• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    তবে কি এখানেই শেষ তাহসান-মিথিলার কাছে আসার গল্প?

    অনলাইন ডেস্ক | ২১ জুলাই ২০১৭ | ১:০৫ পূর্বাহ্ণ

    তবে কি এখানেই শেষ তাহসান-মিথিলার কাছে আসার গল্প?

    প্রেমের শুরু ল্যান্ডফোনের দিনগুলোতে, বিশ্ববিদ্যালয়ের সময়ে। প্রথম দেখা, কথা ও ভালবাসার প্রকাশ থেকে দুই বছর প্রেম এবং এরপর ১১ বছরের বিবাহিত জীবন। শেষ হতে যাচ্ছে ১৩ বছরের পরিচয়ের তাহসান-মিথিলার সম্পর্ক। অনেকদিন ধরে চলা গুঞ্জনের জবাব দিয়ে ডিভোর্সের ঘোষণা দিয়েছেন তাহসান। আর একসঙ্গে থাকছেন না তিনি আর স্ত্রী মিথিলা।


    এসময়ের জনপ্রিয় সংগীত তারকা তাহসান খান ও স্ত্রী মডেল-অভিনেত্রী মিথিলা। ভালোবাসা দিবস এলেই বাড়ির দরজায় ফুল রেখে এসে মিথিলাকে ফোন করতেন তাহসান। প্রেমের সেই সুদিনগুলো নিয়ে প্রায়ই কথা বলতেন তারা। দুজনই ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। এক দশক থেকে বেশি সময় ধরে এই তারকা তারকা জুটি সুখী দম্পতি হিসেবেই সবার কাছে পরিচিত, সকলের প্রিয়।

    ajkerograbani.com

    তবে প্রেম নিবেদন, ভালবাসা ও বিয়ের দিকের গল্পটা কেমন ছিল তাদের?

    প্রথম দেখা

    তখন ২০০৪ সাল। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়েন তাহসান। ছাত্র থাকা অবস্থায়ই কণ্ঠশিল্পী হিসেবে বেশ পরিচিত হন। ঠিক তখন একদিন অটোগ্রাফের ছুতোয় পরিচয় মিথিলার সাথে।

    এক সাক্ষাৎকারে একবার মিথিলা প্রথম পরিচয় নিয়ে বলেছিলেন, ‘আমার এক বন্ধু তার ছোট ভাইয়ের জন্য তাহসানের অটোগ্রাফ নিতে যাচ্ছে। মূলত তাকে সঙ্গ দেওয়ার জন্যই তাহসানের বাড়িতে হাজির হওয়া আর প্রথম পরিচয়।’

    যদিও সে সময়ে তাহসানের গান শুনলেও ভক্ত ছিলেন না মিথিলা। সেইদিন বন্ধুর সাথে অটোগ্রাফ নিতে গিয়ে তাহসানের ব্যান্ড ব্ল্যাককে নিয়ে অনেক সমালোচনা করেন তিনি। মাত্র বিশ মিনিটের আলাপে প্রথম দেখাতেই তাহসানের মিথিলাকে পছন্দ হয়।

    প্রেম নিবেদন

    এরপর দিনই আর দেরি না করে চিঠি নিয়ে কলাভবনের প্রথম গেটের সামনে অপেক্ষা করছিলেন তাহসান। এক সময় মিথিলা সামনে এলেন কথাও বললেন। তাহসানের অনুরোধে হাঁটতে হাঁটতে অনেক কথা হল। এক পর্যায়ে তাহসান সাহস করে মিথিলার হাতে গুঁজে দিলেন চিঠি। যাতে লেখা ছিল, ‘Some call it love at first sight, some call it infatution. I just ignore it.’ মিথিলা সেই চিঠির উত্তর দিয়েছিলেন ফোনে। যার প্রথম বাক্যটি ছিল এমন, ‘এই এটা কী লিখেছ?’

    এরপর থেকেই প্রেমের শুরু। ফোনালাপ আর রিকশা ভ্রমণে বাড়ছিল ভালবাসা। চিঠি লেখা প্রসঙ্গে তাহসান বললেন, ‘যেহেতু আমার কবিতার প্রতি প্রেম, ভাবলাম ফোন করার আগে এক চিঠিই লিখি।’

    প্রেমের গান

    আলাপ, আড্ডাবাজি ও চুপিচুপি ঘোরাঘুরির মাঝে থেকেই মিথিলার জন্য তাহসান লিখেন গান। সেই সুরে গান গাইলেন মিথিলা। গানের রেকর্ডিং ও অনুশীলনের মধ্যদিয়ে টানা আটঘণ্টা সময় পার হয়। গানের সুতোয় বাঁধা ছিল তাহসান-মিথিলার প্রেম।

    তাহসান বলেছিলেন, ‘আমাদের সম্পর্কটা খুব অল্প সময়ের মধ্যেই পরিণত হয়েছে। তার কারণ হতে পারে আমরা একই ইউনিভার্সিটি পড়তাম, প্রায়ই আমাদের দেখা হতো, সাক্ষাতেও কথা হতো।’

