• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    বিবিসি বাংলার প্রতিবেদন

    ঢাকার প্রতি ১১ জনের একজন চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত: জরিপ

    অনলাইন ডেস্ক | ০৭ জুলাই ২০১৭ | ৯:৩৪ অপরাহ্ণ

    ঢাকার প্রতি ১১ জনের একজন চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত: জরিপ

    বাংলাদেশের রোগতত্ত্ব ও রোগ নিয়ন্ত্রণ এবং গবেষণা ইন্সটিটিউটের সাম্প্রতিক একটি জরিপে জানা যাচ্ছে, ঢাকার প্রায় প্রতি ১১জনের একজন চিকুনগুনিয়া ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। প্রায় এক দশক ধরে বাংলাদেশে এ রোগটি দেখা দিলেও এবারের মতো প্রকোপ আগে দেখা যায়নি।


    চিকুনগুনিয়া রোগে প্রচণ্ড জ্বর থেকে ওঠার পরেও শরীরে ব্যথা থেকে যায় দীর্ঘদিন। এই ভাইরাসে আক্রান্তদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ভোগান্তিতে পড়েছেন নিম্ন আয়ের মানুষজন, বিশেষ করে যাদের প্রতিদিনকার আয়ের উপর নির্ভর করতে হয়।

    ajkerograbani.com

    ঢাকার গ্রিনরোডের একজন মুদি দোকানদার মোঃ. মকবুল বলছেন, আমি চিকুনগুনিয়া রোগে ১৫দিন বিছানায় শুয়ে ছিলাম। দোকান চালাতে পারি নাই, আয় রোজগার বন্ধ হয়ে গেছে। ঋণ করে এতদিন চলেছি, প্রায় ১৫ হাজার টাকা দেনা হয়ে গেছে।

    একটি দোকানের বিক্রয় কর্মী ফাইজুল বলছেন, একবার জ্বর হয়ে যাওয়ার পর এখন আবার শরীর খারাপ হয়েছে। অনেকদিন কাজে কামাই করেছি। গত দুই দিন ধরেও কাজে যেতে পারছি না। এক দিন যেতে না পারলে বেতন কেটে রাখে।

    এই রোগের শিকার হওয়ার পর অনেক দিন নিজের কাজে যেতে পারেননি ঢাকার গ্রীনরোডের মাজেদা বেগম। একই সময়ে আক্রান্ত হয়েছিলেন তার স্বামীও। মাজেদা বেগম বলছেন, আমি বাসায় কাজ করি। জ্বর হওয়ার পর ১০/১২ দিন কাজে যেতে পারি নাই। একটু ভালো হয়ে তিন-চারদিন গেছি। এরপর আবার যেতে পারি নাই। এজন্য আমার দুইটা কাজ চলে গেছে।

    তবে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে সমাজের সব শ্রেণী পেশার মানুষ।

    এক দিন সকালে হঠাৎ করেই এনজিওকর্মী রুথ লিপিকা হিরা বুঝতে পারেন, তিনি চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত। ১৫ দিন অসুস্থ থাকার পর, এখনো তিনি পুরোপুরি সুস্থ হতে পারেননি।

    তিনি বলছেন, এক দিন সকালে উঠে বুঝতে পারি, আমার প্রচণ্ড জ্বর এসেছে, শরীরে ব্যথা। এরপর ১৫ দিন বিছানায় পড়ে থাকতে হয়েছে। পরে মুখে র‍্যাশ উঠেছে। এখনো শরীরে অনেক ব্যথা, হাটুতে ব্যথা হয়।

    রুথ লিপিকা আরো বলেন, যেদিন অসুস্থ হলাম, সেদিন অফিসে জরুরী মিটিং ছিল। কিন্তু ছুটি নিতে হয়েছে। আর এখন কাজে ফিরে এতদিনের সব কাজ একসাথে করতে হচ্ছে।

    তবে শুধু যারা আক্রান্ত হয়েছেন তারাই নয়, পরিবারের সবাই অসুস্থ হয়ে পড়ায় ঝড় যাচ্ছে পরিবার প্রধানদের ওপর দিয়েও। এ রকম একজন মোঃ.আলম, যার স্ত্রী ও দুই মেয়েই এই রোগে আক্রান্ত হয়েছেন।

    মোঃ আলম বলছেন, বাড়ির লোকজন সবাই অসুস্থ। আমি তাদের দেখব নাকি কাজে যাব, তাই বুঝছি না।

    ঢাকার গ্রিন লাইফ হাসপাতালের সহকারী পরিচালক, ডা. নাজিয়া হক বলছেন, গত কয়েকমাসে অন্য জ্বরের রোগীর তুলনায় চিকুনগুনিয়া আক্রান্ত রোগীই তাদের কাছে বেশি আসছে।

    তিনি আরো বলেন, জ্বর আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে গত কিছু দিন ধরে আমাদের এখানে চিকুনগুনিয়া আক্রান্ত রোগীই বেশি আসছেন। এদের মধ্যে নিম্নবিত্ত, মধ্যবিত্ত বা উচ্চবিত্ত সবাই রয়েছেন।

    এ ব্যাপারে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইন্সটিটিউটের পরিচালক মিরজাদি সাবরিনা ফ্লোরা বলেন, ২০০৮ সাল থেকে এই রোগটি বাংলাদেশে সনাক্ত হলেও এ বছরই সবচেয়ে বেশি প্রকোপ দেখা যাচ্ছে।

    তিনি বলেন, মোবাইল নাম্বারের ভিত্তিতে র‍্যানডমলি আমরা ৪ হাজার মানুষের মধ্যে একটি জরিপ করেছি।
    এখনো সেই জরিপের ফলাফল চূড়ান্ত হয়নি, পর্যালোচনা চলছে, তবে একটি ধারণা দিতে পারি। এই চার হাজার লোকের মধ্যে ৩৫৭ জন চিকুনগুনিয়া জ্বরে আক্রান্ত হয়েছেন। এ থেকে হয়তো ধারণা করতে পারেন যে, কত শতাংশ মানুষ রোগটিতে আক্রান্ত হয়েছে।

    তাদের ধারণা, বৃষ্টি যতদিন থাকবে, অর্থাৎ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এই রোগের প্রকোপ থাকতে পারে।

    চিকিৎসকরা বলছেন, ততদিন মশা থেকে সতর্কতাই, যেমন মশারি বা ওষুধ ব্যবহার করাই হবে এ থেকে রক্ষার সবচেয়ে ভালো উপায়।

    Facebook Comments Box

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4757