• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    গোপালগঞ্জে এসএসসির ফরম পুরনে অতিরিক্ত ফি আদায়

    গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি: | ১৫ নভেম্বর ২০১৭ | ৮:৫৬ অপরাহ্ণ

    গোপালগঞ্জে এসএসসির ফরম পুরনে অতিরিক্ত ফি আদায়

    গোপালগঞ্জে জলিরপাড় জে.কে.এম.বি মল্লিক উচ্চ বিদ্যালয়ে এসএসসির ফরম পুরনে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। বোর্ড নির্ধারিত ফির চাইতে ২-৩ গুন অর্থ আদায় করা হচ্ছে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে।
    জেলার মুকসুদপুর উপজেলার জলিরপাড় জে.কে.এম.বি মল্লিক উচ্চ বিদ্যালয়ে ফরম পুরনে ৩ হাজার টাকা থেকে ৪ হজার ২ শ’ টাকা পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে টাকা আদায় করা হচ্ছে। এর বিপরিতে কোন রশিদ সরবরাহ করা হচ্ছে না। নির্বাচনী পরীক্ষায় ১ ও ২ বিষয়ে ফেল করা শিক্ষার্থীদের বিশেষ বিবেচনায় এসএসসির ফরম পুরনের সুযোগ দেয়া হয়েছে। এদের কাছ থেকে ৪ হাজার থেকে ৪ হাজার ২ শ’ টাকা আদায় করা হচ্ছে। এছাড়া সব বিষয়ে পাশ করা শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ৩ হাজার টাকা নেয়া হচ্ছে।
    এসএসসির ফরম পুরনে বোর্ড কর্তৃপক্ষ ১ হাজার ৫ শ’ ৫০ টাকা নির্ধারন করেছে। কিন্তু ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক নির্মল সাহা বোর্ডের নির্দেশনা অমান্য করে ফরম পুরনে ১ হাজার ৫ শ’ ৫০ টাকার স্থলে ৩ হাজার থেকে ৪ হাজার ২ শ’ টাকা আদায় করছেন। অতিরিক্ত টাকা আদায় করে তিনি রশিদ দিচ্ছেন না বলেও অভিযোগ রয়েছে।
    স্কুলের অফিস সূত্রে জানাগেছে, এসএসসি পরীক্ষায় নির্বাচনী পরীক্ষায় এ স্কুলের ৩২৫ জন শিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে। এর মধ্যে সব বিষয়ে মাত্র ৬০ জন পাশ করে। ১ ও ২ বিষয়ে ফেল করে ১৭৪ জন। বিশেষ বিবেচনায় ১৭৪ জনকে ফরম পুরনের সুযোগ দেয়া হয়েছে।
    স্কুলের শিক্ষার্থী ঝর্না হালদারের পিতা বানিয়ারচর গ্রামের সুভাষ হালদার বলেন, আমার মেয়ে মানবিক বিভাগ থেকে ৪ হাজার টাকা দিয়ে ফরম পুরন করেছে। টাকা কম দেয়ার জন্য প্রধান শিক্ষককে অনেক অনুরোধ করেছি। কিন্তু তিনি শোনেননি। কয়েকদিন ঘুরা ফেরার পর বাধ্য হয়ে ৪ হাজার টাকা দিয়ে ফরম পুরন করেছি। কিন্ত স্কুল থেকে কোন রশিদ দেয়নি। বলেছে পরে দেবে।
    শিক্ষার্থী উলফাত শেখ বলেন, ৪ হাজার টাকা দিয়ে মানবিক বিভাগে ফরম পুরন করেছি। বিজ্ঞান বিভাগে ৪ হাজার ২ শ’ টাকা নিচ্ছে। সব বিষেয়ে পাশ করাদের কাছ থেকে ৩ হাজার টাকা আদায় করা হচ্ছে। বোর্ডের নির্দেশনা অমান্য করা হচ্ছে। এটি দেখার কেউ নেই।
    নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্কুলের শিক্ষক ও কর্মচারীরা জানিয়েছেন, এখানে বোর্ড নির্ধারিত ফির মাধ্যমে ফরম পুরন করার সুযোগ পাচ্ছে না শিক্ষার্থীরা। ফরম পুরনে দুই থেকে তিন গুন টাকা বেশি আদায় করা হচ্ছে। ফরম পুরন থেকে আদায়কৃত অতিরিক্ত টাকা ভুয়া বিল ভাউচার দিয়ে প্রধান শিক্ষক আত্মসাৎ করছেন । আগের বছর গুলোতেও এ ধরনের ঘটনা প্রধান শিক্ষক ঘটিয়েছেন। তার কিছুই হয়নি। এ কারণে এ বছরও তিনি অত্যন্ত সহসিকতার সাথে এ কাজ করছেন।
    অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক নির্মল সাহা অতিরিক্ত টাকা আদায়ের কথা স্বীকার করে বলেন, ৩ হাজার থেকে ৪ হাজার ২ শ’ টাকা ফরম পুরনে স্কুল থেকে নির্ধারন করা হয়েছে। কিন্তু ফরম পুরনের সময় শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন অজুহাতে টাকা কম দিচ্ছে। ফরম পুরন শেষে দেখা যাবে গড়ে প্রত্যেক শিক্ষার্থীর কাছ থেকে ২ হাজার টাকা আদায় হয়েছে। অতিরিক্ত টাকা দিয়ে স্কুলে এসএসসির পরীক্ষার্থীদের কোচিং এর ব্যবস্থা করা হবে। এখানে কোন বছরই ভূয়া ভাউচার দিয়ে টাকা লুটপাট হয়নি। ফরম পুরনের রশিদ পরে দেয়া হবে বলে তিনি জানান।
    জেলা শিক্ষা অফিসার কল্যাণব্রত ঘোষ বলেন, আমি এসএসসির ফরন পূরনের পূর্বেই উপজেলা শিক্ষা অফিসারদের জানিয়ে দেই, বোর্ড নির্ধারিত ফির চেয়ে স্কুল কর্তৃপক্ষ যেন একটি টাকাও বেশী নিতে না পারে । তারপরও যখন অভিযোগ এসেছে খোজ নিয়ে দোষি ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


    Facebook Comments


    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    webnewsdesign.com

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
    ৩১  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4669