• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    প্রদীপ কুমার বিশ্বাস’র কণ্ঠে রবীন্দ্রসঙ্গীত “আনন্দলোকে”

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১ | ১২:৩২ অপরাহ্ণ

    প্রদীপ কুমার বিশ্বাস’র কণ্ঠে রবীন্দ্রসঙ্গীত “আনন্দলোকে”

    শ্রী প্রদীপ কুমার বিশ্বাস, পেশায় একজন প্রকৌশলী, তিনি সহ-প্রতিঋত্বিক।তার পিতা-স্বর্গীয় ফণী ভূষণ বিশ্বাস,মাতা- জোৎস্না রানী বিশ্বাস,”বিশ্বাস ভবন”,মন্দির সড়ক,সীতাকুণ্ড,চট্টগ্রাম,বাংলাদেশ।তিন ভাই-শ্রী দুলাল কান্তি বিশ্বাস,শ্রী মৃণাল কান্তি বিশ্বাস ও শ্রী প্রদীপ কান্তি বিশ্বাস।দুই বোন-স্বর্গীয় লতিকা রানী রুদ্র ও মঞ্জুশ্রী বিশ্বাস। পারিবারিক -সামাজিক-সাংস্কৃতিক বলয়ে ক্ষুদে শিশুশিল্পী থেকে বেড়ে ওঠা নাম প্রদীপ বিশ্বাস।


    ছাত্র ও কর্মজীবনে সংগীতানুরাগী।শুভানুধ্যায়ীদের প্রচণ্ড ভালোবাসার ফলশ্রুতিতে উনিশ’শ সাতাত্তর সাল থেকে ক’টা বছর বাংলাদেশ বেতার চট্টগ্রাম-এ ‘ রবীন্দ্র সংগীত’পরিবেশন ও পরম শ্রদ্ধেয় উস্তাদ নিরোদ বরণ বড়ুয়া,সংগীত বিশারদ(বম্বে)এর স্নেহসিক্ততায় শাস্ত্রীয় সংগীত শিক্ষা এক মহা প্রেরণার উৎস।

    ajkerograbani.com

    ১৯৮৪ সালে কর্মজীবন টেনে নিয়ে যায় মধ্যপ্রাচ্যে।উত্তপ্ত বালির চড়া গরম হতে হতে আমার হৃদয়বসন্ত নিঃশ্বেষিত না হতে মাতৃটানে ফিরে আসা।ফেলে আসা ক’টা উজান -ভাটেনে হারিয়েছি প্রিয় উস্তাদ- পিতা-মাতা-স্ত্রী-আত্মীয় ঘনিষ্ট পরিজন।

    ২০২০ সাল।’করোনা’য় স্তম্ভিত জীব ও জগৎ।দূর্যোগের ঘনঘটার মাঝে পাশে থেকে যিনি কয়েক শত গান ডাইরীতে লিপিবদ্ধ করে নিয়তই আমাকে ত্রুটিমুক্ত সংগীত সাধনায় অনুপ্রেরণা দিয়ে যাচ্ছিলেন,তিনি আমার বড় দিদি শিক্ষয়ত্রী লতিকা রানী রুদ্র সম্প্রতি পরমারাধ্য ইষ্টদেবতা’র শুভ জন্মদিবসে মঙ্গলদ্বীপ প্রজ্জ্বলনের পূর্বেই অপরপক্ষে ব্রাহ্মমূহূর্তে সব মায়া ত্যাগ ক’রে চলে গেলেন।
    স্মৃতিসমাদৃত প্রিয়জন হারানো ব্যথা বিধূরতায় কাতর প্রাণ।ভাব-ভাষা-সুরসংগীত লহরী সবই ম্লান,অন্তরাত্মা অতৃপ্তহৃদয় ক্ষত-বিক্ষত।দীর্ঘশ্বাসে কেঁদে বলে-‘যা হারিয়ে যায় সে আগলে ব’সে রইব কত কাল?’
    হা! ঈশ্বর!এ জীবনে অনেক পাওয়ার মাঝে তোমারই গান বুঝি হলো না গাওয়া!ঠিক সেই ক্রান্তিলগ্নে-‘হঠাৎ হাওয়ায় ভেসে আসা ধন!শুনি অপূর্ব আহ্বান।সে কি!
    অনুভবে নাড়ীছেড়া টান!
    যে যা বলুক লোকে তোমায় ছাড়ছি না ভাই।গাইতেই হবে।এই অকৃত্রিম ভালোবাসার টানে ঋণী ও কৃতজ্ঞতা পাশে আবদ্ধ হলাম স্বনামধণ্য সংগীত পরিচালক শ্রী লিটন দাশ, সহকর্মী শ্রীমতি লিপি মণ্ডলের কাছে মঙ্গলালোকের সন্ধানে- “আনন্দলোকে” যা উৎসর্গিত- স্বর্গীয় পিতা-মাতা-বড়দিদি’র উদ্দেশ্যে।স্মরণে- স্ত্রী শেলী বিশ্বাস ও ভ্রাতুষ্পুত্রী অমৃতা বিশ্বাস অমা।

    দ্রুটি ক্ষমাসুন্দর আশীর্ব্বাদান্তে-
    শুভানুধ্যায়ী হৃদয়ে বিন্দুমাত্র আলোর ছোঁয়ায় যদি তৃপ্ত হয় কারো প্রান,প্রদীপ্ত হয় কারো জীবন।অশেষ ধন্য হবো। স্বার্থক হবে অবেলায় রবীন্দ্র সংগীত গাওয়া।

    Facebook Comments

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২
    ১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
    ২০২১২২২৩২৪২৫২৬
    ২৭২৮২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4755