• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    মানুষ’ এরশাদকে যেমন দেখেছি

    হাবিব মোস্তফা | ১৪ জুলাই ২০১৯ | ৫:২৫ অপরাহ্ণ

    মানুষ’ এরশাদকে যেমন দেখেছি

    আমি আমার জীবনে একবারই ভোট দিয়েছি- ১৯৮৮ সালে (তখন আমি ভোটার হইনি- ভোটার হবার পরে অদ্যবধি আর ভোট কেন্দ্রে যাইনি)।আব্বাকে সাথে নিয়ে কাঁপাকাঁপা হাতে তাঁর ভোটখানা দিয়েছিলাম ‘লাঙ্গল মার্কায়’।সামরিক শাসনের পর্ব অবসান করে এরশাদের দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় যাবার ভোট ছিল সেটি।

    স্বৈরশাসন-সেনাশাসন এই শব্দগুলোর সাথে পরিচিত ছিলাম না তখন।দেখেছি-মানুষের মুখে মুখে ভালবাসা নিয়ে একটি নামই উচ্চারিত হত-সেটি এরশাদ।সে বছর সারা দেশব্যাপী নূহের প্লাবনের মত ‘ভয়াবহ’ বন্যা হল।রাষ্ট্রপতি এরশাদ বুক সমান পানিতে নেমে পড়লেন ত্রান বিতরণ করতে।
    আম্মা এখনও বলেন- “এরশাদের শাসনামলে মানুষ পেটভরে ভাত খেয়েছে তিনবেলা, রাতে ঘুমিয়েছে নিশ্চিন্তে।রাস্তাঘাট তথা রাষ্ট্রীয় অবকাঠামো উন্নয়নের স্বর্ণযুগ ছিল এরশাদের শাসনামল।”


    তার অনেক বছর পর ২০১০ সালের জানুয়ারি মাস-তখন রাজধানীর বুকে বসবাস আমার।মডার্ন হারবাল গ্রুপের চেয়ারম্যান ডা: আলমগীর মতি স্যারের একান্ত সচিব হিসেবে কর্মরত।প্রতিষ্ঠানের পঁচিশ বছর পূর্তির ক্রোড়পত্রে সাবেক রাষ্ট্রপতি ‘হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ’ সারের একটি বাণী সংযুক্তির প্রয়োজনীয়তা অনুভব করলেন মতি স্যার।এরশাদ স্যারের একান্ত সচিব মেজর খালিদ হোসেনের সাথে যোগাযোগ করে নির্ধারিত সময়ে বনানীর প্রেসিডেন্ট পার্কে পৌঁছে গেলাম মতি স্যার ও আমি।
    রিসিপশনে গিয়ে জানতে পারি-কিছুক্ষণ পূর্বেই এরশাদ স্যার রাষ্ট্রীয় জরুরী কোন মিটিংএ এটেন্ড করার জন্য বাইরে চলে গেছেন।
    এখন কী করা?
    বেশী সময়ও নেই হাতে।ম্যাগাজিন প্রেসে পাঠাতে হবে।সবার বাণী নেয়া শেষ-শুধু এরশাদ স্যারেরটা বাকী।
    মন খারাপ করে মতি স্যার ও আমি দুজন উঠে বসলাম স্যারের গাড়িতে।গাড়ি ঘুরাতেই দেখি-এরশাদ স্যারের গাড়ি এসে হাজির।
    নিরাপত্তা সিকিউরিটি হুইসেল বাজাচ্ছে।আমরা গাড়ি থেকে নেমে পাশে দাঁড়িয়ে রইলাম।

    অবিশ্বাস্য একটি সত্য ঘটনা ঘটল তখন।এরশাদ স্যার গাড়ি থেকে নেমেই মতি স্যারকেই খোঁজ করলেন।বুঝলাম- মতি স্যারকে তিনি কত ভালবাসেন।
    আমি অবাক হয়ে তাকিয়ে আছি।এরশাদ স্যার ও মতি স্যার লিফ্টের গোড়ায় দাঁড়িয়ে-সালাম দিয়ে আমি সরে দাঁড়ালাম।
    লিফ্ট আসার পূর্বক্ষণে মতি স্যার আমাকে নিচে রিসিপশনে অপেক্ষা করতে বললেন।ইতিমধ্যে লিফ্ট চলে আসল।তাঁরা দুজন উঠলেন লিফ্টে।আমি বাইরে দাঁড়িয়ে।
    এরশাদ স্যার আমাকে ইশারায় ডাকলেন।আমি নিজের কান-চোখতে বিশ্বাস করতেপারলাম না।তিনি বললেন-“তুমি দাঁড়িয়ে কেন? আসো আমাদের সাথে।”

    উপরে গিয়ে স্যারের বসার রুমে বিশ মিনিট সময় ঘোরের মধ্যে কাটল।দেয়াল জুড়ে স্যারের বিভিন্ন বয়সের-বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রপ্রধানের সাথে ছবি।উন্নত মানের খাবার দেয়া হল আমাদেরকে।

    এরশাদ স্যার মতি স্যারকে উদ্দেশ্য করে বললেন, “আমার শরীরে খুব এলার্জি হয়েছে।তোমাদের কী ঔষধ আছে এর?”
    মতি স্যার বললেন- “স্যার, নিমের তেল মাখবেন, সেরে যাবে।আমি পাঠিয়ে দেব আপনার জন্য।”
    সাহস করে আমি বলে ফেললাম- স্যার, আমি আটাশি সালে আপনাকে ভোট দিয়েছিলাম।
    স্যার হাসলেন, তারপর বললেন- জানো খোকা, জনগণ এখনো আমাকেই প্রেসিডেন্ট জানে।

    এরই মধ্যে এরশাদ স্যারের স্বাক্ষরিত বাণী চলে আসল আমাদের হাতে।এরশাদ স্যার আমার সাথে হ্যান্ডশেক করেছিলেন-মাথায় হাত বুলিয়ে দিয়েছিলেন সেদিন।

    সত্যিকারের একজন হৃদয়ের রাজাকে, পল্লীবন্ধুকে হারালাম আজ।আল্লাহ তাঁকে জান্নাতের সুখময় উদ্যান দান করুন।আমিন।

    Comments

    comments

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩
    ১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
    ২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
    ২৮২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী