• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    মহানবীর অপমান সইবে না মুসলমান

    অ্যাডভোকেট শেখ সালাহ্উদ্দিন আহমেদ | ০৮ নভেম্বর ২০২০ | ৬:১৭ অপরাহ্ণ

    মহানবীর অপমান সইবে না মুসলমান

    ফ্রান্সসহ বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে ইসলামের সর্বশেষ ও শ্রেষ্ঠতম নবীর প্রতি হিংসাবিদ্বেষ ছড়ানোর অপচেষ্টা করা হচ্ছে। এ ধরনের ঘৃণ্য কাজকে কোনোভাবে সমর্থন করা যায় না। হিংসুকদের হিংসা শেষ পর্যন্ত কোনো ধরনের ভালো কিছু বয়ে আনবে না। কুরআনের বর্ণনা অনুযায়ী, মহানবী সা: একটি পরিপূর্ণ জীবনবিধান নিয়ে এসেছিলেন। সেটি তিনি বাস্তবায়ন করেও মানুষের মধ্যে অনুপম নিদর্শন হয়েছিলেন। নবীজীবনের শিক্ষা হচ্ছে, নিজের ইচ্ছা-অনিচ্ছাকে সম্পূর্ণ বিসর্জন দিয়ে সর্বশক্তিমান আল্লাহর কাছে আত্মসমর্পণ করে মানবতার কল্যাণে আজীবন নিয়োজিত হওয়া এবং রাব্বুল আলামিন আল্লাহ তায়ালার নির্দেশিত সত্য ও ন্যায়ের পথকে নিজের জীবনের পরম লক্ষ্য হিসেবে নির্ধারণ করা। বর্তমান মুসলমান সমাজের সাথে এর মিল কমই পাওয়া যায়। আজকের এ দিনে সবাইকে সে শিক্ষার দিকে ফিরে যাওয়ার শপথ নিতে হবে।
    রাজা-বাদশাহ-আমির-ফকির কেউ ছোট, কেউ বড় নয়। কেউ কারো চেয়ে শ্রেষ্ঠ নয়। সব মানুষ সমান। আল্লাহ ছাড়া কারো কাছে কোনো অবস্থাতেই মাথা নোয়ানো যাবে না।
    মুহাম্মদ সা: প্রচার করেছেন, মানুষের প্রকৃত মর্যাদা আল্লাহর সার্বভৌমত্ব মেনে আল্লাহর নির্দেশিত পথে সারা জীবন নিষ্ঠার সাথে চলার মধ্যে। মানুষ ইহকালে যে কাজ করবে, পরকালে আল্লাহর কাছে এ জন্য জবাবদিহি করতে হবে এবং এ জন্য প্রতিফল পাবে। যারা আল্লাহ, তাঁর প্রেরিত আসমানি কিতাব, নবী-রাসূল, আখেরাতে এবং শেষ বিচারের দিনের প্রতি বিশ্বাস রেখে ন্যায় ও কল্যাণের পথ অনুসরণ করবেন, তাদের জন্য রয়েছে আল্লাহর পক্ষ থেকে মহান পুরস্কার। তারা পাবেন শাশ্বত শান্তিময় স্থান বেহেশত বা জান্নাত। যারা সত্যের পথে চলবে না এবং নিজের প্রবৃত্তির দাসত্ব করবে, তাদের জন্য রয়েছে চরম শাস্তির চিরন্তন স্থান জাহান্নাম। সেখান থেকে কখনো তারা বের হতে পারবে না।
