সায়রা রেজার ব্যতিক্রমী কণ্ঠ শ্রোতারা উপভোগ করেছে বছর জুড়ে।

    গীতিকার জুলফিকার রাসেলের পরিণত বাণী গীত হয়েছে বাপ্পা মজুমদারের সুর ও কণ্ঠে রাণী তোমার পা ছুঁয় না মাটি, বাপ্পা ও শম্পা রেজার কন্ঠে এই নদী আমার, জয়ীতার কন্ঠে ভালো থেকো(সুর- নচিকেতা)শিরোনামের গানগুলোতে।

    তরুন গীতিকার সুরকারগণ ছিলেন সমান ব্যস্ত।তাদের মধ্যে হাবিব মোস্তফা ও এডি আকাইদ ছিলেন সবচেয়ে ব্যস্ত। এডি আকাইদ’র কথা ও সুরে এফ এ সুমনের কণ্ঠে সোনার ময়না, কাজী শুভ’র কণ্ঠে দুই দিনের পীরিতি, রাজু মন্ডলের কণ্ঠে গুরু গঞ্জে যাবো, কামরুজ্জামান রাব্বীর কণ্ঠে পার কর দয়াল অন্যতম।

    হাবিব মোস্তফার সুরে এ বছর বারোটি গান প্রকাশিত হয়েছে।এর মধ্যে রিংকুর কণ্ঠে জিকির (কথা:শামছ আরেফিন), মানব সেবা (কথা-এসএ আনওয়ারী), আমিরুল মোমিনীন মানিকের কণ্ঠে মুখোশ মানুষ(কথা: জাকির আবু জাফর), রঙ্গন হৃদ্য’র কণ্ঠে প্রেমের তুলি(কথা: গোলাইছ আহমেদ), পরানের কণ্ঠে পথশিশু(ইমতিয়াজ মেহেদী হাসান), আবিদ আজমের কণ্ঠে আমি মুসলমান বড়ই ভাগ্যবান(কথা: কাজী বর্ণাঢ্য), সুজন চৌধুরীর কণ্ঠে নিঠুর দরদিয়া, মিথ্যে প্রণয়(কথা: হাবিব মোস্তফা), শামীম আশিকের কণ্ঠে মায়ার খেলাঘর(কথা: জাকির আবু জাফর), রাজু মন্ডলের কণ্ঠে বন্দেগি(কথা: মহিউদ্দিন মহি), শাহীন শাওনের কণ্ঠে কেশবতী কণ্যা (কথা: হাবিব মোস্তফা) এবং তাওহীদুল ইসলামের কণ্ঠে ফেরার গান (কথা:আলাউদ্দিন আদর)। খ্যাতিমান সুরকার নাজির মাহমুদের সুরে হাবিব মোস্তফা ও শিল্পী বিশ্বাসের কণ্ঠে প্রকাশিত ‘মন পাঁজরে’ শিরোনামের গানটি শ্রোতাদের প্রশংসা কুড়িয়েছে।
    খ্যাতিমান সুরকার বাপ্পা মজুমদার তার কাজে স্বকীয়তা বজায় রেখেছেন। তার সুর ও কণ্ঠে ঘুম ভেঙ্গে যায়, ফেরাও তাকে এবং সোনা মহাপত্রা’র সাথে তার দ্বৈতকণ্ঠের বন্ধুরে গানটি সঙ্গীত প্রেমীদের নজর কেড়েছে।পাশাপাশি বাপ্পা মজুমদার সুরে সুস্মিতার আনিসের কণ্ঠে মেঘের চিঠি(কথা: শাহান কবন্ধ) গানটিতে শ্রোতারা ধ্রুপদী সুরের আবহ খুঁজে পেয়েছেন।

    গীতিকার রবিউল ইসলাম জীবন বেশ কিছু মান সম্মত বানী নির্ভর শ্রোতাপ্রিয় গান উপহার দিয়েছেন।তার মধ্যে এফ এ সুমনের সুর ও কণ্ঠে সজনী মন বুঝনি, ইমরানের সুর ও কণ্ঠে কেন এত তোকে চাই, নাজির মাহমুদের সুরে মাহতিম সাকিবের কণ্ঠে যদি, তানজীব সারোয়ারের সুর ও কণ্ঠে তুই ছাড়া, কাজী শুভ’র সুরে কাজী শুভ ও মৌ এর কণ্ঠে ফাঁকি অন্যতম।

    সব্যসাচী লুৎফর হাসান নিজের কথা, সুর ও কণ্ঠে বেশ কিছু গান উপহার দিয়েছেন।তার মধ্যে আখরাতরুজ্জামান আজাদের কথায় নিজের সুরে ক্যামনে তুমি পারো, সেজুল হোসেনের কথায় নিজের সুরে ইস্কাটনের চিঠি, নিজের কথা ও সুরে কার বালিশে ঘুমা্ও, বাংলাদেশের দুপুর শিরোনামের গানে বহুমাত্রিক লুৎফর হাসানের কণ্ঠ চিনে নিয়েছে শ্রোতারা।লুৎফর হাসানের কথা ও সুরে ঈশিতার কণ্ঠে আমার অভিমান গানটিও সুধী শ্রোতাদের নজর কেড়েছে।

