• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    তরিকুল ভালোর দিকে, সুস্থ হতে লাগবে তিন মাস

    রাবি প্রতিনিধি | ১৪ জুলাই ২০১৮ | ৮:১৯ অপরাহ্ণ

    তরিকুল ভালোর দিকে, সুস্থ হতে লাগবে তিন মাস

    কোটা সংস্কার আন্দোলনে আহত রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষার্থী তরিকুল ইসলাম তারিকের শারীরিক অবস্থার ধীরে ধীরে উন্নতি হচ্ছে। গত ৯ জুলাই তারিকের পায়ে অস্ত্রপচার করার পর বর্তমানে তার অবস্থা ভালোর দিকে।


    শনিবার বিকেলে ‘নিপীড়ন বিরোধী শিক্ষকবৃন্দ’ স্বাক্ষরিত একটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।


    বিজ্ঞপ্তিতে দায়িত্বরত চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে জানানো হয়, ‘বর্তমানে তরিকুলের অবস্থা ভালোর দিকে। সে দ্রুতই সুস্থ হয়ে উঠছে। এখন সে বিছানা থেকে উঠে বসতে পারছে এবং একটু হলেও হাঁটু ভাঁজ করতে পারছে। প্রতিদিন ড্রেসিং করায় কমে আসছে পায়ের ফোলা ভাবটাও। কিন্তু পিঠের নিচের দিকে হাতুড়ির আঘাতের কারণে এখনও রক্ত জমাট বেধে আছে, পিঠের বিভিন্ন স্থানে লাঠির আঘাতে কালশিটে পড়েছে, মাংসপেশি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার ফলে নিয়মিত ফিজিওথেরাপি দেয়া হচ্ছে।’

    চিকিৎসকরা মনে করেন, আর কয়েকদিন পরে তরিকুল ক্রাচে ভর দিয়ে একটু হাঁটা-চলাও করতে পারবে। তবে পুরোপুরি সুস্থ হয়ে উঠতে আরও অন্তত তিন মাস সময় লাগবে।

    বিজ্ঞপ্তিতে শিক্ষকরা আরও জানান, ‘গুরুতর আহত একজন শিক্ষার্থীকে চিকিৎসা-বঞ্চিত করার এই ঘটনা ছিল নজিরবিহীন। এই পরিস্থিতিতে তরিকুলের সহপাঠিরা নিরুপায় হয়ে তাকে শহরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানকার চিকিৎসকরা তরিকুলের পায়ে অস্ত্রপচার প্রয়োজন হতে পারে বলে জানায়।

    এদিকে, বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষার্থীর চিকিৎসা সহায়তায় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ একেবারে নীরব ভূমিকা পালন করে। এমনকি তারা তরিকুলের ন্যূনতম খোঁজখবর নেওয়ারও প্রয়োজনবোধ করেনি বলে বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়।

    এর আগে গত ৫ জুলাই অসুস্থ অবস্থায় তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা অসম্পন্ন রেখেই ছাড়পত্র দেয়ার পর শহরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এরপর ৬ জুলাই রয়্যাল হাসপাতালে গিয়ে তরিকুলের সঙ্গে দেখা করেন শিক্ষকরা। সেখানে চিকিৎসক জানান, তরিকুলের ডান পা ভেঙে গেছে। মাথায় ৯টি সেলাই দেওয়া হয়েছে।

    হাসপাতালে দায়িত্বে থাকা চিকিৎসকের পরামর্শে ৮ জুলাই তরিকুলকে ঢাকায় পাঠানো ব্যবস্থা করেন তারা। বিকেল তিনটায় তরিকুল ঢাকায় পৌঁছালে তাকে একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে ৯ জুলাই তার পায়ে অস্ত্রপচার করা হয়।

    নিপীড়ন বিরোধী শিক্ষকরা হলেন, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সভাপতি আ-আল মামুনসহ, শিক্ষক সেলিম রেজা নিউটন, শাতিল সিরাজ, কাজী মামুন হায়দার, আব্দুল্লাহীল বাকী, নৃবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক বখতিয়ার আহমেদ, ইংরেজি বিভাগের আব্দুল্লাহ আল মামুন, ফোকলোর বিভাগের ড. মো. আমিরুল ইসলাম, ফোকলোর বিভাগের সুস্মিতা চক্রবর্তী, নাট্যকলা বিভাগের কাজী শুসমিন আফসানা, ড. হাবিব জাকারিয়া, বাংলা বিভাগের ড. সৌভিক রেজা, ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের সৈয়দ মুহাম্মদ আলী রেজা।

    এর আগে ৫ জুলাই সংবাদ সম্মেলন করে কোটা সংস্কার আন্দোলন নিয়ে রাবিসহ অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা, গ্রেফতারসহ উদ্ভুত পরিস্থিতিতে উদ্বেগ জানান নিপীড়নের বিরুদ্ধে দাঁড়ানো এই ১৩ শিক্ষক।

    প্রসঙ্গত, গত ২ জুলাই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের পাশে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীরা পতাকা মিছিলের জন্য জমায়েত হয়। এসময় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা সশস্ত্র হামলা চালিয়ে বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থীকে মারধর করে। তরিকুলের ওপরে চলে নির্মমতম অত্যাচার। বাঁশ, রড, রামদা ও হাতুড়ির আঘাতে তার মাথা ফেটে যায় এবং ভেঙে যায় ডান পায়ের হাটুর নিচের দুইটি হাড়।

    Facebook Comments

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫
    ১৬১৭১৮১৯২০২১২২
    ২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
    ৩০৩১  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4673