    ভালোবাসার পথে হাঁটা

    ২০০৪-২০০৬ সাল পর্যন্ত পার করেন তারা প্রেম করেই। ঝগড়া খুনসুটি হলেও ভালবাসা অটুট ছিল। তাহসান একবার সেই বিষয়ে বলেছিলেন, ‘প্রায় রাতের বেলা ওর সঙ্গে কথা বলতাম। আর সত্যি কথা বলতে, ফোনে কথা বলতে আমার ভাল লাগে না। মিথিলা বলে নয়, কারো সঙ্গেই ফোনে বেশিক্ষণ কথা বলতে ভাল লাগে না। রাত জেগে জেগে কথা বলার সময় আমি যখন ফোন রাখতে চাইতাম, ও বলত এত তাড়াতাড়ি ফোন রাখছ কেন? এসব নিয়ে সামান্য খুনসুটি হতো না, তা নয়। তবে তার স্থায়ীত্ব থাকত খুব অল্প সময়।’

    তাহসান-মিথিলার কাছে আসার গল্প

    এবং বিয়ে…

    ভালবাসাকে পরিণত করেন আজীবনের বন্ধনে। দুই পরিবারের সম্মতিতে ২০০৬ সালের ৩ আগস্ট বিয়ে হয় তাদের। বেশ ঘটা করেই তাদের বিয়ে হয়েছিল। অনেক তারকারা আসেন বিয়েতে। তাহসান ও মিথিলা একে অপরকে জীবনসঙ্গি করে নিলেন। জনপ্রিয় এই জুটিকে সকলেই পছন্দ করেন। ভক্তরা বেশ প্রসংশা করেন তাদের প্রেম, ভালবাসা ও পরস্পরের প্রতি থাকা শ্রদ্ধায়। এই দম্পতির ঘরে জন্ম নেয় ফুটফুটে একটি মেয়ে।

    তাহসান বিয়ে নিয়ে বলেছিলেন, ‘বিয়ের সময় আমার বয়স ছিল মাত্র ২৬ বছর আর মিথিলার ২৩ বছর। হঠাৎ করেই বিয়ে হয়ে গেল আমাদের। একবার মনে হচ্ছিল খুব তাড়াহুড়ো করেই কি বিয়ে করে ফেললাম! তখন অনেকেই বুঝিয়েছিল, বিয়ে করলেই সব শেষ। বিয়ের পর আর এত জনপ্রিয়তা থাকবে না। মেয়ে ভক্তরা সব দূরে সরে যাবে। বিয়ের পরে দেখলাম সেইরকম কিছুই হয়নি।’

    বিয়ের পরের প্রেম

    খুব অল্প সময়ের মধ্যেই সংসার গুছিয়ে নেন তারা। সবকিছু নিয়ে ভাল থাকার মাঝেই আসে ফুটফুটে মেয়ে সন্তান।

    মান-অভিমান

    মান-অভিমান ঝগড়াঝাটি হলেও মানিয়ে নিতেন একে অপরকে। কেউ কারো ওপর বেশিক্ষণ মন খারাপ করে থাকতে পারতেন না। একসঙ্গে শুটিং ও গান করতেন তারা। স্বামী-স্ত্রীর মধ্যেও ঝগড়া হয় তবে সেসব ভুলে যাওয়া এগিয়ে যাওয়া জীবন।

    বিয়ের আগে ও পরে

    বিয়ের আগে ও বিয়ের পর ভালোবাসার একরূপ আর অন্যরূপ হয়। কারো কাছে বিয়ের পর ভালোবাসার রঙ ধূসর হয়ে যায় তবে বিপরীত ছিল তাহসান-মিথিলা জুটি। বিয়ের আগে প্রেম-ভালোবাসায় নানারকম সামাজিক বাধাবিপত্তিও থাকে। যেটা বিয়ের পরে থাকে না। তাই তাহসান ও মিথিলা বিয়ের পরে প্রেম করে শান্তিতে ছিলেন। একসঙ্গে শুটিং, গান, ঘুরে বেড়ানো যাই করতেন কেউ বাঁকা চোখে দেখতো না।

    এতো কিছুর পর প্রায় এক যুগ পেরিয়ে কেন ভাঙছে তারা এই সাজানো গোছানো সংসার? অনেকেরই প্রশ্ন। বেশ কয়েকদিন করে গুঞ্জন রটেছিল এই জুটির ডিভোর্সের। অবশেষে ঘোষণা করে তাহসান জানান দেন এর সত্যতার। দ্রুতই সামাজিক বন্ধনের বেড়াজাল ভেঙ্গে আলাদা হচ্ছেন তারা।

    Facebook Comments

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২
    ১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
    ২০২১২২২৩২৪২৫২৬
    ২৭২৮২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4755