বুধবার ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

তাওবাহ ছাড়া যাদের দোয়া কবুল হয় না

ডেস্ক রিপোর্ট   |   সোমবার, ০২ আগস্ট ২০২১ | প্রিন্ট  

তাওবাহ ছাড়া যাদের দোয়া কবুল হয় না

যে কোনো পরিস্থিতিতে বান্দা যদি আল্লাহর কাছে সাহায্য চায়, আল্লাহ তায়ালা সঙ্গে সঙ্গে সাড়া দেন। বান্দা আল্লাহর কাছে যত বেশি প্রার্থনা করেন, আল্লাহ তার চেয়েও বেশি ক্ষমা করেন। তবে দুই শ্রেণির বান্দার চাওয়া-পাওয়া আল্লাহ তায়ালা তাওবাহ ছাড়া কবুল করবেন না। সাহায্য প্রার্থনাকারীর জন্য দোয়া কবুল না হওয়ায় দুইটি বাঁধা রয়েছে।

হজরত জাবির (রা.) বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ (সা.) কে বলতে শুনেছি, কোনো ব্যক্তি (আল্লাহর কাছে) কোনো কিছু প্রার্থনা করলে আল্লাহ তায়ালা তাকে তা দান করেন। অথবা তদানুযায়ী তার থেকে কোনো অমঙ্গল প্রতিহত করেন। যতক্ষণ না সে কোনো পাপাচারে লিপ্ত হয় বা আত্মীয়তার সম্পর্ক ছিন্ন করার জন্য দোয়া করে।’ (তিরমিজি)


এ হাদিসে বান্দার কাঙ্ক্ষিত চাওয়া পূরণের কথা এসেছে। যদি কারো চাওয়া পূর্ণ না হয় তবে তার থেকে তার অমঙ্গল বা অকল্যাণগুলো দূর করে দেয়া হয়। আর এ জন্য অবশ্যই মুমিন বান্দাকে ২টি কাজ থেকে বিরত থাকার বর্ণনাও এ হাদিসে তুলে ধরা হয়েছে। তাহলো-

১. পাপের কাজ না করা কিংবা পাপ কাজ করার ব্যাপারে সাহায্য প্রার্থনা না করা।


২. আত্মীয়তার সুসম্পর্ক নষ্ট না করা কিংবা আত্মীয়তার সম্পর্ক নষ্ট করতে আল্লাহর কাছে সাহায্য প্রার্থনা করা।

যেহেতু এ দুই কাজের কারণে বান্দার কোনো দোয়াই আল্লাহ তাআলার দরবারে কবুল হয় না। তাই উল্লেখিত কাজ দু’টি থেকে বিরত থেকে দুনিয়ার কল্যাণ ও পরকালের সফলতা লাভে প্রার্থনা করাই মুমিন মুসলমানের অন্যতম কাজ। যারা এই দুই কাজে জড়িত; তাদের জন্য তাওবাহ করে এ কাজ দুইটি থেকে ফিরে আসা জরুরি। আর তাতেই তাদের নেক চাওয়া-পাওয়াগুলো আল্লাহ তায়ালা পূরণ করে দেবেন।

মনে রাখতে হবে
মানুষের যে কোনো চাওয়া-পাওয়া মহান আল্লাহ তায়ালা নিজ অনুগ্রহে পরিপূর্ণ করেন। কুরআনুল কারিমে ঘোষণাও এমনই। আল্লাহ তায়ালা বলেন- ’তোমরা আমাকে ডাক, আমি তোমাদের ডাকে সাড়া দেব।’

দোয়া বা প্রার্থনাকারী যত বেশি আল্লাহর কাছে দোয়া করবে, ক্ষমা চাইবে, রহমত কামনা করবে, আল্লাহর গুণগাণ গাইবে, ওই বান্দার জন্য তত বেশি লাভ। কেননা আল্লাহ তায়ালা বান্দার চাওয়ার চেয়েও বেশি দানকারী। তার দানের কোনো সীমা-সংখ্যা নেই। হাদিসের বর্ণনাও তা উঠে এসেছে-

হজরত উবাদা ইবনুস সামিত (রা.) থেকে বর্ণিত হাদিসে আরও উল্লেখ কর হয়েছে যে, উপস্থিত লোকদের একজন বলল, তাহলে আমরা খুব বেশি বেশি দোয়া করতে পারি। রাসূলুল্লাহ (সা.) বললেন, ‘আল্লাহ তায়ালা তার চেয়েও বেশি বেশি কবুলকারী।’ (তিরমিজি)

সুতরাং মুমিন মুসলমানের উচিত, মহান আল্লাহকে বেশি স্মরণ করা। পাপাচার থেকে বিরত থাকা। আত্মীয়তার সুসম্পর্ক নষ্ট না করা। অন্যায় বা গোনাহের আবদার নিয়ে আল্লাহর স্মরণাপন্ন না হওয়া। তবেই আল্লাহ তায়ালা বান্দার সব চাওয়া পরিপূর্ণ করে দেবেন। যাবতীয় অমঙ্গল ও অকল্যাণ থেকে হেফাজত করবেন।

আল্লাহ তায়ালা মুসলিম উম্মাহকে হাদিসের উপর আমল করার মাধ্যমে দোয়া কবুলে ধরণা দেওয়ার তাওফিক দান করুন। দুনিয়া কামিয়াবি ও পরকালের সফলতা লাভে তারই দেখানো পদ্ধতিতে জীবন পরিচালনা করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

Facebook Comments Box

Posted ৬:৫৯ অপরাহ্ণ | সোমবার, ০২ আগস্ট ২০২১

ajkerograbani.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০