বৃহস্পতিবার ২৯শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৪ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম >>
শিরোনাম >>

নগরকান্দায় ম্যাজিস্ট্রেট আসার খবরে পালিয়েছে ডিলার, আটক ১

সাইফুল ইসলাম, ফরিদপুর প্রতিনিধি   |   সোমবার, ২০ এপ্রিল ২০২০ | প্রিন্ট  

নগরকান্দায় ম্যাজিস্ট্রেট আসার খবরে পালিয়েছে ডিলার, আটক ১

ফরিদপুরের নগরকান্দা উপজেলার রামনগর ইউনিয়নের কুঞ্জনগর বাজারে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির আওতায় অতিদরিদ্রদের মাঝে ১০ টাকা কেজি মূল্যে ৩০ কেজি করে চাল বিতরণে ওজনে কম দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ডিলার ছরোয়ার ছরোয়ার হোসেন মোল্যা নির্ধারিত চালের বস্তা খুলে এবং বস্তা ছিদ্র করে প্রতিবস্তা থেকে ২ থেকে ৪ কেজি চাল সরিয়ে নিয়েছে বলে জানা গেছে। ডিলার ছরোয়ার হোসেন মোল্যা এলাকায় প্রভাবশালী হওয়ায়, দীর্ঘদিন ধরে চাল ওজনে কম দিলেও হতদরিদ্ররা কোনো অভিযোগ বা প্রতিবাদ করার সাহস পায়নি।
জানা গেছে, রোববার (১৯ এপ্রিল) দুপুরে উপজেলার রামনগর ইউনিয়নের কুঞ্জনগর বাজারে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ডিলার ছরোয়ার হোসেন মোল্যার চালের গুদামঘরে গিয়ে এর সত্যতা পেয়েছেন নগরকান্দা উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভুমি) আহসান মাহমুদ রাসেল। এ সময় সেখানে রামনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল কুদ্দুস ফকির, নগরকান্দা থানার পুলিশ, স্থানীয় গ্রাম পুলিশ, খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির সুবিধাভোগী অর্ধশতাধিক হতদরিদ্র ব্যক্তি ও স্থানীয় সংবাদকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। এসময় ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতি টের পেয়ে ডিলার ছরোয়ার হোসেন মোল্যা পালিয়ে যায়। তার মুঠো ফোনে বারবার কল দেয়া হয়, তবে তিনি কল রিসিভ করেননি। পরে তিনি ফোন বন্ধ করে রাখেন। পুলিশ তার বাড়িতে গিয়েও তাকে পায়নি। এ ঘটনায় ছরোয়ারের গুদামঘর থেকে গজগা গ্রামের তৈয়াব তপাদারের ছেলে নুরু তপাদারকে আটক করেছে পুলিশ।
২০১৬ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হতদরিদ্রদের একটি কর্মসূচি উদ্বোধন করেন। এরই নাম “খাদ্যবান্ধব কর্মসূচি”। এই কর্মসূচির স্লোগান- “শেখ হাসিনার বাংলাদেশ, ক্ষুধা হবে নিরুদ্দেশ”।
স্থানীয়রা ও একাধিক ভুক্তভোগী জানান, নগরকান্দা উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির আওতায় ডিলারদের মাধ্যমে অতিদরিদ্রদের মাঝে ১০ টাকা কেজি দরে জনপ্রতি ৩০ কেজি চাল বিতরণ করছে সরকার। খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির আওতায় নগরকান্দা উপজেলার রামনগর ইউনিয়নে দুইটি ডিলারের মাধ্যমে চাল বিতরণ করা হচ্ছে। এ ইউনিয়নে মোট ১হাজার ২টি কার্ড বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির শুরু থেকে এ পর্যন্ত কুঞ্জনগর বাজারের ডিলার ছরোয়ার হোসেন মিয়া ৫০১ টি কার্ডের চাল বিতরণ করছেন এবং গোপালপুর বাজারের ডিলার সহিদ হোসেন ৫০১টি কার্ডের চাল বিতরণ করছেন। তবে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির শুরু থেকেই ডিলার ছরোয়ার হোসেন মিয়া বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে চাল ওজনে কম দিয়ে বিতরণ করছেন বলে একাধিক অভিযোগ পাওয়া গেছে। খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির শুরুর দিকে, তিনি প্লাস্টিকের বালতি দিয়ে চাল মেপে দিতেন। একজনকে ৩০ কেজি চাল দিতে মোট দুই বালতি চাল দিতেন। এতে প্রতি বালতিতে দেড় কেজি করে চাল কম দিয়ে জনপ্রতি মোট ৩ কেজি চাল কম দিতেন। তবে ডিলার ছরোয়ার হোসেন মোল্যা এলাকায় প্রভাবশালী হওয়ায় হতদরিদ্ররা অভিযোগ করতে বা প্রতিবাদ করতে সাহস পায়নি। বর্তমানে ৩০ কেজির নির্ধারিত বস্তায় চাল দিচ্ছেন সরকার। গোডাউন থেকে সঠিক মাপে চাল দেয়া হচ্ছে। তবে ডিলার ছরোয়ার হোসের বস্তা খুলে এবং বস্তায় ছিদ্র করে প্রতি বস্তা থেকে ২ থেকে ৪ কেজি চাল সরিয়ে নিচ্ছে। এ কারনে এই ডিলারের প্রতিটি চালের বস্তায় ওজনে ২ থেকে ৪ কেজি চাল কম রয়েছে।
রামনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল কুদ্দুস ফকির বলেন, “রোববার দুপুরে খবর পেয়ে আমি ছরোয়ারের গুদামঘরে যাই। সেখানে গিয়ে সহকারী কমিশনার (ভুমি) আহসান মাহমুদ রাসেল স্যারকে দেখতে পাই। চাল ওজনে কম দেয়ার ব্যাপারে, দীর্ঘদিন ধরে হতদরিদ্ররা অভিযোগ করে আসছে।”
এ ব্যাপারে সহকারী কমিশনার (ভুমি) আহসান মাহমুদ রাসেল বলেন, “রোববার দুপুরে রামনগর ইউনিয়নের কুঞ্জনগর বাজারে ডিলার ছরোয়ার হোসেন মোল্যার গুদামঘরে গিয়ে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির চাল প্রতিবস্তায় ২ থেকে ৪ কেজি করে ওজনে কম পাওয়া ঘেছে। তবে এ সময় ডিলারকে পাওয়া যায়নি। গুদামঘরের কর্মচারী নুরু তপাদারকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করে, তাকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। ডিলারের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে, ইউএনও স্যারকে জানিয়েছি।”
নগরকান্দা উপজেলা নির্বাহী অফিসার জেতী প্রু বলেন, “রামনগর ইউনিয়নের কুঞ্জনগর বাজারে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির চাল ওজনে কম দেয়ার অভিযোগ পেয়েছি। এ ব্যাপারে আইনগতভাবে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।”

Facebook Comments Box


Posted ৭:১২ অপরাহ্ণ | সোমবার, ২০ এপ্রিল ২০২০

ajkerograbani.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১