• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    বোতলে বাগান

    অনলাইন ডেস্ক | ১৩ এপ্রিল ২০১৭ | ৮:১৪ অপরাহ্ণ

    বোতলে বাগান

    জানালা দিয়ে বাইরে তাকালে কিংবা ঘর থেকে বাইরে বের হলেই তুমি দেখতে পাবে একটা ইকোসিস্টেম। নিশ্চয়ই অবাক হয়ে ভাবছো, ঘরের বাইরে তো গাছপালা, পুকুর, মাছ, পাখি, মাটি এগুলোই আছে, ইকোসিস্টেমটা আবার কোথায়? মজার ব্যাপার হলো, আসলে এই সবকিছু মিলিয়েই ইকোসিস্টেম।


    একটা অঞ্চলে অবস্থিত প্রাকৃতিক উপাদান আর জীবের মধ্যে একটি পারস্পারিক সম্পর্ক থাকে; তারা একে অপরকে সাহায্য করে। এভাবে তাদের মধ্যে একটি ব্যবস্থাপনা গড়ে উঠে যাকে ইকোসিস্টেম বা বাস্তুতন্ত্র বলে। তাত্ত্বিক কথার থেকে বরং সহজ উদাহরণ দিয়েই বুঝাই,


    “বাড়ির আশেপাশেই হয়তো অনেকগুলো গাছ আছে, তার পাশে হয়তো পুকুর আছে, সেই পুকুরে মাছ আছে, আশেপাশে পাখি, বাতাসে অক্সিজেন, কার্বন ডাই অক্সাইড আছে। এই পাখি, মাছ, গাছ, বাতাসের উপাদান সবাই একে অন্যের উৎপাদিত শক্তি বা খাদ্যের উপর নির্ভরশীল আর তাদের শক্তির মূল উৎস হচ্ছে সূর্য। এরা সবাই মিলেই একটা ইকোসিস্টেম গড়ে তোলে। এদের একটিকে ছাড়া অন্যটি টিকে থাকতে পারে না।”

    এখন চল নিজের হাতেই এমন একটা ইকোসিস্টেম তৈরি করি। ইকোসিস্টেমটা একটু ছোটখাটো হবে, তবে একদম খাঁটি ইকোসিস্টেম।

    ১। এই বোতল বাগান তৈরি করতে আমাদের প্রয়োজন হবে কাচের বোতল। কাচের বোতলের গায়ে স্টিকার লাগানো থাকলে সেটি উঠিয়ে ফেলতে হবে। খুব শক্ত স্টিকার হলে সেটি গরম পানিতে কিছুক্ষণ ডুবিয়ে তুলে ফেলতে হবে।

    ২। এবার বোতলের নিচে ছোট ছোট পাথর এবং বালি দিয়ে ফাঁকা জায়গা তৈরি করতে হবে যেটাকে বলা হয় “রিজার্ভয়ের।” পাথরের জন্য ফাঁকা জায়গা তৈরি হলেও বালির কারণে গাছের মাটি কখনোই নিচে পড়ে যাবে না।

    ৩। খুব অল্প পরিমাণে মাটি বা কম্পোস্ট নিয়ে খুব ধীরে ধীরে বোতলের ভেতর প্রবেশ করাতে হবে বেশি পরিমাণে দিলে বোতলের মুখে আটকে যেতে পারে। ঝাঁকুনি দিয়ে দিয়ে আটকে যাওয়া মাটি ভেতরে প্রবেশ করাতে হবে। এভাবে প্রায় ২-৩ ইঞ্চি অংশ মাটি দিয়ে ভরে ফেলতে হবে।

    ৪। এবার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজটি করতে হবে আর সেটি হলো, গাছ লাগানো। যে সব গাছ স্বাভাবিক ভাবেই বদ্ধ ঘর বা অতিরিক্ত স্যাঁতসেঁতে স্থান পছন্দ করে এমন সব গাছই বোতল বাগানের জন্য উপযোগী। অপেক্ষাকৃত ছোট বৈশিষ্ট্যের গাছই বোতল বাগানের জন্য উত্তম। যেমন, বিগোনিয়া, পার্লার পাম, ছোট আইভি, মস, ফার্ন, অ্যানথুরিয়াম, ডাইফেনবেকিয়া, ম্যারান্টা, জেব্রিনা, ড্রাসেনা, এগলিওনেমা ইত্যাদি, বাহারি পাতার গাছ বোতল বাগানে ব্যবহার করা যেতে পারে।

