• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    বহুমুখী কর্মোদ্যোগী নারী হেলেনা জাহাঙ্গীর

    | ২৮ এপ্রিল ২০১৭ | ১০:২০ অপরাহ্ণ

    বহুমুখী কর্মোদ্যোগী নারী হেলেনা জাহাঙ্গীর

    বাংলাদেশের আর পাঁচটা সাধারণ পরিবারের মতই একটি পরিবারের স্কুল পড়ুয়া কিশোরী-হেলেনা। স্কুল জীবন শেষ করার আগেই এদেশের বহু মেয়েকেই বরণ করে নিতে হয় স্বামীর সংসার। হেলেনার জীবনও বাংলার এ সাধারণ মেয়েদের মতই। মাত্র অষ্টম শ্রেণীতে পড়া অবস্থাই বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার মাধ্যমে সংসার জীবনে পা রাখেন তিনি।


    অধিকাংশ ক্ষেত্রেই সংসার জীবনে নারীদের প্রবেশ মানেই শিক্ষা জীবনের ইতি ঘটানো। নিজের ক্যারিয়ারকে বিসর্জন দিয়ে স্বামী-সন্তান আর সংসার নিয়ে ব্যস্ত থাকা। কিন্তু কিশোরী হেলেনা সে দিকে এগুলেন না। নিজের অদম্য চেষ্টায় আর মানসিক শক্তির ওপর ভর করে সংসার সামলে পড়াশুনা ও ক্যারিয়ারকে সমানভাবে সামনে এগিয়ে নিয়ে গেলেন। শেষ করলেন গ্রাজুয়েশন। নিজের আগ্রহ ও সুপ্ত প্রতিভাকে কাজে লাগিয়ে গড়ে তুললেন নিজের শিল্প সাম্রাজ্য। সেদিনের কিশোরী হেলেনাই আজ ‘শিল্পপতি হেলেনা জাহাঙ্গীর’।

    ajkerograbani.com

    হ্যাঁ, বলছি হেলেনা জাহাঙ্গীরের কথা। যিনি একই সাথে একজন সফল শিল্পোদ্যোক্তা, সমাজসেবী ও বহুমুখী কর্মোদ্যোগী নারী।

    সচ্ছলতার মধ্যে বড় হওয়া হেলেনা জাহাঙ্গীর চাইলেই পারতেন আর পাঁচটা ঘরণীর মত কেবল সংসার নিয়ে ব্যস্ত থাকতে। কিন্তু প্রবল আগ্রহ আর অদম্য মানসিকতা তাকে বরাবরই বাইরের জগতে টেনে নিয়েছে। পারিবারিক গন্ডির মধ্যে তার জীবন থেমে থাকেনি। নিজের বুদ্ধিমত্তা আর অক্লান্ত পরিশ্রমকে কাজে লাগিয়ে সমাজের অনেক ‘পুরুষ ব্যবসায়ীদের’ পেছনে ফেলে ক্ষুদ্রব্যবসায়ী থেকে হয়েছেন শিল্পপতি। বর্তমানে তার পরিচালিত প্রতিষ্ঠানে প্রায় হাজার ছয়েক কর্মীর কর্মসংস্থান হচ্ছে।

    ‘শিল্পপতি’- কেবল এই অর্জনেই এখন আর সীমাবদ্ধ নয় তিনি। অদম্য এই মানুষটি এখন সফল ব্যাবসায়ের পাশাপাশি জড়িত হচ্ছেন বিভিন্ন ব্যবসায়ী রাজনীতিতে। তার ভাষায় বিভিন্ন ব্যবসায় উদ্যোগে সফলের পর এখন সংগঠনের কাজে নিজেকে সম্পৃক্ত করতে চান।

    ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন দ্য ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি সংক্ষেপে এফবিসিসিআইয়ের আসন্ন নির্বাচনে অংশ নিতে যাচ্ছেন।

    এ বিষয়ে হেলেনা জাহাঙ্গীর বলেন, বর্তমানে দেশের অনেক গুরুত্বপূর্ণ পদে নারীরা প্রতিষ্ঠিত হচ্ছেন। যদিও তা তুলনামূলকভাবে অনেকে কম। তবে আমাদের প্রধানমন্ত্রী নিজেও চান নারীরা যেন সমাজ ও রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় উঠে আসে। আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এই উৎসাহ থেকেই নির্বাচনে এসেছি।