    মুহাম্মদ সা:-এর প্রতিটি কাজের লক্ষ্য ছিল আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভ করা। এমন কাজ করতে গেলে সাধারণভাবে আশপাশের লোকেরা উপকৃত হয়। আমরা দেখেছি তাঁর আগমনের মাত্র কয়েক বছরের মধ্যে পুরো আরব উপদ্বীপের মানুষ আল্লাহর কাছে মাথা নত করেছিল। ইসলামের শ্রেষ্ঠত্ব শুধু আরবে সীমাবদ্ধ থাকেনি। তৎকালীন দুটো সভ্যতা পারস্য ও রোম সাম্রাজ্যও গ্রহণ করেছিল ইসলামকে। ইসলাম ছড়িয়ে পড়ে পুরো বিশ্বে। রাসূল সা: এ পথে শত্রুকে বুকে নিয়ে করেছেন মিত্র। তিনি মানুষের পরম আস্থাভাজন ছিলেন। সেই সূত্রে তাঁর সময়ের আরব দুনিয়ায় নিজেকে সবার কাছে প্রতিষ্ঠিত করেছেন আল-আমিন বা বিশ্বাসী হিসেবে। ন্যায় প্রতিষ্ঠার জন্য তিনি অসি হাতে যুদ্ধ করেছেন; কিন্তু অন্যায়ভাবে সামান্য আঘাতও দেননি। যুদ্ধবন্দীদের দিয়েছেন অতুলনীয় মানবাধিকার। তিনি মানবজাতির সর্বাঙ্গীণ আদর্শ। অপরাধীদের ক্ষমা করে দেয়ার জন্য তিনি তাগিদ দিয়েছেন। ওয়াদা রক্ষায় তিনি ছিলেন শতভাগ দৃঢ়প্রতিজ্ঞ।
    কেবল তাঁর অনুসারীদেরই নন, তিনি জাতি-ধর্ম-বর্ণ-গোত্র নির্বিশেষে সকল মানুষের আদর্শ ও পথপ্রদর্শক। পবিত্র কোরআনে আল্লাহপাক বলেছেন: আপনাকে আমি জগৎসমূহের জন্য রহমত হিসেবে প্রেরণ করেছি। মহানবী (সা.) বিশ্বমানবের সেরা পথপ্রদর্শক, মহান শিক্ষক ও অনুপম আদর্শ। মানবেতিহাসের এক যুগসন্ধিকালে, অন্ধকারতম সময়ে তিনি মহান আল্লাহর বাণী নিয়ে অবতীর্ণ হন। তার উদাত্ত আহবান, নিষ্ঠাপূর্ণ কর্মসাধনা, উচ্চতম নীতি-আদর্শ ও অমলিন পবিত্র-মাধুর্যের মাধ্যমে তিনি অতি অল্প দিনে এক আলোকোজ্জ্বল ও সর্বোন্নত জীবনব্যবস্থা বাস্তবায়ন করেন। অজ্ঞানতা, কুসংস্কার এবং অনাচার, পাপাচার ও বিশ্বাসহীনতার কলুষ দূরীভূত করে শান্তি, সভ্যতা, নিরাপত্তা ও মানবিক মর্যাদার এক নতুন পথ রচনা করেন। বিশ্বাস, প্রজ্ঞা ও মানবিক গুণাবলী সমৃদ্ধ নয়া সভ্যতার স্থপতি হিসেবে তিনি কেবল আরবভূমি নয়, গোটা বিশ্বে নন্দিত, প্রসংশিত। মহান আল্লাহর একমাত্র মনোনীত ধর্ম ইসলামের বাণীবাহক হিসেবে তিনি শুধু মানুষের ধর্মীয় জীবনেই প্রভাব বিস্তার ও সুনির্দিষ্ট করেননি, বরং মানব জীবনের এমন কোনো দিক-বিভাগ পাওয়া যাবে না, যেখানে তাঁর অনিবার্য প্রভাব প্রতিফলিত হয়নি। তিনি একাধারে একটি ধর্মের প্রতিষ্ঠাতা, একটি জাতির নির্মাতা এবং একটি অতুল্য সভ্যতার স্রষ্টা। তিনি সর্বশ্রেষ্ঠ নবী, সাইয়েদুল মুরসালিন ও খাতামুন্নাবিয়ীন।


