• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    বোমাবাজ বিচ্ছু শামসুর বন্দুকবাজ ছেলে

    ডেস্ক | ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ১১:৫৫ পূর্বাহ্ণ

    বোমাবাজ বিচ্ছু শামসুর বন্দুকবাজ ছেলে

    জাতীয় সংসদের হুইপ শামসুল হক চৌধুরী যাকে এলাকায় একসময় ‘বিচ্ছু শামসু’ নামে চিনত সবাই। বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের হাত ধরে যুবদল করেন। জিয়াউর রহমানই তাকে ‘বিচ্ছু’ উপাধি দিয়েছিলেন। পরে তিনি জাতীয় পার্টিতে যোগ দিয়ে আওয়ামী লীগের সমাবেশে বোমা হামলা করে বোমাবাজ হিসেবেও পরিচিতি পান। এবার তার ছেলে ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অর্থ বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য নাজমুল করিম চৌধুরী শারুনের যুদ্ধংদেহী মনোভাব সম্পন্ন অস্ত্র মহড়ার একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। আর এ নিয়ে রাজনৈতিক সামাজিক অঙ্গনে চলছে নানা তীব্র প্রতিক্রিয়া। আলোচনা হচ্ছে বাবা ছিলেন বোমাবাজ এখন ছেলে হচ্ছে অস্ত্রবাজ।


    প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত দুর্নীতিবিরোধী অভিযানকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে গিয়ে প্রশাসনের বিরুদ্ধে অভিযোগের আঙুল তুলে ব্যাপক নিন্দিত হন হুইপ শামসুল। তার ছেলে শারুনের বিরুদ্ধে তারই বাবার বয়সি প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা ও চট্টগ্রাম আবাহনীর প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা দিদারুল আলম চৌধুরীকে টেলিফোনে অশ্লীল ভাষায় গালাগাল করে হুমকিও দেওয়া হয়। মোবাইল ফোনের সেই অডিও ভাইরাল হওয়ার ২৪ ঘণ্টা না যেতেই অস্ত্র মহড়ার ভিডিওটি ভাইরাল হয়। এর ফলে মাঠ পর্যায়ের অনেক আওয়ামী লীগ নেতাও বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছেন। চট্টগ্রামসহ সারা দেশে আলোচিত বিষয় হয়েছে দাঁড়িয়েছে তার এ ভিডিও।


    এই ভিডিওতে দেখা যায়, সামরিক মহড়ার মতোই যুদ্ধংদেহী মনোভাবে হুইপপুত্র শারুন একে-৪৭ রাইফেল সদৃশ আগ্নেয়াস্ত্র (কেউ কেউ বলছেন এসএমজি) থেকে গুলিবর্ষণ করছেন।

    অনেকে ধারণা করছেন, দেশের বাইরে কোথাও এই অস্ত্র মহড়া দেন হুইপপুত্র শারুন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই ভিডিও লিংকটিকে ঘিরে নেতিবাচক এবং সমালোচনা মন্তব্য অব্যাহত রয়েছে। অনেকেই উল্লেখ করেছেন, যুদ্ধক্ষেত্রের মহড়ার মতো ভিডিওফুটেজই প্রমাণ করে এ সমাজে কতটা লাগামহীন এই হুইপপুত্র।

    কেউ বলছেন, ভিডিওটি হয়তো দেশের বাইরে ধারণ করা হয়েছে। কিন্তু অস্ত্র চালানো দেখে মনে হচ্ছে, শারুন খুব প্রশিক্ষিত। কারণ এ ধরনের অস্ত্র ফায়ারিংয়ের সময় শরীর কন্ট্রোল খুবই কষ্টসাধ্য। অথচ তিনি ধারাবাহিকভাবে ফায়ার করে চলেছেন। এতে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের পরিচ্ছন্ন ভাবমূর্তিকেও মাঠপর্যায়ে প্রশ্নবিদ্ধ করছে’ বলে উল্লেখ করেছেন বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা। আবার কেউ কেউ বলছেন, ভিডিওটি হয়তো এডিট করা।

    চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের ক্রীড়া সম্পাদক দিদারুল আলম চৌধুরী বলেছেন, পটিয়ার আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য শামসুল হক চৌধুরী একসময় ডবলমুরিং থানা যুবদলের সেক্রেটারি ছিলেন। পরে জাতীয় পার্টির রাজনীতিও করেছেন। ১৯৭৯ সালে চট্টগ্রামের বাকলিয়ায় নির্বাচনি ক্যাম্পেইনে তার ‘বিচ্ছু শামসু’ নামটি জিয়াউর রহমান দিয়েছিলেন।

    তিনি বলেন, পরে জাতীয় পার্টিতে যোগ দিয়ে নিউমার্কেট মোড়ে আওয়ামী লীগের মিটিং পন্ড করার জন্য বোমা হামলা চালান দলবল নিয়ে।

    অন্যদিকে সম্প্রতি দিদারুল আলমকে প্রাণনাশের হুমকিসহ কুরুচিপূর্ণ কথা বলার অভিযোগ উঠে হুইপ শামসুল হক চৌধুরীর ছেলে নাজমুল করিম চৌধুরী শারুনের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় গত ১৯ সেপ্টেম্বর নিরাপত্তা ও আইনি সুরক্ষা চেয়ে নগরীর পাঁচলাইশ থানায় একটি আবেদনও করেছেন এ ক্রীড়া সংগঠক।

    দিদারুল আলম চৌধুরী অভিযোগে উল্লেখ করেন, তিনি আবাহনীর প্রতিষ্ঠাতা মহাসচিব ছিলেন। পরবর্তী সময়ে ২০০৭ সাল থেকে তাকে সেই পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হলেও ফুটবল কমিটির চেয়ারম্যানের দায়িত্বে রাখা হয়। সেই হিসেবে প্রিমিয়ার ব্যাংক জিইসি মোড় শাখায় ‘চট্টগ্রাম আবাহনী ফুটবল কমিটি’ নামে একটি যৌথ হিসাব খোলা হয়। হিসাবের স্বাক্ষরকারী হিসাবে ক্লাবের মহাসচিব শামসুল হক চৌধুরী, ম্যানেজার সাইফুদ্দিনের পাশাপাশি দিদারুল আলমের স্বাক্ষর নেওয়ারও কথা সব ধরনের লেনদেনে। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে তাকে অন্ধকারে রেখে ওই হিসাব থেকে টাকাপয়সা লেনদেন করা হচ্ছিল। এ জন্য দিদারুল এ মাসে অ্যাকাউন্ট বন্ধের আবেদন করলে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ সব ধরনের লেনদেন স্থগিত রাখে।

    এ কারণে ক্ষিপ্ত হয়ে শামসুল হকের ছেলে নাজমুল করিম শারুন গত ১৭ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যা ৭টা ৪৫ মিনিটে দিদারুলের সঙ্গে মোবাইলে কথা বলেন। কথা বলার একপর্যায়ে বন্ধ হওয়া ব্যাংক হিসাব খুলে দিতে তিনি চাপ দিতে থাকেন। সেটা না মানলে প্রবীণ এ ক্রীড়া সংগঠককে হুমকিধমকিসহ অকথ্য ভাষায় গালি দেন।

    অন্যদিকে চট্টগ্রামে আবাহনী ক্লাবের জুয়ার আসর থেকে গত পাঁচ বছরে ক্লাবটির মহাসচিব ও জাতীয় সংসদের হুইপ শামসুল হক চৌধুরী ১৮০ কোটি টাকা আয় করেছেন বলে ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে জানিয়েছিলেন সাইফ আমিন নামের একজন পুলিশের পরিদর্শক। পোস্টে তিনি হুইপ শামসুল হকের জুয়ার ব্যবসায় জড়িত থাকার পাশাপাশি থানার ওসিদের উপরি আয়ের উৎস হিসেবে ফ্ল্যাটকেন্দ্রিক দেহ ব্যবসার অভিযোগও করেন। পরে মঙ্গলবার অভিযোগ আনা সেই পুলিশ পরিদর্শক সাইফুল আমিনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। এ ছাড়া তার বিরুদ্ধে মামলা করেছেন শামসুল হক চৌধুরী।

    Facebook Comments

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4673