• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    দল বেঁধে দিল্লির পথে যৌনকর্মীরা

    অগ্রবাণী ডেস্ক | ০১ মে ২০১৭ | ৯:৪০ অপরাহ্ণ

    দল বেঁধে দিল্লির পথে যৌনকর্মীরা

    যৌনপল্লির কাস্টমারদের এ বার অপরাধী হিসেবে গণ্য করা হবে। এমনই সংস্থান থাকছে আইনে। আর, তারই জেরে দিল্লিতে এ বার প্রতিবাদে শামিল হচ্ছেন ভারতের বিভিন্ন প্রান্তের যৌনকর্মীরা। আর তারা জড়ো হলে পুরো দিল্লি ছেঁয়ে যাবে যৌনকর্মীতে।


    কেন এ প্রতিবাদ? কারণ, ওই আইন চালু হলে, যৌনকর্মীদের প্রধানত দুই ধরনের বিপদের সম্মুখীন হতে হবে বলে জানানো হয়েছে৷ এক, যৌনপল্লির বাইরে কোনও যৌনকর্মীর সঙ্গে ‘যা খুশি তাই’ করতে পারবেন কোনও কাস্টমার৷ যার জেরে, সংশ্লিষ্ট যৌনকর্মী অনাকাঙ্খিত কোনও ঘটনারও সম্মুখীন হতে পারেন৷ এবং, দুই, এইচআইভি-এইডস প্রতিরোধের কাজও ক্ষতিগ্রস্ত হবে৷ কেননা, এখন পর্যন্ত যেভাবে এ দেশে এইচআইভি-এইডস প্রতিরোধের কাজে সাফল্য এসেছে, তার পিছনে অন্যতম কারণ হিবেসে এই বিষয়ে বিভিন্ন যৌনপল্লিতে সচেতনতা বৃদ্ধি এবং কন্ডোম ব্যবহারে যৌনকর্মীদের অংশগ্রহণের বিষয়টি রয়েছে৷ কিন্তু যৌনপল্লীর খদ্দেরদেরকে অপরাধী করা হলে তারা আর সেখানে যাবে না। চাইবে যৌনকর্মীদের বাইরে এনে চাহিদা পূরণ করতে। তাতেই আপত্তি সারা দেশের যৌনকর্মীদের।

    ajkerograbani.com

    এমনই পরিস্থিতিতে, কলকাতা সহ এ রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তের যৌনপল্লিতে এক বছরের প্রতিবাদের কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে৷ সোমবার, পয়লা মে থেকেই শুরু হয়েছে এই প্রতিবাদ৷ একই সঙ্গে, এদিন মে দিবসেও অংশ নিচ্ছেন কলকাতা সহ এ রাজ্যের বিভিন্ন যৌনপল্লির যৌনকর্মীরা৷ ‘গতর খাটিয়ে খাই, শ্রমিকের অধিকার চাই’, ১৯৯৫ থেকেই এমন স্লোগানের উপর ভিত্তি করে অধিকার আদায়ের দাবিতে প্রতিবাদে শামিল হচ্ছেন কলকাতা সহ এ রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তের যৌনকর্মীরা৷ আর, এই বছর কলকাতার সাতটি সহ রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তের ৩৫টি যৌনপল্লিতে মে দিবসে শ্রমিকের অধিকার আদায়ের দাবিতে প্রতিবাদের কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে৷

    পশ্চিমবঙ্গের যৌনকর্মীদের অন্যতম সংগঠন দুর্বার মহিলা সমন্বয় কমিটির মুখ্য উপদেষ্টা, ডাক্তার স্মরজিৎ জানার কথায়, ‘‘আমরা জানতে পেরেছি, সংসদের পরবর্তী অধিবেশনে এমন একটি বিল আনা হচ্ছে, যেখানে যৌনপল্লির কাস্টমারদের অপরাধী হিসেবে গণ্য করা হবে৷ অর্থাৎ, এর মাধ্যমে ঘুরিয়ে যৌনপল্লিগুলি বন্ধ করে দেওয়ার কথা বলা হচ্ছে৷ যৌনপল্লিগুলি তখন হয়তো বন্ধ হয়ে যাবে৷ কিন্তু, এর ফলে প্রধানত দু’টি বিপদ দেখা দেবে৷’’ কোন ধরনের বিপদ? তিনি বলেন, ‘‘এই বিল আইনে পরিণত হলে, যৌনপল্লির কাস্টমারদের অপরাধী হিসেবে গণ্য করা হবে৷ যে কারণে, যৌনকর্মীরা তখন যৌনপল্লির বাইরে ছড়িয়ে পড়বেন৷ তখন, কোনও কাস্টমার কোনও যৌনকর্মীর সঙ্গে যা খুশি তাই করতে পারেন৷’’

    একই সঙ্গে ডাক্তার স্মরজিৎ জানা বলেন, ‘‘অন্য বিপদটি আরও ভয়ঙ্কর৷ এ দেশে এইচআইভি-এইডস প্রতিরোধের কাজে এখনও পর্যন্ত যে সাফল্য এসেছে, তার জন্য যৌনপল্লিগুলির ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ৷’’ কী সেই ভূমিকা? তিনি বলেন, ‘‘এইচআইভি-এইডসের বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধিতে যৌনপল্লিগুলিতে নিয়মিত কর্মসূচি রয়েছে৷ তার জন্য যৌনকর্মীদের মধ্যে কন্ডোম ব্যবহারের হারও বেড়েছে৷ যৌনপল্লির বাইরে যৌনকর্মীরা ছড়িয়ে পড়লে এইচআইভি-এইডস প্রতিরোধের কাজও ক্ষতিগ্রস্ত হবে৷’’ তা হলে, উপায়? দুর্বার মহিলা সমন্বয় কমিটির মুখ্য উপদেষ্টা বলেন, ‘‘এই বিষয়টি আমরা সংসদের সব সদস্যকে চিঠির মাধ্যমে বোঝানোর চেষ্টা করব৷’’

    শুধুমাত্র তাই নয়৷ ডাক্তার স্মরজিৎ জানা বলেন, ‘‘এই বিল আইনে পরিণত হলে যৌনকর্মী এবং এই পেশার উপর চাপ তৈরি হবে৷ এর সঙ্গে প্রধানত এই দুই বিপদও দেখা দেবে৷ তাই এর বিরুদ্ধে আমরা লাগাতার প্রচার চালিয়ে যাব৷ তার জন্য এক বছরের কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে৷ মে দিবস থেকেই শুরু হচ্ছে আমাদের এই কর্মসূচি৷’’ একই সঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘আমাদের যে অল ইন্ডিয়া নেটওয়ার্ক অফ সেক্স ওয়ার্কার্স রয়েছে, তার সদস্যদের নিয়ে আগামী জুন মাসে দিল্লিতে আমরা প্রতিবাদে শামিল হচ্ছি৷’’[LS]

    Facebook Comments Box

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
    ১০১১১২১৩১৪
    ১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
    ২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
    ২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4757