• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    গ্রামীণফোনের টাওয়ারে চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণা

    অগ্রবাণী ডেস্ক | ০৬ জুন ২০১৭ | ১১:৪৮ অপরাহ্ণ

    গ্রামীণফোনের টাওয়ারে চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণা

    ডাকযোগে বিভিন্ন জনপ্রতিনিধিদের কাছে চিঠিটি পাঠানো হয়। বলা হয়, ‘গ্রামীণ টাওয়ারে’র জন্য দুজন ‘সিকিউরিটি গার্ড’ ও দুজন ‘সুপারভাইজার’ নিতে ইচ্ছুক ‘গ্রামীণ সার্ভিস বাংলাদেশ লিমিটেড’।


    চিঠিতে সিলও দেওয়া আছে ওই প্রতিষ্ঠানের। সিলে ব্যবহার করা হয়েছে বেসরকারি টেলিযোগাযোগ প্রতিষ্ঠান গ্রামীণফোনের লোগো।

    ajkerograbani.com

    চিঠি পেয়ে যাঁরাই আবেদন করতে গিয়েছেন চাকরির জন্য, তাঁদের প্রত্যেকের কাছ থেকে ওই প্রতিষ্ঠান দুই হাজার থেকে আড়াই হাজার টাকা করে রেখেছে। কিন্তু চাকরি পাওয়া তো দূরের কথা, কোনো খোঁজই নেওয়া হয়নি তাঁদের।

    সাতক্ষীরা জেলায় এ ঘটনা ঘটেছে। চাকরি দেওয়ার নাম করে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে ‘গ্রামীণ সার্ভিস বাংলাদেশ লিমিটেড’ নামের ওই প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে।

    ওই প্রতিষ্ঠানের এক কর্মকর্তা দাবি করেছেন, গ্রামীণফোনের সঙ্গে তাঁর প্রতিষ্ঠানের সম্পর্ক আছে। তবে গ্রামীণফোন জানিয়েছে, এসব প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে গ্রামীণফোনের কোনো ধরনের কোনো সম্পর্ক নেই।

    সাতক্ষীরা জেলার কোথাও চক্রটির কোনো সাইনবোর্ড বা কার্যালয়ের হদিস মেলেনি। তাদের সব যোগাযোগ ডাক বিভাগের মাধ্যমে চিঠি পাঠিয়ে।

    জানা যায়, চক্রটি তিনদিনের প্রশিক্ষণের নামে সুপারভাইজার ও সিকিউরিটি গার্ড হিসেবে চাকরিপ্রত্যাশীদের কাছ থেকে আড়াই হাজার ও দুই হাজার টাকা করে আদায় করে এখন চাকরি দিতে টালবাহানা করছে। ওই চক্র সাতক্ষীরার সব উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ের জনপ্রতিনিধিদের কাছে ডাকযোগে ওই চিঠি পাঠিয়েছে।

    একাধিক জনপ্রতিনিধি জানিয়েছেন, তাঁরা বিষয়টিকে নেতিবাচক না ভেবে চিঠি অনুযায়ী চারজন করে বেকার যুবককে সেখানে পাঠিয়েছেন। তাঁদের সবার কাছ থেকে টাকা নেওয়া হলেও চাকরির কোনো খোঁজ নেই বলে জানান তাঁরা। ভুক্তভোগীরা বলেন, এরই মধ্যে বিষয়টি অভিযোগ আকারে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসন এবং পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগকে জানানো হয়েছে।

    জনপ্রতিনিধিদের কাছে পাঠানো চিঠিতে স্বপন সরকার নামের এক ব্যক্তির স্বাক্ষর আছে। তাঁর পদবি দেওয়া ম্যানেজার। একটি মোবাইল নম্বরও আছে। ওই নম্বরে যোগাযোগ করা হলে স্বপন সরকার বলেন, ‘যখন প্রয়োজন হবে তখন তাদের চাকরিতে ডেকে নেওয়া হবে।’

    এখন পর্যন্ত কতজনকে প্রশিক্ষণ দিয়েছেন এবং তাঁদের কাছ থেকে কত টাকা নিয়েছেন জানতে চাইলে স্বপন সরকার কিছু বলেননি। পরে স্বপন সরকার বলেন, শ তিনেক তো হবেই।’

    স্বপন দাবি করেন, তাঁর ‘গ্রামীণ সার্ভিস’ গ্রামীণফোনেরই অঙ্গ।

    গ্রামীণ সার্ভিসের পাঠানো একটি চিঠির কপি এই প্রতিনিধির হাতে রয়েছে। চিঠিতে নিয়োগ বিভাগের কার্যালয় হিসেবে হোল্ডিং নম্বর ৭৩/৩, ঢাকার আরিচা রোডসংলগ্ন, সাভার, ঢাকা ১৩৪০ উল্লেখ করা হয়েছে।

