• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    জঙ্গি সংগঠন হাক্কানি নেটওয়ার্কের ইতিহাস

    অনলাইন ডেস্ক | ২৩ অক্টোবর ২০১৭ | ৭:৫৪ অপরাহ্ণ

    জঙ্গি সংগঠন হাক্কানি নেটওয়ার্কের ইতিহাস

    সম্প্রতি আফগান-পাকিস্তান সীমান্তে মার্কিন ড্রোন হামলায় অন্তত ২৬ জন মারা গেছে, যাদের মধ্যে জঙ্গি সংগঠন হাক্কানি নেটওয়ার্কের সদস্যও রয়েছে৷ কেন এ সংগঠনকে এ অঞ্চলের অন্যতম ভীতিকর জঙ্গি সংগঠন মনে করা হয়?


    সোভিয়েত ইউনিয়নের বিরুদ্ধে লড়াই করা যোদ্ধাদের সংগঠন


    হাক্কানি নেটওয়ার্কের প্রতিষ্ঠাতা জালালউদ্দিন হাক্কানি ১৯৮০-র দশকে মুজাহিদিনের হয়ে সোভিয়েত বাহিনীর বিরুদ্ধে লড়েছিলেন৷ সেই যুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের পূর্ণ আনুকুল্য পেয়েছিলেন মুজাহিদিন৷ সেই যোদ্ধাদের নিয়েই গড়ে তোলা হয় হাক্কানি নেটওয়ার্ক৷ ১৯৯৫ সালে হাক্কানি জোট বাঁধে তালিবানের সঙ্গে৷ ১৯৯৬ সালে দখল করে নেয় আফগান রাজধানী কাবুল৷ ২০১২ সালে যুক্তরাষ্ট্র হাক্কানি নেটওয়ার্ককে সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে ঘোষনা দেয়৷

    অন্য জঙ্গি সংগঠনের সাথে সম্পৃক্ততা

    আল কায়েদা, তেহরিক-ই-তালেবান পাকিস্তান, লস্কর-ই-তৈয়বাসহ এশিয়ার জঙ্গি সংগঠনগুলোর সাথে হাক্কানি গ্রুপের রয়েছে ঘনিষ্ট যোগাযোগ৷ ওসামা বিন লাদেনের মতো আল কায়েদার বর্তমান নেতা আয়মান আল-জাওয়াহিরির সাথেও এ সংগঠনের ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ রয়েছে৷

    কে এই জালালউদ্দিন হাক্কানি?

    জালালউদ্দিন হাক্কানি ১৯৩৯ সালে আফগানিস্তানের পাকতিয়ায় জন্ম গ্রহণ করেন৷ পাকিস্তানের প্রখ্যাত ধর্মীয় নেতা মওলানা সামি উল হকের বাবার প্রতিষ্ঠা করা দারুল উলুম হাক্কানি নামের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পড়াশোনা করেন তিনি৷ দারুল উলুম হাক্কানির বিরুদ্ধেও তালেবানসহ অন্যান্য উগ্রপন্থি সংগঠনের সঙ্গে সম্পৃক্ততার অভিযোগ রয়েছে৷

    তালেবান মন্ত্রী জালাল উদ্দিন হাক্কানি

    তালেবানের শাসনামলে আফগানিস্তানের আদিবাসী বিষয়ক মন্ত্রী ছিলেন জালালউদ্দিন হাক্কানি৷ ২০১১ সালে মার্কিন বাহিনীর হাতে তালেবানদের পতনের আগ পর্যন্ত তিনি এ দায়িত্বে বহাল ছিলেন৷ তালেবান নেতা মোল্লা ওমরের পর তাঁকেই আফগানিস্তানের অন্যতম প্রভাবশালী জঙ্গি নেতা হিসেবে গণ্য করা হয়৷ আল কায়দা নেতা ওসামা বিন লাদেনের সাথেও তাঁর ছিল ঘনিষ্ট যোগাযোগ৷

    হাক্কানি নেটওয়ার্ক কোথায়?

    নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞদের মতে, আফগান সীমান্ত সংলগ্ন পাকিস্তানের উত্তর ওয়াজিরিস্তানের মিরানশাহ শহরে এর কমান্ড সেন্টার৷ যুক্তরাষ্ট্র ও আফগানিস্তান মনে করে, হাক্কানি নেটওয়ার্ক পাকিস্তান সেনাবাহিনীর মদদপু্ষ্ট, যদিও পাকিস্তান তা অস্বীকার করে৷ আফগানিস্তানের ভেতরে সাধারণ মানুষ ও আন্তর্জাতিক বাহিনীর উপর হামলার জন্য হাক্কানি নেটওয়ার্ককে দায়ী করে আসছে ওয়াশিংটন৷

    হাক্কানির উত্তরসুরি

    ২০১৫ সালে জালালউদ্দিন হাক্কানির মৃত্যু হয়েছে বলে ধারনা করা হয়৷ কিন্তু তার সংগঠন সেসময় খবরটি অস্বীকার করে৷ বর্তমানে জালালউদ্দিন হাক্কানির ছেলে সিরাজউদ্দিন হাক্কানি এ নেটওয়ার্কের প্রধান৷ সিরাজউদ্দিন হাক্কানি তালেবানেরও উপ প্রধান৷

    সিরাজউদ্দিন হাক্কানি কে ?

    সিরাজউদ্দিন হাক্কানি সম্পর্কে সুনিশ্চিত কোনো তথ্য না থাকলেও নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞদের মতে, তাঁর ছোটবেলা কেটেছে পাকিস্তানের মিরানশাহ শহরে৷ লেখাপড়া পেশোয়ারের দরুল উলুম হাক্কানিতে৷ সিরাজউদ্দিনকে একজন সামরিক বিশেষজ্ঞ হিসেবে বিবেচনা করা হয়৷ অনেকে মনে করেন, তিনি তাঁর বাবার চেয়েও কট্টরপন্থি৷

    মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আনাস হাক্কানি

    সিরাজউদ্দিন হাক্কানির ছেলে আনাস হাক্কানি বর্তমানে আফগানিস্তানের কারাগারে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি হিসেবে বন্দি আছেন৷ আনাসের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হলে কাবুলের পরিণতি ভয়ংকব হবে বলে হুশিঁয়ারি উচ্চারণ করেছে হাক্কানি নেটওয়ার্ক৷

    হাক্কানি নেটওয়ার্ক কত বড়?

    বিভিন্ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান ও আফগান বিষয়ক বিশেষজ্ঞদের মতে, এ সংগঠনে তিন থেকে দশ হাজার যোদ্ধা রয়েছে৷ এর মূল তহবিল আসে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো থেকে৷ তহবিল সংগ্রহ করতে হাক্কানি নেটওয়ার্কের বিরুদ্ধে অপহরণ ও চাঁদাবাজির অভিযোগও রয়েছে৷

    Facebook Comments

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫
    ১৬১৭১৮১৯২০২১২২
    ২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
    ৩০৩১  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4673