    এখন প্রশ্ন জাগতেই পারে, অতটুকু একটা বোতলে কিভাবে গাছ লাগানো যায়? উপায় তো আছেই। দুইভাবে কাজটি করা যেতে পারে। প্রথমত, গাছের বীজগুলো ছড়িয়ে দিতে হবে এবং তার উপরে আরও অল্প পরিমাণ মাটি বা কম্পোস্ট দিতে হবে। অথবা, ছোট ছোট গাছের চারা বোতলের মাটিতে লাগাতে হবে। এই ক্ষেত্রে খেয়াল রাখতে হবে যেন গাছের চারাগুলো বোতলের চেয়ে বড় না হয়।

    বোতল বাগান একটি মিনি গ্রিন হাউজের মতো কাজ করে। বোতল বাগান তৈরি শেষ হয়ে গেলে, কর্ক দিয়ে বোতলটির মুখ বন্ধ করে দাও। এভাবে ছায়াযুক্ত আলোকোজ্জ্বল স্থানে রেখে দিলে মাসের পর মাস অন্ত:পরিচর্যার আর প্রয়োজন হয় না। এমনকি পানিও দিতে হবে না।

    বোতলটিকে পর্যাপ্ত আলো-যুক্ত স্থানে রাখতে হবে তবে সরাসরি সূর্যালোকে রাখা যাবে না। বোতল বাগান ধারণাটি সম্পূর্ণভাবে বদ্ধ পরিবেশের জন্য, যার ফলে নিঃসরণের মাধ্যমে পাতা থেকে যে পানি বের হয়ে বোতলের গায়ে জমা হয় তা পুনরায় মাটিতে চলে যায়। যার জন্য এক বছরে একবার পানি স্প্রে করলেই যথেষ্ট।

    বোতলের মধ্যে বাতাস ছাড়া পানি ছাড়া গাছটি দিব্যি বেঁচে থাকবে, কিন্তু কীভাবে? আর কেনই বা এটাকে ইকোসিস্টেম বলা যায়? এই প্রশ্নগুলো এখন মাথায় আসছে তো? ঠিক আছে এর ব্যাখ্যাও জেনেই নেই–

    বোতলের মধ্যে থাকা এই বাগানের গাছগাছড়া বাইরের আবহাওয়া না পেলেও পাচ্ছে সূর্যের আলো। ফলে সালোকসংশ্লেষণ প্রক্রিয়া কিন্তু যথারীতি চলছে। এভাবে গাছটি খাদ্য তৈরি করতে পারছে। তাই বহির্জগত থেকে বিচ্ছিন্ন থাকলেও এই বোতলের মধ্যেও নিজস্ব ইকোসিস্টেম গড়ে উঠেছে। সালোকসংশ্লেষণের মাধ্যমে তৈরি হচ্ছে অক্সিজেন, বাতাসে জলীয়বাষ্প সৃষ্টি হচ্ছে, সেই জলীয়বাষ্প আবার বৃষ্টির মতো ঝড়ে পড়ছে গাছটির উপর। বোতলের তলদেশে পড়ে থাকা পাতা কার্বন ডাই অক্সাইড সৃষ্টি করছে যা সালোকসংশ্লেষণের জন্য প্রয়োজন। শিকড়ের জন্য তা খাদ্যও যোগান দিচ্ছে।

    এভাবেই নিজস্ব ইকোসিস্টেম তৈরি করার মাধ্যমে বোতল বাগান টিকে থাকে। তাহলে বানিয়ে ফেলি আমাদের নিজেদের বোতলের বাগান।

    Facebook Comments

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    webnewsdesign.com

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    বিয়ে করাই তার নেশা!

    ২১ জুলাই ২০১৭

    কে এই নারী, তার বাবা কে?

    ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4669