• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    প্রয়াত বাবাকে নিয়ে তিশার আবেগঘন স্ট্যাটাস

    অনলাইন ডেস্ক: | ০৬ জুলাই ২০১৭ | ১০:১৫ পূর্বাহ্ণ

    প্রয়াত বাবাকে নিয়ে তিশার আবেগঘন স্ট্যাটাস

    আব্বুকে খুব মনে পড়ছে এই ক’দিন। আব্বুর স্বপ্ন ছিল তার মেয়ে অনেক বড় শিল্পী হবে, সবাই সুনাম করবে। উনি বলতেন, আমি সবাইকে বলবো ‘আমার নাম তিশার বাবা’! ছোটবেলা থেকেই সারাক্ষণ আমার কানের কাছে এই কথাগুলো বলতে থাকত আব্বু। শুনতে শুনতে একসময় বিশ্বাস করতে শুরু করলাম ‘আমি পারব’!


    আবেগঘন কথাগুলো বলছেন অভিনেত্রী নুসরাত ইমরোজ তিশা। সোশাল মিডিয়া ফেসবুকে নিজের ফ্যানপেইজে এসব কথা বলেছেন তিশা।

    ajkerograbani.com

    প্রয়াত বাবা বেঁচে থাকলে খুশি হতেন উল্লেখ করে তিশা লিখেছেন, আজকে আমি বাংলাদেশের মানুষের প্রাণঢালা ভালোবাসা পেয়েছি এবং পাই। আমার আব্বু এই পর্যন্ত দেখলেই খুশিতে কেঁদে দিতেন। সেখানে এখন তার মেয়ের কাজের প্রশংসা করে এক সপ্তাহের মধ্যে পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ দুইটা পত্রিকা (দ্য হলিউড রিপোর্টার ও স্ক্রিন ডেইলি) দুইটা অসাধারণ রিভিউ লিখেছে। এর আগেও ভ্যারাইটি পত্রিকায় আমার কাজের প্রশংসা করে লিখেছিল।

    বাংলাদেশের একজন অভিনয় শিল্পীর জন্য যেটা বিরল, অভাবনীয়। এত বড় আন্তর্জাতিক প্লাটফর্ম থেকে আমাদের শিল্পীদের কাজ নিয়ে প্রশংসা বের হবে এটা তো এখনও ভাবা যায় না।

    তিশা লিখেছেন, আমি খুব কল্পনা করার চেষ্টা করছি এই দুইটা রিভিউ পড়লে আব্বু ঘরে ঢুকে কিভাবে তার ভালো লাগাটা বোঝাতেন! আব্বু কি কেঁদে দিতেন, মিটিমিটি হাসতেন? আমি জানি না। আমি শুধু জানি আব্বু সবকিছু দেখছে। এমনকি প্রতিদিন নামাজের পর আমি যে আব্বুর জন্য দোয়া করি সেটাও উনি শুনতে পান। এবং ওই জগতে তার বন্ধু বান্ধবদের বলেন, ‘দেখেন আমার মেয়ে আমার জন্য দোয়া করছে। এমনি এমনি কি আর বলি আমার নাম তিশার বাবা!’

    তিশার ফেসবুক স্টেটাস পড়ে ভক্তরাও আবেগ আক্রান্ত হয়ে পড়েন। ভক্তরাও তিশার স্ট্যাটাসের জবাব দেন।

    Facebook Comments Box

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4757