• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    ধর্ষণের বিচার চাওয়া শিশুকে ফের ধর্ষণ!

    অনলাইন ডেস্ক | ২১ মে ২০১৭ | ৭:১৩ অপরাহ্ণ

    ধর্ষণের বিচার চাওয়া শিশুকে ফের ধর্ষণ!

    সিলেট কানাইঘাট উপজেলায় চাচাতো ভাইসহ কয়েকজন ১২ বছর বয়সী এক শিশুকে ধর্ষণ করে। শিশুটির বাবা এর বিচার চাইতে এক লন্ডন প্রবাসীর কাছে গেলে তিনিও শিশুটিকে ধর্ষণ করেন। শিশুটির বাবা এ অভিযোগ করেছেন।


    এ ঘটনায় গতকাল শনিবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে বিয়ানীবাজারের দিলগ্রামে অভিযান চালিয়ে সারোয়ার আহমেদ (৩৫) নামের ওই লন্ডন প্রবাসীকে আটক করে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)।

    ajkerograbani.com

    র‍্যাব জানিয়েছে, প্রবাসীর বাড়িতে আটকে রাখা নির্যাতিত ওই শিশুকে উদ্ধার করা হয়েছে। তাকে এখন সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) ভর্তি করা হয়েছে।

    নির্যাতিতা শিশুর পরিবারের সদস্যরা জানান, কানাইঘাট উপজেলার এক দরিদ্র বাবার ছোট মেয়ে ওই শিশুটি। ওই পরিবারের বড় ছেলেকে একটি হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়। এর পর এলাকার কয়েকজন প্রভাবশালী ব্যক্তির চাপে ওই শিশুর বাবা-মা ও ছোট ভাই গ্রাম ছাড়া হন। তাঁরা গিয়ে আশ্রয় নেন লন্ডন প্রবাসী সারোয়ার আহমেদের বাড়িতে। তবে ১২ বছর বয়সী মেয়েকে গ্রামে তাঁর চাচার কাছে রেখে যান।

    গতকাল শনিবার রাতে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টারের সামনে ওই শিশুর বাবা বলেন, ‘কয়েক দিন পরই ভাইয়ের ছেলে কৌশলে আমার মেয়েকে একটি পরিত্যক্ত বাড়িতে ডেকে নিয়ে যায়। সেখানে উপজেলার ছোটফৌজ গ্রামের একজন এবং নারাইনপুর গ্রামের আরেকজনকে নিয়ে ভাইয়ের ছেলে মেয়েকে ধর্ষণ করেন। পরে তারা আরো বেশ কয়েক দিন আমার মেয়ের ওপর পাশবিক নির্যাতন চালায়।’

    শিশুর বাবা আরো বলেন, ‘একপর্যায়ে মেয়ে কৌশলে বিষয়টি আমাকে জানায়। এরপর গত ২৭ এপ্রিল মেয়েকেও প্রবাসী সারোয়ারের বাড়িতে নিয়ে যান। তখন আমার মেয়ে পাশবিক নির্যাতনের সব ঘটনা তার মাকে খুলে বলে।’

    আজ রোববার দুপুরে র‍্যাবের পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, শিশুকে যৌন নির্যাতনের বিষয়টি জানতে পেরে তার বাবা প্রবাসী সারোয়ারের সাহায্য চান। পরে সারোয়ার ২৯ এপ্রিল শিশুটিকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে চিকিৎসকরা শিশুটির ওপর যৌন নির্যাতনের প্রমাণ পান। শিশুর চিকিৎসা শেষে গত ৩০ এপ্রিল থানায় অভিযোগ দায়েরের পরামর্শ দেওয়া হয়। কিন্তু অভিযোগ দায়ের করার ক্ষেত্রে বাঁধ সাধেন সারোয়ার। তিনি মেয়েটিকে তাঁর বাড়িতে ফিরিয়ে নিয়ে যান।

    সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরো উল্লেখ করা হয়, কয়েক দিন পরে সারোয়ার ওই শিশুকে যৌন নির্যাতন করেছেন বলে সে তার মাকে জানায়। পরে বিষয়টি সারোয়ারের মা ও স্ত্রীকে জানানো হয়। এ নিয়ে তাঁদের পারিবারিক কলহ দেখা দেয়। সারোয়ার স্ত্রীকে তাঁর বাবার বাড়িতে পাঠিয়ে দেন। এরপর তিনি শিশুটিকে রেখে দেন তাঁর নিজ ঘরে। শিশুটিকে নিয়ে তাঁর বাবা-মা ওই বাড়ি থেকে যেতে চাইলে তাদের ওপরও নির্যাতন চালান সরোয়ার। পরে নির্যাতনের মাত্রা বেড়ে যাওয়ায় মেয়েটিকে রেখেই পালিয়ে যান তার বাবা-মা।

    র‌্যাব ৯-এর কোম্পানি কামান্ডার মুনির আহমেদ বলেন, নির্যাতিত শিশুর বাবা বিষয়টি র‌্যাব ৯-এর কার্যালয়ে জানান। অভিযোগ পেয়ে গত রাতে বিয়ানীবাজার উপজেলার দিলগ্রামে সরোয়ারের বাড়িতে অভিযান চালায় র‍্যাব। পরে সারোয়ারের পাশের কক্ষ থেকে শিশুটিকে উদ্ধার করা হয়।

    মুনির আহমেদ জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে শিশুটিকে যৌন নির্যাতনের প্রমাণ পাওয়া গেছে। শিশুকে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ওসিসিতে ভর্তি করা হয়েছে।

    Facebook Comments Box

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4757