শুক্রবার ১৭ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২রা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম >>
শিরোনাম >>

বিশ্ব ফুটবলে যেমন ছিল ২০২০

  |   সোমবার, ২৮ ডিসেম্বর ২০২০ | প্রিন্ট  

বিশ্ব ফুটবলে যেমন ছিল ২০২০

বিশ্বের জনপ্রিয় খেলা ফুটবল। চলতি বছর বড় কিছু টুর্নামেন্টের মধ্য দিয়ে ব্যস্ত থাকার কথা ছিল ফুটবল মাঠগুলো। মাঠের লড়াইয়ের আগাম উত্তেজনা জেঁকে বসেছিল ক্রীড়াপ্রেমীদের মনে। তবে বছর শেষে দেখা যাচ্ছে বেশিরভাগ আসরই অনুষ্ঠিত হয়নি।

এ বছর মাঠে গড়ানোর কথা ছিল ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপ ও কোপা আমেরিকার। মঞ্চ ছিল প্রস্তুত। তবে হঠাৎ করেই সবকিছু ভেস্তে দেয় প্রাণঘাতী এক ভাইরাস। মহামারি আকারে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ায় সব আসরই স্থগিত হয়ে যায়।
২০২০ সালে করোনার আঘাতে বিপর্যস্ত হয়েছে ফুটবল অঙ্গন। তবে এর মাঝেও আছে ইতিবাচক ঘটনা। আছে সবকিছু ছাপিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর গল্প।

খেলা বন্ধ থাকায় ফাঁকা পড়ে ছিল ফুটবল মাঠগুলো


খেলা বন্ধ থাকায় ফাঁকা পড়ে ছিল ফুটবল মাঠগুলো

ফুটবল দুনিয়ায় এ বছরের মূল আকর্ষণ ছিল আন্তর্জাতিক ফুটবল। ফেব্রুয়ারির শেষ দিকে ইউরোপে ব্যাপক হারে ছড়িয়ে পড়তে থাকে করোনা ভাইরাস। আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে থাকে আমেরিকা মহাদেশেও। এরপর গত ১১ মার্চ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এক বিবৃতিতে কোভিড-১৯ রোগকে মহামারি হিসেবে ঘোষণা দেয়।
এরপরই স্থবিরতা নেমে আসে জনজীবনে। একের পর এক বন্ধ হতে থাকে খেলাধুলা। মার্চের মাঝামাঝি সময়ে প্রথমে ইউরো ও পরে কোপা আমেরিকা বন্ধের ঘোষণা আসে। দুটি টুর্নামেন্টই এক বছর করে পিছিয়ে যায় ।


বুন্দেসলিগার শিরোপা হাতে বায়ার্নের খেলোয়াড়রা

বুন্দেসলিগার শিরোপা হাতে বায়ার্নের খেলোয়াড়রা

এখানেই শেষ নয়। একে একে স্থগিত হয়ে যায় ইউরোপের শীর্ষ পাঁচ লিগের সবগুলো। স্থবিরতার সময় বাড়তে থাকায় এক পর্যায়ে ২০১৯-২০ মৌসুম ভেস্তে যাওয়ার শঙ্কাও দেখা দেয়।
এপ্রিলের শেষ দিকে ফ্রান্সে লিগ ওয়ান কর্তৃপক্ষ তাদের ২০১৯-২০ আসর বাতিলের ঘোষণা দেয়। এর ফলে অন্য লিগগুলোও বাতিল করার পক্ষে জোর দাবি উঠতে থাকে। তবে বড় অঙ্কের অর্থনৈতিক ক্ষতির ভয়ে যেকোনো মূল্যে মাঠে খেলা ফেরানোর চেষ্টা চলতে থাকে।

