বৃহস্পতিবার ৫ই আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২১শে শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

মণিরামপুরে জমি নিয়ে বিরোধ, অবরুদ্ধ অসহায় নাজমা ও তার পরিবার

যশোর প্রতিনিধি   |   বৃহস্পতিবার, ১৬ এপ্রিল ২০২০ | প্রিন্ট  

মণিরামপুরে জমি নিয়ে বিরোধ, অবরুদ্ধ অসহায় নাজমা ও তার পরিবার

মণিরামপুরে জায়গা জমি বিরোধকে কেন্দ্র করে নাজমা বেগম নামে এক গৃহবধূর স্বামীর পৈত্রিক সম্পত্তিতে বসবাসরত বসতবাড়ীর সামনে নেটের বেড়া দিয়ে অবরুদ্ধ করে রেখেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এতে বাঁধা দিতে গেলে উপজেলার খড়িঞ্চী উত্তরপাড়া গ্রামের মৃত মিনাজ ফকিরের ছেলে রুহুল কুদ্দুস ও জামাল হোসেনের নেতৃত্বে তার বড় ভাইয়ের স্ত্রী নাজমা বেগম, তার মেয়ে সোনিয়া খাতুন, রিয়া খাতুন এবং প্রিয়াকে মারধর করে স্থানীয় প্রভাবশালী জালাল হোসেন। বিষয়টি নিয়ে থানা পুলিশ বরাবর অভিযোগ ও একাধিকবার শালিস বৈঠক হলেও মানছেন না প্রভাবশালীরা।
খোঁজ খবর নিয়ে জানা যায়, উপজেলার খড়িঞ্চী উত্তরপাড়া গ্রামের মৃত মিনাজ ফকিরের ছেলে গংরা উত্তরাধিকার সূত্রে পৈত্রিক সম্পত্তির উপর দীর্ঘদিন যাবত বসবাস করে আসছে।
মৃত মিনাজ ফকিরের তিন ছেলে আব্দুল মান্নান, রুহল কুদ্দুস ও জামাল হোসেন। রুহল কুদ্দুসের বড় ভাই আব্দুল মান্নান দীর্ঘদিন যাবত মালয়েশিয়ায় অবস্থান করায় তার রেখে যাওয়া সম্পত্তি স্ত্রী নাজমা বেগম শান্তিপূর্ণ পরিবেশে বসবাস করে আসছিল। বর্তমানে আব্দুল মান্নান তার মেয়ে সোনিয়া খাতুন, রিয়া খাতুন এবং প্রিয়াকে জমি লিখে দেওয়ায় অন্য ভাইয়েরা ক্ষিপ্ত হয়ে বসতবাড়ীর সামনে নেটের বেড়া দিয়ে অবরুদ্ধ করে রাখায় ঠিকমত চলাফেরা করতে পারছেন না। বেড়া সরাইতে বলিলে তার ভাইয়েরা প্রভাবশালী জালাল হোসেনকে দিয়ে আব্দুল মান্নানের স্ত্রী নাজমা বেগম, তার মেয়ে সোনিয়া খাতুন, রিয়া খাতুন এবং প্রিয়াকে মারধর করে। এ ঘটনায় নাজমা বেগম বাদী হয়ে মণিরামপুর থানায় অভিযোগ করার পর এস আই আব্দুর রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গদের নিয়ে আপোষ মিমাংসার নির্দেশ দিলেও পুলিশের কোন নিদের্শনা মানছেন না তারা।
অভিযোগ উঠেছে, খড়িঞ্চী উত্তরপাড়া গ্রামের মৃত আবুল দফাদারের ছেলে প্রভাবশালী জালাল হোসেন ও আলাল হোসেনের উস্কানিমূলক কর্মকান্ডে এ ধরনের ঘটনা ঘটেই চলছে। ওই এলাকার শুধু নাজমা বেগমই না, অনেক সাধারণ মানুষ তার কাছে জিম্মি। তার ভয়ে কেউ মুখ খুলতে সাহস পায় না।
ভূক্তভোগী গৃহবধূ নাজমা বেগম বলেন, আমার স্বামীর জমি মেয়েদের নামে লিখে দেওয়ায় তারা খুব চড়া। প্রতিপক্ষরা পেশি শক্তি বলে আমার বসতবাড়ি নেট দিয়ে ঘিরে অবরুদ্ধ করে রেখেছে। প্রতিবেশী আলালের কাছে বিচার চাইতে গেলে তিনি কিছু না শুনেই অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে এবং জালাল হোসেন নেশাদ্রব্য পান করে আমাকে দা নিয়ে বিভিন্ন সময় খুন করতে আসে। আমি এখন নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছি। তা ছাড়া অনেকটাই গৃহবন্দিরমত জীবন যাপন করছি।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার আহসান উল্লাহ শরিফী বলেন, এ বিষয়ে কেউ লিখিত অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত পূর্বক আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Facebook Comments Box


Posted ৪:১৩ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ১৬ এপ্রিল ২০২০

ajkerograbani.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১