    পরিচ্ছন্ন গীতিকার নীহার আহমেদ প্রতিষ্ঠিত ও নবাগতদের নিয়ে সমানতালে কাজ করেছেন।তার মধ্যে আসিফ আকবর’র কণ্ঠে হাহাকার, অগোছালো, মিনারের কণ্ঠে নিরুদ্দেশ, আরমান আলিফের কণ্ঠে পাগলামী, বেলাল খানের কণ্ঠে মনের আলো, রোজ সকালে, এই তুমি সেই তুমি, ইমন খানের কণ্ঠে ধ্বংস, জ্বালার মালা, দারা খান’র কণ্ঠে হয় তো ছিলে আপন তুমি, সানি আজাদের কণ্ঠে অনুভব, সামিউল সালিম এর কণ্ঠে ডুবে রই, হাসান শরীফ’র কণ্ঠে অগ্নিগিরি, জি.এম.লিটন’র কণ্ঠে আদর কইরা এবং মৌ এর কণ্ঠে অল্প অল্প করে গানগুলো তার পরিচ্ছন্ন বাণীর স্বকীয়তা বহন করে।

    গীতিকার, সুরকার, কণ্ঠশিল্পী আমিরুল মোমেনীন মানিক নিজের কথা ও সুরে জাফরের সাথে গেয়েছেন ‘সুদিন’ শিরোনামের দ্বৈত এক জীবনমুখী গান, গেয়েছেন কোটি আবরার জাগো শিরোনামের অপর এক প্রতিবাদী গান।আরমান আলিফের কণ্ঠে আমিরুল মোমেনীন মানিকের কথা ও সুরে গীত হয়েছে আল্লাহ নামের মধুর সুরে শিরোনামের একটি মৌলিক ইসলামী গান।

    অল্প কাজে নিজের স্বাতন্ত্র বজায় রাখা সুরকারদের মধ্যে মুরাদ নুর’র নাম অগ্রগণ্য।তার সুরে মাসুদ পথিকের কথায় ঐশীর কণ্ঠে স্টেশন-2 এবং লিমন আহমেদের কথায় ফকির আলমগীরের কণ্ঠে ভালবাসা তুমি গান দুটি তার পরিচয় দিয়েছে।

    গীতিকার সোমেশ্বর অলির ঋদ্ধ বাণীতে বেশ কিছু গান উপহার পেয়েছেন শ্রোতারা।তার মধ্যে সোমেশ্বর অলির কথায় ও লুৎফর হাসান’র সুরে পথিক নবীর কণ্ঠে জোড়া শালিক, সালমার কণ্ঠে ভাঙ্গা গলুই, লুৎফর হাসানের কণ্ঠে আয়না দিয়ে ঘর বেঁধেছি, বেলাল খানের সুর ও কণ্ঠে দুঃখ নেই, ইমরানের সুর ও কণ্ঠে প্রেমের কারিগর, প্রতীক হাসানের কণ্ঠে লাল মোরগের ঝুঁটি, মাহতিম সাকিব’র কণ্ঠে রক্তগোলাপ, রেহান রসুলের কণ্ঠে ভালো থাকবো, ইভার কণ্ঠে প্রিয়, এফ এ সুমনের কণ্ঠে ফতুর, ইভানের কণ্ঠে এখন তুমি অন্যতম।

    বিনোদন সাংবাদিক ও গীতিকার এন আই বুলবুল এফ এ সুমনের সুর ও কণ্ঠে প্রাণের সই, পরান কান্দে, রোহান রাজ’র সুরে রিংকুর কণ্ঠে দূরে থাকিস তবু শিরোনামের গানগুলো উপহার দিয়েছেন।অভি আকাশ’র সুরে সুদীপ কুমার দ্বীপ’র কথায় বুঝলনারে কেউ এবং নাইম তালুকদার’র কথায় থাকব কি করে এবং সৈয়দ রহমান’র কথায় খুব আদরে শিরোনামের প্রেমের গানগুলোতে চির বিরহী এফ এ সুমনকে খুঁজে পায় শ্রোতারা।

    গীতিকার, সুরকার, সঙ্গীত পরিচালক আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল পর্দার ওপারে গেলেন, কাঁদল কোটি শ্রোতা, অজানা পথের পথিক হলেন কণ্ঠশিল্পী, সুরকার সুবীর নন্দী, সাথী হলেন প্রখ্যাত নজরুল সঙ্গীত শিল্পী ও সুরকার খালিদ হোসেন। অশ্রু মুছে যখন কিছুটা শান্ত হল মন তখন বিনা মেঘে বজ্রপাত হয়ে আসল তরুন শিল্পী, সুরকার, সঙ্গীত পরিচালক পৃথ্বীরাজের মৃত্যু, আর বছর শেষে বহুমাত্রিক বাসুদেব ঘোষের মৃত্যু বছরটাকে বিষাদে ঢেকে দিল।

    সব মিলিয়ে গীতিকার সুরকারগণ অত্যন্ত ব্যস্ত সময় পার করেছেন পুরো বছর জুড়ে, যার ফলশ্রুতিতে অডিও বাজার বিরাজমান মন্দাভাব কেটে গেছে অনেকটাই।এই ধারাবাহিকতা নতুন বছরে অব্যাহত থাকলে অচিরেই অডিও’র হারানো গৌরব ফিরে আসবে এই আশাবাদ সংশ্লিষ্ট সকলের।

    গবেষণা:
    হাবিব মোস্তফা
    গীতিকার, সুরকার, সঙ্গীত সমালোচক
    শান্তিনগর, ঢাকা।

    Facebook Comments Box

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
    ১০১১১২১৩১৪
    ১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
    ২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
    ২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4757