• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    বাংলাদেশের উন্নয়নের স্বার্থে আল্লাহ তাকে আরো বহু বছর বাঁচিয়ে রাখবেন

    ফারুক আহম্মেদ (জাপানী ফারুক) | ২০ আগস্ট ২০১৭ | ১১:১৫ অপরাহ্ণ

    বাংলাদেশের উন্নয়নের স্বার্থে আল্লাহ তাকে আরো বহু বছর বাঁচিয়ে রাখবেন

    ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট বিকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগের সমাবেশে গ্রেনেড হামলা চালানো হয়। ওই হামলায় আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক সম্পাদক আইভি রহমানসহ ২২ জন নিহত হন। আহত হন তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা শেখ হাসিনাসহ আওয়ামী লীগের কয়েকশ নেতা-কর্মী। এদের অনেকে আজও শরীরে গ্রেনেডের স্প্লিন্টার নিয়ে দুঃসহ জীবন যাপন করছেন।
    কেবল ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট নয়, বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনাকে বাংলাদেশের মাটি থেকে মুছে ফেলতে ১৯৮৮ সাল থেকে এ পর্যন্ত ১৯ বার হামলা হয়েছে।
    শেখ হাসিনাকে প্রথম হত্যার প্রচেষ্টা চালানো হয়েছিল ১৯৮৮ সালের ২৪ জানুয়ারি। এরশাদ শাসনামলে ওইদিন চট্টগ্রামের লালদীঘি ময়দানে আটদলীয় জোটের সমাবেশে যোগ দিতে মিছিল সহকারে যাওয়ার সময় শেখ হাসিনাকে হত্যা করতে পুলিশ-বিডিআর গুলি চালায়। সেই সঙ্গে টিয়ার গ্যাস নিক্ষেপ ও লাঠিচার্জও হয়। এতে ৭ জন নিহত ও তিন শতাধিক আহত হন।
    ১৯৮৯ সালের ১১ আগস্ট রাত ১২টায় ফ্রিডম পার্টির সন্ত্রাসীরা হামলা চালায় ধানমণ্ডির ৩২ নম্বরের ঐতিহাসিক বঙ্গবন্ধু ভবনে। শেখ হাসিনা তখন ওই ভবনটিতে ছিলেন। হামলাকারীরা ৭-৮ মিনিট ধরে বঙ্গবন্ধু ভবন লক্ষ্য করে গুলি চালায় ও একটি গ্রেনেড নিক্ষেপ করে। তবে গ্রেনেডটি বিস্ফোরিত না হওয়ায় প্রাণে বেঁচে যান শেখ হাসিনা।
    ১৯৯১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর রাজধানীর গ্রিন রোডে শাসক দলের সন্ত্রাসীরা শেখ হাসিনাকে হত্যার জন্য গুলি ও বোমাবর্ষণ করে। ওইদিন গ্রিন রোডে পরিবার পরিকল্পনা কেন্দ্রে ভোটের পরিস্থিতি দেখতে গেলে তার ওপর এ হামলা হয়।
    ১৯৯৪ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর ঈশ্বরদী ও নাটোর রেলস্টেশনে প্রবেশের মুখে শেখ হাসিনাকে হত্যার লক্ষ্যে গুলিবর্ষণ করা হয়। পরের বছর ৭ ডিসেম্বর রাজধানীর রাসেল স্কয়ারের কাছে সমাবেশে ভাষণ দেওয়ার সময় আওয়ামী লীগ সভাপতি ও তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেতা শেখ হাসিনাকে লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ করা হয়।
    ১৯৯৬-এর ৭ মার্চ সন্ধ্যায় বঙ্গবন্ধু এভিনিউর আওয়ামী লীগের সমাবেশে দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনার বক্তৃতার পর অকস্মাৎ একটি মাইক্রোবাস থেকে সভামঞ্চ লক্ষ্য করে গুলি ছোড়া হয়। নিক্ষেপ করা হয় বোমা। ২০ জন নেতাকর্মী আহত হলেও প্রাণে রক্ষা পান শেখ হাসিনা। ১৯৯৯ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তার ছেলেমেয়েসহ ৩১ জনকে হত্যার জন্য পুরস্কার ঘোষণা করে ই-মেইল পাঠানো হয়।
    শেখ হাসিনা হত্যাপ্রচেষ্টার আরেকটি বড় ধরনের ষড়যন্ত্র হয়েছিল ২০০০ সালের ২০ জুলাই। ওইদিন গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার জন্য জনসভাস্থলের কাছে ও হেলিপ্যাডের কাছে পুঁতে রাখা হয় ৭৬ কেজি ওজনের বোমা। সৌভাগ্যবশত এই বোমা গোয়েন্দাদের হাতে ধরা পড়ে।
