• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    পরিচ্ছন্ন গানের গীতিকবি ইব্রাহীম খলিল ইবু

    হাবিব মোস্তফা | ০৪ জুলাই ২০১৭ | ৩:০০ অপরাহ্ণ

    পরিচ্ছন্ন গানের গীতিকবি ইব্রাহীম খলিল ইবু

    সময়টা নব্বই দশকের মাঝামাঝি,ব্যান্ডের তখন হই হই কান্ড-রই রই ব্যাপার। আকাশে বাতাসে বাজছে এলআরবি, প্রমিথিউজ, ফিলিংস, মাইলস ব্যান্ডের গান।তরুণ শ্রোতা ইবু তখন সবে উচ্চ মাধ্যমিক স্কুলের গন্ডি পেরুলেন।রক্তে শিহরণ জাগতো তাদের গান শুনে, ভাবতেন যদি আমিও গাইতে পারতাম!সেই স্বপ্নের ঘোরে গিটার শিখতে শুরু করলেন গান পাগল এই কিশোর।পাশাপাশি কবিতা লেখার হাত ছিল তার, মনের অজান্তে গান লিখার সাঁধ জাগল মনে।একটা দুটা গান লিখলেন সাহস করে।সাহসের ডানায় ভর করে তার ভালোবাসার আশ্রয় কণ্ঠশিল্পী এফ এ সুমনকে দেখালেন তার গান।এফ এ সুমনের উৎসাহে তার ভিতরের ছাইচাপা আগুন প্রকাশ পেল। তারই প্রবাহে ১৯৯৮ সালে তার লেখা ‘নষ্ট জীবন’ শিরোনামে গান গাইলেন এফ এ সুমন। তারপর ‘মেয়ে জানো কি’ শিরোনামের একক এলবামের ‘ক্লান্ত পথিক’, ‘ফেরারী’ সহ মোট নয়টি গান লিখার মধ্য দিয়ে হাত পাকালেন ইবু। আরমিন সুমনের জন্য পরপর দুইটি এককের গান লিখলেন তিনি।এরপর এফ এ সুমনের সখিরে, দরদীয়া, দূরবীন ওয়ালা, তোর লাগিরে জীবন, গিটার, জাখমি আশিক গানগুলোর মধ্য দিয়ে গীতিকার ইবু সর্ব মহলে একজন পরিচ্ছন্ন-জনপ্রিয় গীতিকার হিসেবে প্রতিষ্ঠা পান। এরই মধ্যে গান লিখেন পলাশ, এফ এম তারেক, কিশোর পলাশ আরজে রাজু, অভি, রাজীব শাহ, এহসান রাহি, বাবলু শাহ সহ বাংলাদেশের প্রায় সকল তারকা শিল্পীদের জন্য।
    *প্রিয় এই গীতিকার প্রতিদানের আশা ব্যতি রেখে নিরন্তর গান লিখে যাচ্ছেন, গানকে তিনি কখনোই পণ্য মনে করেন না।
    *অবশ্যই নিজের ভাল লাগা থেকে গান করেন। তাই পছন্দের শিল্পীর কথা মাথা রেখেই গানের কথা সাজান তিনি।শ্রোতাদের ভাললাগা, মন্দলাগা প্রতিও তার দায়বদ্ধতা রয়েছে।বাজে লিরিকের গান লেখাকে তিনি একটি সামাজিক অপরাধ মনে করেন।বাজে কথার লিরিক জনপ্রিয় হবার পেছনে তিনি শ্রোতাদের বেশী দায়ী করেন। কারন শ্রোতারা যদি এ ধরনের গান না শুনেন, তবে শিল্পীরাও এ ধরনের গান গাইতে সাহস করবেনা।
    * এ প্রজন্মের সব শিল্পীদের গানই তিনি শুনেন, তাদের গানের বাণী নিয়ে গবেষণা করেন, ভালোকে স্বানন্দে গ্রহন করেন, মন্দকে বর্জন করেন।
    *গান লেখার যোগ্যতা হিসেবে তিনি প্রথমত নিজের ভিতরে জীবন সমন্ধে গভীর উপলব্দির কথা বলেন। জীবন সম্পর্কে অস্পষ্ট ধারনা নিয়ে কখনো ভাল গান লেখা যায়না। তারপর তিনি বলেন, একজন আদর্শ গীতিকারকে প্রচুর গান শোনতে হবে।আত্মপ্রেমে ডুবে থাকা অহংকারী মানুষ কখনো ভাল গীতিকার হতে পারেনা। গীতিকারকে অবশ্যই দিলখোলা-আত্মভোলা হতে হবে।
    *সংগীত ব্যক্তিত্বদের শেষ জীবনের দু:খজনক পরিণতির জন্য তিনি তাদের বেহিসেবী-উশৃঙ্খল জীবনাচরণকে দায়ী করেন।মানবিক মূল্যবোধের ধারণ-লালন না থাকলে মানুষ কোন ক্ষেত্রেই তার সম্মান ধরে রাখতে পারবেনা বলে ইবু মনে প্রাণে বিশ্বাস করেন। তাই জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে মানবিক মূল্যবোধের বিকাশ সাধনে সচেষ্ট থাকার জন্য অনুরোধ জানান তিনি।
    *সংগীতাঙ্গনে বিরাজমান অস্থিতিশীলতার বিষয়ে তিনি বলেন, এ কথা অস্বীকার করার কোন সুযোগ নেই অনেকটা সময় ধরে শুদ্ধ গানের বড় আকাল যাচ্ছে।হতাশায় কেউ কেউ তাদের পেশাও পরিবর্তন করেছেন। তবে আমি সব সময় আশার কথা বলতে, আলোময় সকালের স্বপ্ন দেখতে পছন্দ করি। আমার বিশ্বাস অতি অল্প সময়ে সংগীতাকাশে মেঘ মুক্ত সূর্য উঁকি দেবে।
    *গান লেখার পাশাপাশি ইব্রাহীম খলিল ইবু এলবাম আয়োজনের মত চ্যালেঞ্জিং কাজে হাত দিয়েছেন সম্প্রতী।তারা চারজন তরুন মিলে একটি দল গঠন করেছেন । তাদের প্রথম কাজ ‘পরিচয়’ । এই ‘পরিচয়’ মিক্সড এর সাফল্যের ধারাবাহিকতায় সম্প্রতী তাদের দ্বিতীয় কাজ ‘প্রণয়’ শিরোনামের আরেকটি বড় বাজেটের তারকাবহুল মিক্সড এলবাম প্রকাশিত হল। ভাল সাড়া পাচ্ছেন বলে জানালেন তিনি। বর্তমানে একাধিক মিক্সড এলবামের কাজ করছেন বলে সুখবর জানালেন।


    প্রিয় এ গীতিকারের জন্য অনেক অনেক শুভকামনা।

    ajkerograbani.com

    Facebook Comments Box

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4757