• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    নুসরাতের ‘আল্লাহ মেহেরবান’ গানটি সরাতে আইনি নোটিশ

    অগ্রবাণী ডেস্ক | ২৮ মে ২০১৭ | ৩:১৪ অপরাহ্ণ

    নুসরাতের ‘আল্লাহ মেহেরবান’ গানটি সরাতে আইনি নোটিশ

    প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জাজ মাল্টিমিডিয়ার ব্যানারে নির্মিত মুক্তি প্রতীক্ষিত ছবি ‘বস- টু’ এর ‘আল্লাহ মেহেরবান’ গানটি সামাজিক মাধ্যমে প্রকাশের পর থেকেই জোর সমালোচনা চলছে। এবার এই গানটি বন্ধ করার জন্য এবং ইউটিউব থেকে তিনদিনের মধ্যে সরিয়ে ফেলার জন্য আইনি নোটিশ দেওয়া হয়েছে।


    আজ রোববার দুপুরে ডাকযোগে জাজ মাল্টিমিডিয়াকে আইনি নোটিশটি পাঠিয়েছেন সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট আলফে সানি।

    ajkerograbani.com

    একইসঙ্গে সংস্কৃত মন্ত্রণালয় সচিব, তথ্যসচিব, এফডিসির পরিচালক সমিতির সভাপতি ও সেন্সরবোর্ডের কাছেও এই চিঠি দেওয়া হয়েছে। চিঠিতে ছবিটি প্রকাশ পেলেও গানটি যাতে কোনমতেই প্রকাশ না পায় সে বিষয়ে পদক্ষেপ নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

    আইনজীবী আলফে সানি আমাদের সময়কে বলেন, তিনদিনের মধ্যে গানটি সরিয়ে না ফেললে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

    উল্লেখ্য, শুক্রবার প্রকাশ পেয়েছে জিৎ-নুসরাত ফারিয়ার ‘আল্লাহ মেহেরবান’ গানটি। গানটি মুক্তির ২৪ ঘন্টা আগেই সমোলোচনার ঝড় তোলে নেট দুনিয়ায়। গত বৃহস্পতিবার ফেসবুকে এটি মুক্তির আগাম খবর জানায় প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জাজ মাল্টিমিডিয়া। যেখানে গানের শিরোনামের সঙ্গে নুসরাত ফারিয়ার বেশ খোলামেলা একটি ছবি সংযুক্ত ছিল।

    সমালোচনার সেই আগুনে ঘি পড়েছে গানটির ভিডিও প্রকাশের পর থেকে। যেখানে গানের শিরোনাম, কথা অথবা ভাবধারার সঙ্গে ফারিয়ার খোলামেলা উপস্থিতি দারুণ সাংঘর্ষিক বলেই মনে করছেন বেশিরভাগ সিনেমাপ্রেমী ও সমালোচক। গানটির সঙ্গে জিৎ-এর কালো কাবলি-পাগড়ি-ড্রেসআপ এবং উপস্থিতি একেবারেই স্বাভাবিক অথবা মার্জিত। ফলে গানটিতে বাংলাদেশের মেয়ে নুসরাত ফারিয়ার এমন খোলামেলা উপস্থিতি কতটা প্রাসঙ্গিক আর কতটা উদ্দেশ্যমূলক- সেটি নিয়েও প্রশ্ন তৈরি হয়েছে প্রচুর। এ নিয়ে সমালোচনা শুরু হয়েছে বিভিন্ন মহল থেকে।

    গানটি প্রসঙ্গে ঢাকাই চলচ্চিত্রের স্বনামধন্য নৃত্যপরিচালক মাসুম বাবুল বলেন, ‘আল্লাহ মেহেরবান কথার সঙ্গে আমাদের একটা ভক্তি আসে। কিন্তু এই গানে শালীনতা, ভক্তি কোথায়? এখানে তো ছোট কাপড় পরে দেহ দোলানো হচ্ছে। ধর্মীয় বিচারে এমন নাচ, এমন কথার সঙ্গে কোনোভাবেই যায় না। এটি বেমানান। আমি মনে করি, চলচ্চিত্র নির্মাণের সঙ্গে আমাদের কৃষ্টিকালচার রক্ষা করা আমাদের দায়িত্ব, কিন্তু আমার মনে হচ্ছে কেউ কেউ আমাদের কালচার নষ্ট করার জন্য বেশ কয়েক বছর ধরেই কাজ করছে, এই গানটি তারই অংশ।’