    ২০০১ সালের ২৯ মে খুলনার রূপসা সেতুর কাজ উদ্বোধনকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার জন্য জঙ্গি সংগঠন হুজি অনুষ্ঠানস্থলে একটি বোমা পুঁতে রেখেছিল, যা গোয়েন্দা পুলিশ উদ্ধার করে। ২০০১ সালে তত্ত¡াবধায়ক সরকারের আমলে নির্বাচনী প্রচারাভিযানে গেলে ২৫ সেপ্টেম্বর আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশ্যে সিলেটের আলিয়া মাদ্রাসা সংলগ্ন স্থানে বোমা পুঁতে রাখে হুজি। একদিন আগেই বোমাটি বিস্ফোরিত হলে ঘটনাস্থলেই দু’জনের মৃত্যু হয়। ২০০২-এর ৪ মার্চ নওগাঁয় শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশ্যে তার গাড়িতে হামলা চালায় শাসক দলের ক্যাডাররা। একই বছরের ২৯ সেপ্টেম্বর বিএনপি-জামায়াত নেতাকর্মীরা সাতক্ষীরার কলারোয়ার রাস্তায় ব্যারিকেড দিয়ে শেখ হাসিনার গাড়িবহরে হামলা চালায়। ২০০৪ সালের ২ এপ্রিল বরিশালের গৌরনদীতেও শেখ হাসিনার গাড়িবহরে গুলিবর্ষণ করে শাসক দলের সমর্থকরা।
    ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে শান্তি সমাবেশস্থলে গ্রেনেড হামলা চালানো হয়। শেখ হাসিনাকে লক্ষ্য করে পরপর ১৩টি গ্রেনেড হামলা চালানো হয়। তবে দলীয় নেতারা মানববর্ম রচনা করে শেখ হাসিনাকে প্রাণে রক্ষা করেন।
    ওয়ান ইলেভেন-পরবর্তী সময়ে ২০০৭ সালে সাব-জেলে বন্দি শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশ্যে তার খাবারে দেওয়া হয়েছিল স্লো পয়জন। ক্রমাগত পয়জন দিয়ে তাকে মেরে ফেলার চেষ্টা করা হয়। স্লো পয়জনিংয়ের কারণে শেখ হাসিনা গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন। ২০০৮ সালের ১১ জুন ১১ মাস কারাভোগের পর শেখ হাসিনা প্যারোলে মুক্তি পান।
    ২০১১ সালে শ্রীলংকার একটি সন্ত্রাসবাদী গ্রুপকে ভাড়া করে আগাম পেমেন্টও দেওয়া হয়েছিল শেখ হাসিনাকে হত্যার জন্য। সুইসাইড স্কোয়াডের মাধ্যমে শেখ হাসিনাকে হত্যার পরিকল্পনা করা হয়।
    ২০১৪ সালের শেষদিকে প্রশিক্ষিত নারী জঙ্গিদের মাধ্যমে মানব বোমায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার চেষ্টা করা হয়। তবে প্রশিক্ষণরত অবস্থায়ই পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমানে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটলে ওই ষড়যন্ত্র ফাঁস হয়ে যায়।
    সর্বশেষ ২০১৬ সালের ২৭ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রীকে বহনকারী বাংলাদেশ বিমানের বোয়িং-৭৭৭ ফ্লাইটটি বুদাপেস্ট যাওয়ার পথে মানব সৃষ্ট যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা দেয়। ফলে কাছের বিমানবন্দর হিসেবে ডাইভার্ট হয়ে তা তুর্কমেনিস্তানের আশখাবাদ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে শেষ রক্ষা হয়। এভাবেই বারবার শেখ হাসিনাকে হত্যার ষড়যন্ত্র হলেও তিনি বেঁচে আছেন। আল­াহর রহমতে বাংলাদেশের উন্নয়নের স্বার্থে আল­াহ তাকে আরো বহু বছর বাঁচিয়ে রাখবেন।
    লেখক : সহ সম্পাদক, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় উপ কমিটি, সাধারণ সম্পাদক জাতীয় শ্রমিক লীগ আশুলিয়া আঞ্চলিক কমিটি ও সহ সভাপতি বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ প্রজন্ম লীগ।


    Facebook Comments


    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২
    ১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
    ২০২১২২২৩২৪২৫২৬
    ২৭২৮২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4755