• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    নিজের মামলা নিজেই লড়ছেন জেএমবি সদস্য সাইফুল

    অনলাইন ডেস্ক | ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭ | ৭:৪৫ অপরাহ্ণ

    নিজের মামলা নিজেই লড়ছেন জেএমবি সদস্য সাইফুল

    কারাগার থেকে আইন শিখে জঙ্গি সংগঠন জামাআতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের (জেএমবি) সদস্য সাইফুল ইসলাম এখন নিজের মামলা নিজেই পরিচালনা করেন।


    সোমবার দুপুরে একটি বিস্ফোরক আইনের মামলায় গাজীপুর কারাগার থেকে নারায়ণগঞ্জ আদালতে তাকে হাজির করা হয়।


    এরপর আদালতে আইনের ব্যাখ্যা দিয়ে ১৩টি যুক্তি তুলে ধরে নিজেকে নির্দোষ দাবি করেন সাইফুল ইসলাম।

    নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ দ্বিতীয় আদালত ও বিশেষ ট্রাইব্যুনাল-৭-এর বিচারক মোসাম্মাৎ কামরুন নাহারের আদালতে সাইফুল ইসলাম আড়াই ঘণ্টা যুক্তি উপস্থাপন করেন।

    আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর (এপিপি) জাসমীন আহমেদ জানান, বন্দর থানায় র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) দায়ের করা একটি বিস্ফোরকদ্রব্য আইনের মামলায় জেএমবি সদস্য সাইফুল ইসলামের বিরুদ্ধে যুক্তিতর্ক অনুষ্ঠিত হয়েছে। আদালত এ বিষয়ে আরও শুনানির জন্য ১১ অক্টোবর দিন ধার্য করেছেন।

    সাইফুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, আমি নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলার বিএম ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ে সপ্তম শ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়া করেছি। আইনকানুন সম্পর্কে আমার কিছুই জানা নেই। ১১ বছর যাবৎ কারাগারে বন্দি রয়েছি। এর মধ্যে টাঙ্গাইলের একটি মামলায় আমাকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে এবং নারায়ণগঞ্জে দুটি মামলায় ১৫ ও ২০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে।

    তিনি জানান, অনেক কিছুই কারাগারে দেখেছি। বর্তমান শেখ হাসিনার সরকার কারাবন্দিদের জন্য আইনি সহযোগিতা পাওয়ার সুযোগ করে দিয়েছে। কারাগারে বসে চাইলেই সহজে মামলার নথিপত্র হাতে পাই। আইনকানুন না বুঝলে কারাগারের পক্ষ থেকে বুঝিয়ে দেয়া হয়। তাই কারাগারের সহযোগিতায় এখন নিজের মামলা নিজেই পরিচালনা করছি।

    সাইফুল ইসলাম বন্দর উপজেলার ফরাজীকান্দার সরদার বাড়ির মৃত কামালউদ্দিনের ছেলে।

    আদালত সূত্রে জানা যায়, র‌্যাব সদর দপ্তরের গোয়েন্দা বিভাগের মেজর আতিকুর রহমানের নেতৃত্বে একটি দল ২০০৬ সালের ২৯ ডিসেম্বর টাঙ্গাইল জেলার বায়না বাইপাস সড়কে বিপুল পরিমাণ আগ্নেয়াস্ত্র, গুলিসহ জেএমবি সদস্য সাইফুলকে গ্রেফতার করে।

    সাইফুলের দেয়া তথ্যানুসারে, তাকে নিয়ে র‌্যাব সদস্যরা ২০০৭ সালের ৭ জানুয়ারি রাতে নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলার ফরাজীকান্দায় মাহবুবের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে ২১টি দেশে তৈরি হ্যান্ডগ্রেনেড, পাওয়ার জেল ও তিনটি জিহাদি বই উদ্ধার করে।

    Facebook Comments

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫
    ১৬১৭১৮১৯২০২১২২
    ২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
    ৩০৩১  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4673