    তাঁর যখন আবির্ভাব হয়, তখন পবিত্র মক্কা নগরীসহ সমগ্র আরব জাহেলিয়াতের মধ্যে নিমজ্জিত ছিল। পৌত্তলিকতা, যুদ্ধ, বিরোধ-বিসম্বাদ, হানাহানি, অবিশ্বাস, সামাজিক অনাচার, কুসংস্কার, বৈষম্য, মানবিক অধঃপতন মারাত্মক পর্যায়ে উপনীত হয়েছিল। তিনি অবনত-অধঃপতিত মানব গোষ্ঠিকে অল্প দিনের ব্যবধানে সৎ, সত্যনিষ্ঠ, দায়িত্বশীল, মানবিক ও তৌহিদে বিশ্বাসী জাতিতে রূপান্তর করেন। তিনি কেবল মহান আল্লাহপাকের সর্বশেষ কিতাব আল কোরআনের ধারক ও বাস্তবায়নকারীই নন, তাঁর গোটা জীবন ছিল পবিত্র কোরআনের প্রতিরূপ। বিশ্বমানবের মুক্তি, শান্তি, ইহ-পরকালীন মঙ্গল, বিকাশ, নিরাপত্তা-সবকিছুই আসতে পারে পবিত্র কোরআন ও তার জীবনকর্ম অনুসরণ করার মাধ্যমে। তিনি বলেছেন, আমি দু’টি বিষয় রেখে গেলাম। যতদিন এ দু’টি আঁকড়ে ধরে থাকবে, ততদিন তোমরা পথচ্যুত হবে না। এ দু’টি হলো- আল্লাহর কিতাব এবং আমার সুন্নাহ। মহানবী (সা.)-এর শিক্ষা, আদর্শ, পদাঙ্ক ও পথনির্দেশনা অনুসরণ করে গত প্রায় ১৫ শত বছর মুসলিম উম্মাহর অন্তর্গত মানুষ তাদের জীবনসাধনা চালিয়ে আসছে। এ সময়ে মুসলমানরা বহু ভূখন্ড জয় করেছে, বহু সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠা করেছে, শাসনকার্য পরিচালনা করেছে। অতীতে দীর্ঘ সময় জ্ঞান-বিজ্ঞান-প্রযুক্তি, দর্শন-শিক্ষা-সংস্কৃতি প্রভৃতি ক্ষেত্রে নেতৃত্ব দিয়েছে। আজকের বিশ্বসভ্যতা সবচেয়ে বেশি ঋণী ইসলাম ও মুসলমানদের কাছে। এ সভ্যতার যা কিছু সুন্দর, যা কিছু কল্যাণকর, যা কিছু মঙ্গলজনক তার পেছনে রয়েছে মহানবী (সা.)-এর আদর্শ, শিক্ষা, নির্দেশনার অনিবার্য ভূমিকা। শান্তি, নিরাপত্তা, মানবাধিকার ও মানবিক বিকাশের সকল ক্ষেত্রে ইসলামের অবদান অনস্বীকার্য। বর্তমান বিশ্বে মানুষ যখন ধর্মবিমুখ বস্তুবাদী দর্শনের কবলে পড়ে যুদ্ধ-সংঘাত-সন্ত্রাস ও অশান্তির অনলে পুড়ছে, যখন ক্ষমতা, সম্পদ ও ভোগ-বিলাসে মত্ত হয়ে নিজের সর্বনাশকে দ্রুতায়িত করছে, তখন একমাত্র ইসলাম ও বিশ্বনবী (সা.)-এর শিক্ষাই তাকে সর্বোত্তম সুরক্ষা দিতে পারে।