লা লিগার চ্যাম্পিয়ন হয় রিয়াল মাদ্রিদ

লা লিগার চ্যাম্পিয়ন হয় রিয়াল মাদ্রিদ

শীর্ষ লিগগুলোর মাঝে প্রথম সাফল্যের মুখ দেখে জার্মানির শীর্ষ লিগ বুন্দেসলিগা। দীর্ঘ দুই মাস পাঁচ দিন স্থগিত থাকার পর গত ১৬ মে প্রতিযোগিতাটি মাঠে ফেরে। দর্শকশূন্য স্টেডিয়ামের ফুটবলে পুরনো স্বাদ পাওয়া না গেলেও দীর্ঘ অপেক্ষা শেষে ফুটবল মাঠে ফেরাটাই ছিল অনেক বড় পাওয়া।
বুন্দেসলিগার দেখানো পথে শুরু হয় লা লিগা ও ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ (ইপিএল)। ফিরতি পর্বের শুরুতে শিরোপার পথে এগিয়ে ছিল বার্সেলোনা। কিন্তু নতুনভাবে খেলা শুরু হলে নিজেদের হারিয়ে খুঁজতে থাকে লিওনেল মেসির দল। অন্যদিকে টানা ১০ জয়ে শিরোপা জিতে নেয় চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী রিয়াল মাদ্রিদ।

৩০ বছরের আক্ষেপ ঘুচিয়ে শিরোপা জেতে লিভারপুল

৩০ বছরের আক্ষেপ ঘুচিয়ে শিরোপা জেতে লিভারপুল

অন্যদিকে ফুটবল বন্ধ হওয়ায় সম্ভবত সবচেয়ে বেশি কষ্ট পেয়েছিল লিভারপুল। তিন দশক ধরে ইপিএল জয়ের স্বপ্ন দেখে আসা দলটি খেলা বন্ধ হওয়ায় বড় ধাক্কা খায়। আবারো লিগ মাঠে ফেরার পর প্রথম দুই রাউন্ডেই শিরোপা নিশ্চিত হয়ে যায় দলটির।

ইউরোপের শীর্ষ লিগগুলোর মাঝে সবার শেষে ফেরে ইতালিয়ান সিরি আ। এসময় শিরোপা লড়াইয়ে মূল আকর্ষণ ছিল জুভেন্টাস ও লাৎসিওকে ঘিরে। মাত্র ১ পয়েন্টের ব্যবধানে শীর্ষে ছিল ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর দল।

সিরি আ জয়ের পর জুভেন্টাস

সিরি আ জয়ের পর জুভেন্টাস

সবাই আশা করেছিল লিগ শুরুর পর জয়ের ধারা বজায় রেখে শিরোপার লড়াই আরো জমিয়ে তুলবে দুই দল। কিন্তু জুভেন্টাস ও লাৎসিও উভয় দলই যেন টানা ব্যর্থতার প্রতিযোগিতায় নেমেছিল। শেষ পর্যন্ত স্কুদেত্তো জেতে জুভরাই।
লিগগুলো শেষ হলে বেজে ওঠে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের দামামা। সময় স্বপ্লপতার কারণে নতুন ফরম্যাটে অনুষ্ঠিত হয় এই টুর্নামেন্টটি। পর্তুগালের রাজধানী লিসবনে জৈব-সুরক্ষা বলয়ে এক লেগ করে কোয়ার্টার ফাইনাল, সেমি ফাইনাল ও ফাইনালের মাধ্যমে শেষ হয় আনুষ্ঠানিকতা।

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপা হাতে বায়ার্নের খেলোয়াড়দের উচ্ছ্বাস

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপা হাতে বায়ার্নের খেলোয়াড়দের উচ্ছ্বাস

গ্যালারিতে দর্শক না থাকলেও এক লেগের নকআউট পর্বের উন্মাদনা নতুন মাত্রা স্পর্শ করে। এর মাঝে কোয়ার্টার ফাইনালে বায়ার্ন মিউনিখ-বার্সেলোনা ম্যাচে মেসিদের অভাবনীয় ভরাডুবি হয়। ম্যাচটিতে ৮-২ গোলে বিধ্বস্ত হয় বার্সেলোনা। পিএসজিকে হারিয়ে শেষ পর্যন্ত চ্যাম্পিয়ন হয় সেই বায়ার্ন মিউনিখই।
চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শেষে পুনরায় মৌসুম শুরুর অপেক্ষায় ছিল ফুটবল বিশ্ব। এমন সময় আকস্মিকভাবেই ব্যুরোফ্যাক্সের মাধ্যমে দীর্ঘদিনের ক্লাব বার্সেলোনা ছাড়ার ঘোষণা দেন লিওনেল মেসি। দলের প্রাণভোমরার এমন সিদ্ধান্ত বার্সা সমর্থকদের জন্য বড় আঘাত হয়ে আসে।