    এতে চাকরির বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে উল্লেখ করে জনপ্রতিনিধিদের বলা হয়েছে, ‘আপনারা চারজন যুবকের নাম সুপারিশ করে পাঠাতে পারবেন। যাঁদের পাঠাবেন তাঁরা যেন তাঁদের প্রয়োজনীয় ব্যবহার্য জিনিসপত্র নিয়ে আসেন। একই সাথে জাতীয় পরিচয়পত্র, শিক্ষাগত সনদপত্র, তিন কপি ছবি, চেয়ারম্যানের সুপারিশ নিয়ে আসতে হবে।’

    চিঠিতে বলা হয়, ‘সম্মানিত জনপ্রতিনিধি হিসাবে আপনি যদি চারজনের নাম যথাযথভাবে পাঠাতে পারেন, তাহলে আপনাকে দুই হাজার টাকা সম্মানী দেওয়া হবে।’

    সিকিউরিটি গার্ডের ক্ষেত্রে ১০ হাজার থেকে ১২ হাজার টাকা এবং সুপারভাইজারের ক্ষেত্রে ১৫ হাজার টাকা বেতন ও অন্যান্য সুবিধাদি দেওয়ার কথা উল্লেখ রয়েছে চিঠিতে।

    এরই মধ্যে সাতক্ষীরার সাতটি উপজেলা, দুটি পৌরসভা এবং ৭৮টি ইউনিয়নের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরা জানিয়েছেন, তারা চিঠি পেয়েছেন। তাঁদের মধ্যে অনেকেই চিঠিতে সাড়া দিয়ে লোক পাঠিয়েছেন ওই প্রতিষ্ঠানে।

    আশাশুনি উপজেলার বুধহাটা ইউনিয়ন পরিষদের এক নারী জনপ্রতিনিধি জানান, তিনি চিঠি পেয়ে তাঁর এলাকার চার যুবককে পাঠিয়েছিলেন। প্রতারক চক্রটি তাঁদের কাছ থেকে ১০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়ে কিছু কাগজপত্র দিয়ে বাড়ি পাঠিয়েছে। এখন পর্যন্ত তাঁদের চাকরির কোনো খোঁজ নেই। তিনি বলেন, ‘মান-সম্মানের ভয়ে আমি শেষ পর্যন্ত তাদের টাকা নিজেই পরিশোধ করে দিয়েছি।’

    একই অভিযোগ করেছেন সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ব্রহ্মরাজপুর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য রেজাউল করিম মিঠু। তিনি জানান, তাঁর কাছে একটি চিঠি এসেছে। চিঠি হাতে পেয়ে তিনি চার যুবককে পাঠানোর উদ্যোগ নিয়েও থেমে গেছেন। তিনি জানতে পেরেছেন এটি একটি ‘হায় হায় কোম্পানি’। গ্রামীণফোনের নাম-পরিচয় ও লোগো ব্যবহার করে তারা প্রতারণায় নেমেছে।

    সাতক্ষীরা পৌরসভার কয়েকজন কাউন্সিলর জানান, তাঁরাও এমন চিঠি পেয়ে বেশ পুলকিত হয়ে ওঠেন। এলাকার ছেলেদের চাকরির সুযোগ করে দিতে পারছেন এমন আশায় তাঁরাও বেকার যুবকদের পাঠানোর উদ্যোগ নেন। তবে প্রতারণার কথা শুনে তাঁরা থমকে গেছেন।
    গ্রামীণফোনের সঙ্গে কোনো সম্পর্ক নেই
    চিঠিটি নিয়ে গ্রামীণফোনের সঙ্গে এনটিভি অনলাইনের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হয়। গ্রামীণফোনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ‘গ্রামীণ সার্ভিস’ নামে কোনো প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে তাদের কোনো সম্পর্ক বা যোগাযোগ নেই।

    এ ব্যাপারে গ্রামীণফোনের হেড অব এক্সটারনাল কমিউনিকেশন সৈয়দ তালাত কামাল এনটিভি অনলাইনকে বলেন, ‘গ্রামীণফোনের চাকরির বিজ্ঞাপন সাধারণত প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব ওয়েবসাইট এবং কিছু সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে দেওয়া হয়। গ্রামীণফোন লিমিটেডের নাম ব্যবহার করে নানা রকম প্রতিষ্ঠানের নামে চাকরির প্রলোভনে প্রলুব্ধ না হতে সবাইকে অনুরোধ করছি।’

    Facebook Comments Box

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4757