    অত্যন্ত দুঃখজনক হলেও স্বীকার করতে হচ্ছে, গোটা মুসলিম বিশ্ব ও মুসলিম উম্মাহ এখন কঠিন সময় অতিক্রম করছে। ইসলামবিদ্বেষী ও সাম্রাজ্যবাদী শক্তিসমূহ একাট্টা হয়ে মুসলিম দেশ ও মুসলিম উম্মাহর ওপর একের পর এক আগ্রাসন, যুদ্ধ ও সন্ত্রাসের তান্ডব চালিয়ে যাচ্ছে। মুসলিম বিশ্ব ও মুসলিম উম্মাহকে দুর্বল, হীনবল ও ধ্বংস করার জন্য এমন কোনো পথ অনুসরণ ও ব্যবস্থা নেই, যা তারা করছে না। আফগানিস্তান-ইরাক-সিরিয়া-ইয়েমেন থেকে শুরু করে মধ্যপ্রাচ্যসহ এশিয়া ও আফ্রিকার বিভিন্ন মুসলিম দেশে এখন যে পরিস্থিতি বিরাজ করছে অতীতে তেমন পরিস্থিতি কখনোই দেখা যায়নি। এদিকে ফ্রান্সসহ ইউরোপে পবিত্র কোরআন অবমাননা ও মহানবী সা. এর ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন ইত্যাদির মাধ্যমে বিশ্ব মুসলিমের অনুভূতিতে উপর্যুপরি আঘাত হানা হচ্ছে। এসব অপতৎপরতা তাদের বিরুদ্ধে রীতিমত যুদ্ধ ঘোষাণার শামিল। একে বলা যায়, ইসলামের অগ্রযাত্রাকে ব্যাহত এবং অহেতুক বিভ্রান্তি সৃষ্টিই এর লক্ষ্য। অথচ সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বিভিন্ন জরিপে উঠে এসেছে ইসলামের প্রতি সারাবিশ্বে ব্যাপক হারে মানুষের আগ্রহ বৃদ্ধি পাচ্ছে। মানুষ ইসলামের সুশীতল ছায়াতলে আশ্রয় নিচ্ছে। এক গবেষণায় বলা হয়েছে, ২০৫০ সালে মুসলমানরা হবে বিশ্বের সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগোষ্ঠি। অন্যদিকে বিশ্বের যেখানেই অশান্তি, যুদ্ধ-সংঘাত-সন্ত্রাস এবং মানবিক বিপর্যয় চলছে সেখানেই এসবের শিকার হচ্ছে প্রধানত মুসলমানেরা। এ জন্য ইসলামবিদ্বেষী ও সাম্রাজ্যবাদী শক্তিসমূহের প্রত্যক্ষ-পরোক্ষ ভূমিকা যেমন দায়ী, তেমনি দায়ী মুসলিম উম্মাহর মধ্যকার অনৈক্য, বিভেদ, বিদ্বেষ এবং কোরআন ও মহানবী (সা.)-এর সুন্নাহ যথাযথভাবে অনুসরণ না করা। এ থেকে উঠে আসার পথ একটিই এবং সেটি হলো, কোরআন-সুন্নাহর একনিষ্ঠ ও আন্তরিক অনুসরণ। বাংলাদেশেও মুসলিম জাতিসত্তা ও ইসলামের বিরুদ্ধে নানা প্রকার অপপ্রচার চলছে। ৯২ শতাংশ মুসলমানের এদেশে ধর্মহীনতা, নাস্তিকতা, অনৈতিকতা ও অপসংস্কৃতি প্রশ্রয় পাচ্ছে। মানুষের খারাপ আচরণও ব্যাপকহারে বাড়ছে। ইসলাম বিদ্বেষীরা বিভিন্নভাবে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। আজকের এই দিনে আমরা বাংলাদেশসহ বিশ্ব মুসলিমের বিরুদ্ধে পরিচালিত অপপ্রচার, চক্রান্ত-ষড়যন্ত্র সম্পর্কে সতর্ক ও সচেতন হওয়ার আহবান জানাই। আহবান জানাই রাসূল (সা.)-এর আদর্শ ও শিক্ষা অনুসরণের মাধ্যমে সত্যিকারের মানুষ হিসেবে গড়ে উঠার। মুক্তি, কল্যাণ, সমৃদ্ধি, বিকাশ ও প্রতিষ্ঠার জন্য রাসূল (সা.)-এর পদাঙ্ক অনুসরণের বিকল্প নেই।

    লেখক: অ্যাডভোকেট, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট, সভাপতি, সাউথ এশিয়ান ল’ ইয়ার্স ফোরাম ও সম্পাদক ও প্রকাশক আজকের ভাবনা।

    Facebook Comments

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩
    ১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
    ২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
    ২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4673