    চলচ্চিত্রের আরেকজন নৃত্যপরিচালক জাকির হোসেন বলেন, ‘আমি বিষয়টির তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। কারণ ‘আল্লাহ মেহেরবান’ শব্দের সঙ্গে ছোট পোশাকে অর্ধ উলঙ্গ হয়ে নাচ কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। ছবিতে এর আগেও আল্লাহর নাম নিয়ে গান হয়েছে। কিন্তু সেখানে পোশাকের মধ্যে অশ্লীলতা করা হয়নি। কিন্তু এমন স্বল্প বসনে, অশ্লীল ভঙ্গিতে কেউ আল্লাহর নাম নিতে পারে তা আমরা চিন্তাও করতে পারি না।’

    গানটি ইউটিউবে আসার পরই তুমুল সমালোচনার ঝড় শুরু হয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে। অনেকে নুসরাত ফারিয়াকে গালিগালাজ করতেও ছাড়েননি। দু’একজন অবশ্য নায়িকার পক্ষ নিলেও অন্যরা নায়িকার পাশাপাশি তাদেরকেও ‘শুলে’ চড়াচ্ছেন। জাজ মাল্টিমিডিয়ার ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশিত গানটির নিচে রীতিমতো কথার যুদ্ধ শুরু হয়ে গেছে। চলছে গালি-গালাজ।

    শিপু রাজ নামের একজন লিখেছেন, ‘গানের নাম দিয়েছে ‘‘আল্লাহ মেহেরবান’’। আল্লাহকে নিয়ে গান বানিয়ে গানের মধ্যে সম্পূর্ণ অশ্লীলতা। কুলাঙ্গারের বাচ্চারা কবে মানুষ হবি? মানুষ রোজা রেখে কি তোদের এসব কর্মকাণ্ড দেখবে?’

    জিহান রহমান লিখেছেন, ‘কেবল ডিসলাইক মারতে থাকো এই গানে, না হলে শুয়ো.. বাচ্চারা আরও প্রশ্রয় পাবে এমন ভিডিও বানানোয়।’

    মি. ম্যাঙ্গে লিখেছেন, ‘জুতা দিয়া পিটানোর দরকার। আল্লাহকে নিয়া নষ্টামি গান করিস, এটা কি ফিইজলামি? এমন আইটেম সং বানায় কোন সাহসে?’

    FAIZUL ISLAM লিখেছেন, ‘আল্লাহর নামে এমন বেহায়া গান করা একদম ই ঠিক হয়নি। আমরা এর ব্যাপারে চলুন প্রতিবাদ জানাই ‘

    এসময় Charizard নামের এক আইডি থেকে একজন গানের পক্ষ নিয়ে একটি বিতর্কিত মন্তব্য করলে হৃদয়ে বাংলাদেশ নামের আরেকটি আইডি থেকে বলা হয়, ‘ছারিজাড ঢাকাতে আয় দেখি তোর কত সাহস?’

    Abdul Quddus লিখেছেন, ‘ছিঃ ধিক্কার জানাই Jaaz Multimedia কে -(আল্লাহ্ মেহেরবান) আল্লাহ্ নাম গেয়ে অর্ধ-নগ্ন হয়ে আইটেম গান বানায় ,
    অশ্লীলতায় ভাসছে সমাজ সাথে ভাসছি আমরাও – । এমন একটি মুসলিম দেশ এ – নাউজুবিল্লাহ। এই বেহায়াপনা, অশ্লীল কুরুচিপূর্ণ নাচ গানের মানে কি! এই গানটি ছবিতে নিষিদ্ধের জোর দাবি জানাই ’

    Hasibul Islam লিখেছেন, ‘নুসরাতের কমনসেন্স নাই। টাকার জন্য বে..গিরিও করবে হয়ত।’

    sabbir ahmad লিখেছেন, ‘এই বেয়াদবির শাস্তি হওয়া দরকার।’

    Sujan Talukdar লিখেছেন, ‘যারা শোভিজ অঙ্গনে কাজ করে তাদের চরিত্র নিয়ে কথা বলে লাভ নেই,তারা সব পারে।কিন্তু যেই হারা… বাচ্চা পরিচালক এই কাজ করছে তাকে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেয়ায় বিচারের আওতায় আনা হোক।’

    গানটির নিচে এমন অসংখ্য মন্তব্য-পাল্টা মন্তব্যে ভরে উঠছে। ক্রমশঃ তা বাড়ছে। এসব কমেন্টে গানটির বিপক্ষেই অবস্থান নিয়েছেন অধিকাংশরা।

    Facebook Comments Box

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4757