• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    তৃর্ণমূলের নেতাকর্মীরা আর কত ত্যাগ স্বীকার করবে?

    মুফতী মাসুম বিল্লাহ নাফিয়ী | ১৭ জুলাই ২০১৮ | ৬:১৮ অপরাহ্ণ

    তৃর্ণমূলের নেতাকর্মীরা আর কত ত্যাগ স্বীকার করবে?

    আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী ও সমর্থকদেরকে যারা মনেপ্রাণে নাস্তিক মনে করে এখন তারা ব্যানারে বঙ্গবন্ধু ও নেত্রীর ছবি ব্যবহার করে প্রোগ্রাম করছে। এদের মদদদাতা ও পৃষ্ঠপোষকদের চিহ্নিত করতে পারলেই রাজপথের ত্যাগী কর্মী সমর্থকদের মূল্যায়ন হবে। নচেৎ সুবিধা ভোগীরাই সুবিধা নিবে কর্মীদের ভাগ্যে এপর্যন্ত কিছুই জুটেনি আগামীতেও জুটবেনা বলে অন্তত আমি বিশ্বাস করি।দীর্ঘসময় আওয়ামী লীগ রাষ্ট্র ক্ষমতায় তৃর্ণমূলের বঞ্চিত আওয়ামী নেতাকর্মীরা সরকার ও দল থেকে কী পেয়েছে তা দলের হিসাব কষে দেখা দরকার।


    বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পূর্বেই জরিপ করে দেখা উচিৎ রাজপথের ত্যাগী নেতাকর্মীরা সরকার থেকে শতকরা কতভাগ সুযোগ সুবিধা পেয়ে স্বাবলম্বী হয়েছেন।সম্মানিত এমপি ও মন্ত্রী মহোদয়গণও কাদের কে সুযোগ সুবিধা দিয়ে স্বাবলম্বী করেছেন।দলীয়ভাবে এই সমীকরণটি নির্বাচনের জন্য অবশ্যই প্রয়োজন।এছাড়াও রাতারাতি যেসকল আমলারা বুলি পরিবর্তনে মধ্য দিয়ে কতিপয় লোকদের কে মেনেছ করে ভালোভালো জায়গায় পোষ্টিং নিয়ে চেয়ার দখল করেছেন।তারাও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের কে কতটুকু মূল্যায়ন করেছে তাও তলিয়ে দেখা দরকার।


    তৃর্ণমূলের নেতাকর্মীরা আর কত ত্যাগ স্বীকার করবে?বঞ্চনার ভারে অনেকেই রাজনীতিতে প্রায় নিঃক্রিয়।যিনি এমপি হয়েছেন তাকেই বারবার দলীয় মনোনয়ন দেওয়া এবং যিনি মন্ত্রী হয়েছে তাকেই বারবার মন্ত্রী বানানো।এভাবে প্রত্যেকটি জনপ্রতিনিধির ক্ষেত্রে দলীয় অবস্থান যা অধিকার বঞ্চিত নেতাকর্মীদের কে আহত করে বলে আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি।যা নতুন নেতৃত্ব ও জনপ্রতিনিধি সৃষ্টির ক্ষেত্রেও বড় ধরণের অন্তরায়।

    বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী বঙ্গকন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্ব অতীতের ন্যায় তৃর্ণমূল আওয়ামী নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধ আগামীতেও ঐক্যবদ্ধ থাকবে ইনশাআল্লাহ।শুধু তা নয় আজ পুরো জাতি নেত্রীর সুযোগ্য নেতৃত্ব ঐক্যবদ্ধ আছে এবং ভবিষ্যৎও থাকবে।তবে সুবিধা ভোগীরা আবারো যদি সুবিধা না পায় কতটুকু পাশে থাকবে তা নিয়ে কিন্তু প্রশ্ন থেকেই যায়।

    একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন কে কেন্দ্র করে রাজপথে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সমন্বয়ে জোট উপ-জোটের সৃষ্টি হয়েছে। নব্বইয়ের স্বৈরশাসকের সাথেও আক্ষরিক অর্থে বিশাল বড় একটি জোট রয়েছে। জোটে বাংলাদেশ ইসলামি ফ্রন্ট ব্যতিরেকে অন্য দলগুলোর সভাপতি আছে তো সাধারণ সম্পাদক নাই।আর সাধারণ সম্পাদক আছে তো সভাপতি নাই এমনই প্রায়। নাজমুল হুদার জোটের অবস্থাও প্রায় একিরকম বললে চলে। আর ড.কামাল গংদের সাথে দৃশ্যে ও অদৃশ্যে যারা আছে তারা এককথায় আওয়ামী বিরোধী অপশক্তির পেতাত্মা।

    হ্যাঁ তবে রাজপথে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ কিছু সংখ্যক রাজনৈতিক দল আছে যারা কারো দ্বারাই প্রভাবিত নন।সরকরের উন্নয়নের ধারার সমর্থনে রাজপথে তারা অনেক কর্মসূচিও পালন করে থাকে।এই দলগুলো মুক্তিযুদ্ধের চেতনার স্বপক্ষের মূলশক্তির সহায়ক শক্তি এতে কোন ভুল নাই।একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেকে বহু রাজনৈতিক দলের অংশগ্রহণ মূলক নির্বাচন নিশ্চিত করার লক্ষে এই দলগুলো নিয়েও একটি জোট হতে পারে।

    ইসলামি দলগুলোর মধ্যেও প্রায় দল এককভাবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে বলে তাদের প্রচার ও প্রচারণা দৃশ্যমান।তবে এ খেলায় ইসলামি আন্দোলন ছাড়া বাকী দলগুলো শেষপর্যন্ত নীতিতে অটল থাকতে পারবে কিনা সন্দেহ আছে।বিশেষ করে ইসলামি ফ্রন্ট বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাথে ১৪ দলীয় জোটে বা মহাজোটে থাকার জন্য অনেক পূর্ব থেকেই চেষ্টা করে আসছে।১৪দলের দুএকটি দলের বাঁধার কারণে এখনো পর্যন্ত ফ্রন্ট কে জোট ভুক্ত করার বিষটি ঝুলে আছে।ইসলামি ফ্রন্ট বাংলাদেশ যে স্বাধীনতার চেতনার স্বপক্ষের দল আমার জানা মতে এ নিয়ে সন্দেহ করার কোন অবকাশ নাই।

    একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন হোক স্বাধীনতা বিরোধী ও নব্বইর স্বৈরচার মুক্ত স্বাধীনতার চেতনার স্বপক্ষের রাজনৈতিক দলগুলোর অংশগ্রহণ মূলক সুন্দর সুষ্ঠু নিরপেক্ষ গ্রহণযোগ্য নির্বাচন।এটাই মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ তরুণ প্রজম্মের প্রাণের একান্ত দাবী।

    মুফতী মাসুম বিল্লাহ নাফিয়ী
    সদস্য,
    কেন্দ্রীয় ধর্ম বিষয়ক উপ-কমিটি,বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ।

    Facebook Comments

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫
    ১৬১৭১৮১৯২০২১২২
    ২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
    ৩০৩১  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4673