সোমবার ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৫ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

দশ বছর ঘরবন্দি উচ্চশিক্ষিত ৩ ভাই-বোন

  |   সোমবার, ২৮ ডিসেম্বর ২০২০ | প্রিন্ট  

দশ বছর ঘরবন্দি উচ্চশিক্ষিত ৩ ভাই-বোন

প্রায় দশ বছর ধরে ঘরে বন্দি থাকার পর তিন ভাই-বোনকে উদ্ধার করল একটি সমাজসেবী সংস্থা। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের গুজরাটের রাজকোটে।
রাজকোটের কিসানপাড়ায় থাকেন মেহতা পরিবার। সদস্য বলতে দুই ভাই, এক বোন এবং তাদের বয়স্ক বাবা। নবীন মেহতা সরকারি কর্মী। অবসর নিয়েছেন। মাসিক ৩৫ হাজার টাকা পেনশন পান। নবীনের স্ত্রী ১০ বছর আগে মারা গিয়েছেন। পরিবারে বর্তমানে চার সদস্য থাকলেও বাড়িতে শুধুমাত্র নবীনকেই দেখতে পেতেন পড়শীরা।
নবীনই বাজার সদাই সব করতেন। কিন্তু তার ছেলেমেয়েদের বাইরে কেউ বেরোতে দেখতেন না। নবীনের বড় ছেলে ওকালতি করছিলেন। ছোট ছেলে বছর ঊনচল্লিশের। তিনি অর্থনীতিতে স্নাতক এবং মেয়ে সাইকোলজিতে স্নাতকোত্তর। প্রত্যেকেই উচ্চশিক্ষিত।
এক প্রতিবেশীর কথায়, নবীনকে প্রায়ই দেখা গেলেও তার ছেলেমেয়েদের চোখে পড়ত না। ভাবতাম হয়ত বাইরে পড়াশোনা বা চাকরি করছে। কিন্তু তারা যে নিজেদের ঘরবন্দি করে রেখেছেন, পাড়ার কেউই টের পাননি।
কৌতূহলবশত পাড়ারই এক ব্যক্তি রোববার (২৭ ডিসেম্বর) এক স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাকে জানায় যে, মেহতা পরিবারের বাকি সদস্যদের বহু দিন বাইরে বেরতে দেখা যাচ্ছে না। খবর পেয়েই কিসানপাড়ায় ওই সংস্থার কর্মীরা হাজির হন মেহতা বাড়িতে। তখন বাড়িতে নবীন ছিলেন না। দরজা ধাক্কাধাক্কি করে না খোলায় শেষ পর্যন্ত ভেঙে ঢোকেন ওই সংস্থার কর্মীরা।
ঘরে ঢুকতেই কটু গন্ধ পান তারা। দেখেন চার দিকে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে মল-মূত্র, পঁচা খাবার, আধখাওয়া খাবার। আর মেঝেতে পড়ে রয়েছেন কঙ্কালসার তিনটি মানুষ। গায়ে কোনও পোশাক ছিল না তাদের। তাদের মধ্যে দু’জন পুরুষ এবং এক জন নারী।
সমাজসেবী সংস্থার কর্ণধার জানান, দু’জন পুরুষের চুল বেড়ে হাঁটু পর্যন্ত পৌঁছে গিয়েছিল। দাড়ি বেড়ে যাওয়ায় মুখটাই ঠিক করে বোঝা যাচ্ছিল না।
নবীন জানান, ১০ বছর ধরে নিজেদের ঘরে বন্দি করে রেখেছিল ছেলেমেয়েরা। বার বার ওদের বোঝানোর চেষ্টা করেও লাভ হয়নি।
কিন্তু কেন এ ভাবে নিজেদের ঘরবন্দি করলেন তারা? এ প্রসঙ্গে নবীনের দাবি, ১০ বছর আগে তার স্ত্রী মারা গিয়েছিল। প্রচন্ড আঘাত পেয়েছিল ছেলেমেয়েরা। তার পর হঠাৎই নিজেদের ঘরবন্দি করল।
স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার কর্ণধার জানিয়েছেন, উদ্ধার হওয়া এই পুরুষ এবং নারী কেউই মানসিক ভাবে ভারসাম্যহীন নন। তাদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।
সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা।

Facebook Comments Box


Posted ৭:২৬ অপরাহ্ণ | সোমবার, ২৮ ডিসেম্বর ২০২০

ajkerograbani.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০