• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    বকেয়া বেতনের দাবিতে শ্রমিকদের সড়ক অবরোধ

    | ০৮ মার্চ ২০২১ | ৩:৩৮ অপরাহ্ণ

    বকেয়া বেতনের দাবিতে শ্রমিকদের সড়ক অবরোধ

    চাকরি স্থায়ী, বদলি ও মৃত শ্রমিকদের চূড়ান্ত বকেয়া বেতনের দাবিতে নরসিংদী ইউএমসি জুট মিলের শতাধিক বদলি শ্রমিক-কর্মচারী সড়ক অবরোধ করেছে। সোমবার (০৮ মার্চ) নরসিংদী সদরের পুরাতন বাসস্ট্যান্ড টু নাগরিয়াকান্দি সড়ক অবরোধ করেন তারা। সকাল ১১টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত চলে এই আন্দোলন। 


    শ্রমিকরা জানান, সরকার ২০২০ সালের ১ জুলাই মিলটির কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়। তারপর সেপ্টেম্বরের মধ্যেই সকল পাওনা টাকা পরিশোধের প্রতিশ্রুতি দেয় মিল কর্তৃপক্ষ। তারপর কেটে যায় অনেক দিন, কিন্তু পাওয়া টাকা পায়নি তারা। বারবার যোগাযোগ করে কোনো প্রতিকার না পেয়ে অবশেষ সোমবার আন্দোলনে নামেন শ্রমিকরা।

    ajkerograbani.com

    ২০১৯ সালের বকেয়া বিল, বদলি শ্রমিকের এরিয়া বিল, মৃত শ্রমিকদের মৃত দাবি, মহার্ঘ ভাতার বকেয়া বিল ও সমস্ত শ্রমিকদের বেতনাদির চূড়ান্ত হিসাব প্রদানসহ মোট ৯টি দাবিতে মিলগেটে সমবেত হন শ্রমিকরা। এই আন্দোলন যত দিন পর্যন্ত দাবি মানা না হবে তত দিন চলবে বলে জানিয়েছেন শ্রমিকরা।

    শাহাদাত হোসেন নামে এক শ্রমিক গত ২৬ বছর ধরে এই মিলে বদলি শ্রমিক হিসেবে কাজ করছেন। তিনি জানান, এখানে কাজ করে জীবন শেষ করে ফেলেছি। কিছু পেলাম না, গত বছর স্থায়ীভাবে মিল বন্ধ হওয়ার পর একেবারেই বেকার আমরা। কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে বিভিন্ন হিসেবে ১৭ লাখেরও বেশি টাকা পাই আমরা।

    রাজিয়া বেগম নামে একজন শ্রমিক জানান, আমি ১২ বছর ধরে এখানে কাজ করি। বকেয়া বেতনসহ বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে আমি প্রায় দুই লাখ টাকা পাওনা মিলের কাছ থেকে। আমি গরিব মানুষ আমার পাওনা টাকাগুলো চাই।

    মোর্শেদ আলম কাজ করছেন ২৫ বছর ধরে। গত বছরের জুলাইয়ের পর থেকে তিনিও বেকার। তিনি জানান, বড় বড় কর্মকর্তারা লাখ টাকা বেতন পাবেন, আর আমরা না খেয়ে মরব কেন? ২০১৯ এর পাঁচ সপ্তাহের বিল বকেয়া, আমাদের চাকরির স্থায়ী হয়নি, মহার্ঘ ভাতা দেয়নি, বেতনাদির সঠিক হিসাব পর্যন্ত প্রকাশ করেনি। আমরা প্রতিটা হিসাবের স্পষ্টতা চাই এবং পাওনা টাকা চাই।

    এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হয় ইউনাইটেড, মেঘনা চাঁদপুর জুট মিলের (ইউএমসি) জেনারেল ম্যানেজার শাহাদাত হোসেনের সঙ্গে। তিনি বলেন, স্থায়ী শ্রমিকদের টাকা আমরা পরিশোধ করেছি। অস্থায়ী বা বদলি প্রায় ২৯শ’ শ্রমিক রয়েছে। তাদের বেশকিছু বকেয়াও রয়েছে। আমরা সরকারের কাছে আবেদন করেছি এই বিষয়ে। টাকা পাইনি এখনও, টাকা পেলেই তাদের সকল পাওনা পরিশোধ করা হবে।

    হিসাবের খাতা প্রদর্শন করেছেন কি না এই বিষয়ে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, আসলে কত টাকা পাওনা তা বের করতে হলে খাতাপত্র ঘাঁটতে হবে। আমরা তাদের টাকা মেরে দেব না, সরকার টাকা দিচ্ছে না, না দিলে আমরা কীভাবে দেব?

    Facebook Comments Box

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4757