    জাতীয় ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলোর সংগঠন নাসিব (ন্যাশনাল অ্যাসোসিয়েশন অব স্মল অ্যান্ড কটেজ ইন্ডাস্ট্রিজ অব বাংলাদেশ) থেকে এবারের ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ (এফবিসিসিআই)-এর নির্বাচনে অংশ নিচ্ছি। দীর্ঘ ২৪ বছর ব্যবসা করছি। আমাদের দেশে নারী উদ্যোক্তার সংখ্যা কম। তাই ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পসহ যেসব উদ্যোগে নারীরা যুক্ত আছেন তাদের জন্য কাজ করতে চাই। আমি অনেকদিন থেকেই বিজিএমইএ ও বিকেএমইএ-এর সদস্য। প্রথমবার এফবিসিসিআইতে এসেছি। এই প্ল্যাটফর্ম থেকে কিছু করতে চাই। শীর্ষ এই ব্যবসায়ী সংগঠনের আমার অনেক শুভাকাক্ষী আছেন, বড় ভাইয়েরা আছেন তাদের কাছ থেকে উৎসাহ পাচ্ছি।

    হেলেনা জাহাঙ্গীর বলেন, আমি মনে করি নারীরা কাজের প্রতি অত্যন্ত মনোযোগী। কাজের একাগ্রতা, গতি এবং স্পৃহা নারীদের মধ্যে বেশী পরিমাণ থাকে যা কাজে লাগানো জরুরি। তাছাড়া রাষ্ট্রের মোট জনসংখ্যার অর্ধেক নারী। বিভিন্ন কাজে নারীরা পুরুষের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করে নিজেদের টিকিয়ে রাখছেন। যোগ্যতার পরিচয় দিচ্ছেন। কিন্তু নেতৃত্বের জায়গায় এখনো অনেক গ্যাপ আছে। আমরা এগিয়ে না এলে সেটা পূরণ হবে না।

    একজন ঘরণী থেকে শিল্পপতি হয়ে ওঠার পেছেন যে সকল বাধা বিঘ্ন থাকে সেসব বিষয়েও কথা বলেছেন এফবিসিসিআইয়ের পরিচালক পদে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা এই শিল্পপতি।

    তিনি বলেন, একজন নারীকে ঘরের বাইরে কাজ করতে গেলে অনেক ধরনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হয়। আমি নিজেও অনেক প্রতিবন্ধকতা পার করে আজকের পর্যায়ে এসেছি। এতে আমার অভিজ্ঞতা অর্জিত হয়েছে। ফলে বিভিন্ন ব্যবসায় উদ্যোগে সফলের পর এখন সংগঠনের কাজে নিজেকে সম্পৃক্ত করছি। এটা এক ধরনের যুদ্ধ। নারী কিংবা পুরুষ যার কথাই বলেন না কেন, প্রথমেই মনস্থির করতে হবে আপনি কী করতে চান। এরপর আপনার কাজই গোল নির্ধারণ করে দেবে।

    আমি দীর্ঘদিন ব্যবসায় যুক্ত থাকার পর এখন সময় এসেছে নেতৃত্বের আসনে বসে আমার মতো উদ্যোমী নারী বা পুরুষ যেই হোক না কেন তাদের উৎসাহ দেওয়ার, সহযোগিতা করার। দেশের ব্যবসায়িক উন্নযনে ভূমিকা রাখার। এজন্যই এফবিসিসিআইয়ের নির্বাচনে অংশ নিচ্ছি। অতীতের অর্জনগুলোর অভিজ্ঞতা এখানে কাজে লাগবে বলে আশা করি।

    নির্বাচনে নারী প্রতিযোগী হিসেবে হেলেনা জাহাঙ্গীরের ভাষ্য, যদিও এবারের নির্বাচনে নারী হিসেবে আমরা মাত্র দুইজনই অংশগ্রহণ করছি (আমি ও শমী কায়সার), কিন্তু নিজেকে নারী হিসেবে প্রার্থী ভাবছি না। কারণ আমি পুরুষদের চেয়ে কোন অংশেই পিছিয়ে কাজ করছি না। ব্যবসায়ী কমিউনিটির কাছে আমার আবেদন, আমার যোগ্যতা দিয়েই আমাকে বিচার করুন, নারী হিসেবে নয়। নারী উদ্যোক্তা হিসেবে নয়, শুধুমাত্র একজন উদ্যোক্তা হিসেবেই আমার পাশে থাকুন।

    Facebook Comments Box

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
    ১০১১১২১৩১৪
    ১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
    ২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
    ২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4757