রবিবার ১লা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৭ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

গৃহবধূকে বিবস্ত্র করে নির্যাতন , আটক-২

সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি:   |   বুধবার, ১৪ জুলাই ২০২১ | প্রিন্ট  

গৃহবধূকে বিবস্ত্র করে নির্যাতন , আটক-২

নীলফামারীর সৈয়দপুরে মল্লিকা বেগম (৩২) নামে এক গৃহবধূকে বিবস্ত্র করে ও শ্লীলতাহানির করার ঘটনার ৫ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও ২-৩ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়। প্রধান আসামী নূর ইসলাম (২২) ও নূর জামান (২৩) নামে দুইজন নির্যাতনকারীকে আটক করেছে থানা পুলিশ।

রবিবার (১২ জুলাই) অসহায় নির্যাতিত গৃহবধূর পরিবারের পক্ষে থানায় মামলার পরই সন্ধায় পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করে।


আটককৃতরা হলেন,নীলফামারী জেলার সৈয়দপুর উপজেলার চৌমুহনী গ্রামের মৃত.নজির উদ্দিন মালুর ছেলে নূর ইসলাম ও নূর জামান।

ভুক্তভোগী পরিবার ও থানার এজাহার সূূত্রে জানা যায়,গত ৯ জুলাই শুক্রবার বিকেলে গৃহবধূ মল্লিকা বেগম তার বসতবাড়ির সামনে তিস্তা ব্যারেজ ক্যানেলের সরকারি জায়গায় দীর্ঘ ৩ বছর যাবৎ বাঁশের তৈরি মাচা (জাঙ্গি)তে জীবিকানির্বাহের জন্য বিভিন্ন ধরণের শাকসবজি চাষ করে আসছিলেন। শাকসবজি চাষআবাদকৃত ওই বাঁশের তৈরি মাচা(জাঙ্গি)টি কয়েকদিনের বৃষ্টির ফলে নষ্ট হয়ে পড়লে তা গত শুক্রবার নির্যাতত গৃহবধূ মল্লিকা বেগম তা পূরণরায় নতুন করে তৈরি করতে যান।


এসময়ে আটককৃত আসামীরাসহ আসামী মুনির উদ্দিন ওরফে মংলু (৪৮) তার স্ত্রী মোছাঃ নূর নাহার (৪০),মোহাম্মদ আলীসহ অজ্ঞাত আরও ২-৩ জন জায়গাটি দখলের উদ্দেশে লাঠিসোটা নিয়ে গৃহবধূ মল্লিকাকে বাঁধা দিয়ে লাঠিসোটা দিয়ে এলোপাথাড়ি বেধড়ক মারধরসহ মাথার চুল ধরে ছিঁচরিয়ে তার পড়নের কাপড়-চোপড় ছিঁড়ে ফেলে বিবস্ত্র করে তাকে।

এতেও ক্ষান্ত না হয়ে এক পর্যায়ে প্রধান আসামী নূর ইসলাম তাকে একা পেয়ে বুকে লাথিমেরে নদীর পানিতে ফেলে শ্বাসরোধ করে পানিতে ডুবিয়ে মারার চেষ্টা করলে। গৃহবধূ মল্লিকা জীবন বাঁচাতে কৌশলে সজোরে চিৎকার করতে থাকলে তার চিৎকার শুনে মল্লিকার দেবর ফারুক ভাবীকে বাঁচাতে এগিয়ে গেলে তাকেও তারা লাঠিসোটা দিয়ে বেধড়ক মারধর করে গুরুতর আহত করে মাটিতে ফেলে দেয়।

তাদের আত্মচিৎকারে ওই গ্রামের লোকজন ছুটে এসে আসামীদের হাত থেকে মল্লিকা বেগমকে ছিনিয়ে রক্ষা করে এবং তারা প্রভাবশালী হওয়াই ঘটনাস্থল থেকে যাওয়ার সময়ে অসহায় নির্যাতিতা গৃহবধূক মল্লিকাকে গ্রামবাসীর সামনেই প্রকাশ্যে জনগণের প্রাণ নাশের হুমকিসহ তাকে অপহরণ করে চিরতরে গুম করে দেয়ার হুমকি প্রদান করে তারা চলে যায়। পরে গ্রামবাসী তাদের গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে ভর্তি করাই।

আরও জানা যায় আসামীগণরা স্থানীয় প্রভাবশালী হওয়াই তাদের ভয়ে কেউ মুখ রাজি হয়না এমনকি অসহায় নির্যাতিতা গৃহবধু মল্লিবকার সাথে এতো বড় ঘটনার ঘটার পড়েও সে থানায় যেতে ভয় করে নীরব ছিলেন কেননা তার স্বামী জীবিকার জন্য দেশের বিভিন্ন স্থানে কাজের জন্য বাহিরে থাকেন আর মল্লিকা সে একাই বাড়িতে বসবাস করাই তাদের ভয়ে নির্যাতন সজ্জ করে ভয়েই ছিলেন।

এতো বড় আলোচিত ঘটনার বিষয়টি একটি গণমাধ্যমের মাধ্যমে জাতীয় দৈনিক সূর্যোদয় পত্রিকায় সম্পাদক এর দৃষ্টিগোচর হলে তিনি নীলফামারী জেলা পুলিশ সুপারকে মুঠোফোনে কল করে গৃহবধূর বিবস্ত্র করে নির্যাতন চালানোর ঘটনার বিষয়টি জানিয়ে তদন্ত সাপেক্ষে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বললে ঘটনাটি শোনা মাত্র তৎক্ষণাৎ জেলা পুলিশ সুপারের সৈয়দপুর থানাকে নির্দেশ দিলে সৈয়দপুর থানা পুলিশ চৌহমুনী গ্রামের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে বিবস্ত্র করে গৃহবধূকে নির্যাতনের ঘটনার সত্যতা পেয়ে নির্যাতিতা গৃহবধূর পাশে দৈনিক সূর্যোদয়ের মতো থানা পুলিশও তার পাশে দাঁড়াই এবং থানায় একটি এজাহার নিয়েই পুলিশ অভিযান চালিয়ে প্রধান আসামী নূর ইসলাম ও তার নূর জামানকে আটক করতে সক্ষম হয়।

 

Facebook Comments Box

Posted ১১:২২ অপরাহ্ণ | বুধবার, ১৪ জুলাই ২০২১

ajkerograbani.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১