মেসির বার্সা ছাড়তে চাওয়া ছিল দলটির সমর্থকদের জন্য বড় এক আঘাত

মেসির বার্সা ছাড়তে চাওয়া ছিল দলটির সমর্থকদের জন্য বড় এক আঘাত

এমতাবস্থায় মেসিকে ধরে রাখার দাবিতে বার্সেলোনার রাস্তায় নেমে আসে অসংখ্য সমর্থক। টানা ১০ দিন ধরে নানা নাটকীয়তা শেষে ইচ্ছার বিরুদ্ধে কাতালান ক্লাবটিতে থেকে যাওয়ার সিদ্ধান্ত জানান রেকর্ড ছয়বারের বর্ষসেরা ফুটবলার। একই সঙ্গে জানিয়ে দেন, সভাপতির আচরণে তিনি অসন্তুষ্ট।
ক্লাব ফুটবলের পর ফিরেছে আন্তর্জাতিক ফুটবলও। সেপ্টেম্বরে মাঠে গড়ায় উয়েফা নেশন্স লিগের দ্বিতীয় আসর। গ্রুপ পর্ব শেষে এরই মধ্যে নির্ধারিত হয়েছে আগামী বছর হতে যাওয়া শিরোপা লড়াইয়ে চার ফাইনালিস্ট দল- ইতালি, বেলজিয়াম, ফ্রান্স ও স্পেন।

ফিরেছে আন্তর্জাতিক ফুটবলও

ফিরেছে আন্তর্জাতিক ফুটবলও

এরপর অক্টোবরে মাঠে গড়ায় বিশ্বকাপ বাছাই। দক্ষিণ আমেরিকা অঞ্চলের লড়াই দিয়ে শুরু হয় কাতার বিশ্বকাপের বাছাইপর্ব। সেখানে দারুণ শুরু করেছে ব্রাজিল। প্রথম চার রাউন্ডের সবকটি জিতে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে আছে তারা। তিন জয় ও এক ড্রয়ে ১০ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে আছে আর্জেন্টিনা।

সব কিছু ছাপিয়ে আবারো যখন মাঠের ফুটবলে আনন্দের সুবাতাস বইতে শুরু করেছে, তখন বড় ধাক্কা হয়ে আসে দিয়েগো ম্যারাডোনার মৃত্যুসংবাদ। নভেম্বরের শেষ সপ্তাহে বিশ্বের অসংখ্য ভক্ত-অনুরাগীকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে চলে যান আর্জেন্টাইন ফুটবল ঈশ্বর।

সবাইকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে চলে গেছেন ম্যারাডোনা

সবাইকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে চলে গেছেন ম্যারাডোনা

ম্যারাডোনার মৃত্যু শোক কাটিয়ে না উঠতেই মারা যান তার সতীর্থ ও আর্জেন্টিনার সাবেক কোচ আলেসান্দ্রো সাবেলা। তার অধীনেই ২০১৪ বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠেছিল দুবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা। এরপর ফুটবল বিশ্ব হারায় আরেক কিংবদন্তি সাবেক ইতালিয়ান ফরোয়ার্ড পাওলো রসিকে। তিনি ছিলেন ইতালির ১৯৮২ বিশ্বকাপ জয়ের নায়ক।
আনন্দ-বেদনার পাশাপাশি নানা ঘটনার মধ্য দিয়ে মহাকালের গর্ভে হারিয়ে যাচ্ছে আরো একটি বছর। নতুন বছরে ফুটবল আগের চেয়ে আরো ভালোভাবে মাঠে ফিরবে, এমন প্রত্যাশায় দিন গুণছেন ভক্তরা।

Facebook Comments Box

Posted ১০:৪২ অপরাহ্ণ | সোমবার, ২৮ ডিসেম্বর ২০২০

ajkerograbani.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০