• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    ঢাকায় ১১ লাখের বেশি গাড়ি

    অনলাইন ডেস্ক | ১৪ জুন ২০১৭ | ৩:০৩ অপরাহ্ণ

    ঢাকায় ১১ লাখের বেশি গাড়ি

    সড়ক পরিবহনমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের জানিয়েছেন, চলতি অর্থবছরে ঢাকা মহানগরে ১ লাখ ১০ হাজার ১৮টি গাড়ির রেজিস্ট্রেশন দেওয়া হয়েছে। বর্তমানে (৩১ মে পর্যন্ত) রাজধানীতে গাড়ির সংখ্যা ১১ লাখ ২৫ হাজার।


    আজ বুধবার জাতীয় সংসদে সংরক্ষিত মহিলা আসনের সাংসদ পিনু খানের প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের এই তথ্য জানান। স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অধিবেশন শুরুর পর প্রশ্নোত্তর টেবিলে উপস্থাপিত হয়।

    ajkerograbani.com

    সংরক্ষিত আসনের দিলারা বেগমের প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রস্তাবিত সড়ক পরিবহন আইন-২০১৭-তে পরিবারপ্রতি গাড়ি সংখ্যার ঊর্ধ্ব নির্ধারণের বিধান রাখা হচ্ছে।

    সরকারি দলের সাংসদ দিদারুল আলমের প্রশ্নের জবাবে সড়ক পরিবহনমন্ত্রী বলেন, সড়ক দুর্ঘটনা রোধে সরকারের বাস্তবধর্মী পরিকল্পনায় দুর্ঘটনা উত্তরোত্তর কমছে। পুলিশের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০০৮ সালে সড়ক দুর্ঘটনার সংখ্যা ছিল ৪ হাজার ৪২৭টি। ২০১৬ সালে ২ হাজার ৫৬৬টি সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে।

    সাংসদ পিনু খানের অপর এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের জানান, চলতি বছরের প্রথম চার মাসে (জানুয়ারি-এপ্রিল) ৯২৯টি দুর্ঘটনা ঘটেছে। এতে ৮৮৮ জন নিহত ও ৭১৬ জন আহত হয়েছে।

    মন্ত্রী জানান, সারা দেশের মহাসড়ক নেটওয়ার্ক পরীক্ষা করে ২২৭টি ব্ল্যাক স্পট চিহ্নিত করা হয়েছে। এর মধ্যে শতাধিক ব্ল্যাক স্পটে প্রতিরক্ষামূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

    রেলের ৩৭৫২ একর জমি অবৈধ দখলে
    সাংসদ সুকুমার রঞ্জন ঘোষের প্রশ্নের জবাবে রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক জানান, রেলওয়ের অবৈধ দখলভুক্ত ভূমির পরিমাণ ৩৭৫২ দশমিক ৭৮ একর। রেলভূমির স্থানীয় প্রশাসন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও রেলওয়ের অন্যান্য বিভাগের সার্বিক সহযোগিতায় পর্যায়ক্রমে অবৈধ দখলভুক্ত ভূমি দখলমুক্ত করা হচ্ছে।

    সাংসদ নুরুল ইসলাম ‍সুজনের প্রশ্নের জবাবে রেলমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ রেলওয়ের অব্যবহৃত ভূমির পরিমাণ ১০৮৪৩ দশমিক ১৫ একর। রেলওয়ের অব্যবহৃত জমিতে পিপিপির আওতায় আধুনিক হাসপাতাল ও মেডিকেল কলেজ, আন্তর্জাতিক মানের পাঁচ তারকা হোটেল-কাম-বাণিজ্যিক ভবন, বহুতল শপিং মল-কাম-গেস্ট হাউস ইত্যাদি নির্মাণের লক্ষ্যে প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে।

    বার্ষিক কাপড়ের চাহিদা ২৪০০ মিলিয়ন মিটার
    সাংসদ সানজিদা খানমের প্রশ্নের জবাবে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী ইমাজ উদ্দিন প্রামাণিক জানান, দেশে বার্ষিক কাপড়ের চাহিদা ২ হাজার ৪০০ মিলিয়ন মিটার। এর মধ্যে ১৭০০ থেকে ২০০০ মিলিয়ন মিটার (৭০-৮৩ %) দেশীয় উৎপাদন থেকে পূরণ হয়। বাকি কাপড় চীন, জাপান, ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কাসহ বিভিন্ন দেশ থেকে আমদানি হয়।

    সরকারি দলের সাংসদ মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরীর প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, ইপিবির (রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো) তথ্য অনুযায়ী, চলতি অর্থবছরের মে পর্যন্ত বস্ত্র খাত থেকে অর্জিত বৈদেশিক মুদ্রার পরিমাণ প্রায় ২৬ দশমিক ৪৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

    Facebook Comments Box

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4757