• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের বিরুদ্ধে যত অভিযোগ

    ডেস্ক | ২১ ডিসেম্বর ২০১৯ | ৭:২১ অপরাহ্ণ

    মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের বিরুদ্ধে যত অভিযোগ

    মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক সংগঠনগুলোর প্ল্যাটফর্ম বলে পরিচিত ‘মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ’। লক্ষ্য ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় ঐকমত্য গঠন এবং মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের অধিকার আদায়’। কিন্তু এ মঞ্চের সাম্প্রতিক বিতর্কিত কর্মকাণ্ড নানা আলোচনা-সমালোচনার জন্ম দিয়েছে। তাদের কার্যকলাপে ক্ষুব্ধ ক্ষমতাসীন দলের সহযোগী ছাত্রলীগসহ বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনের নেতাকর্মী।


    মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ড পর্যালোচনা করে দেখা যায়, অধিকার দাবিতে কোনো কর্মসূচি পালনের চেয়ে হামলা-মারামারিতেই তারা লিপ্ত থেকেছে বেশি। সবশেষ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) ভিপি নুরুল হক নুরসহ কয়েকজনকে মেরে হাসপাতালেও পাঠিয়েছেন এ মঞ্চের নেতাকর্মীরা।

    ajkerograbani.com

    গত ২০ অক্টোবর ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামলের নামে একটি ভুয়া ফেসবুক আইডির বায়োতে লেখা ছিল ‘পঁচাত্তরের হাতিয়ার গর্জে উঠো আরেকবার’। এই লেখাকে কেন্দ্র করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের একাংশের সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল ও সাধারণ সম্পাদক আল মামুনের নেতৃত্বে হামলা চালানো হয় ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের ওপর। এতে ছাত্রদলের প্রায় ১০ জন নেতাকর্মী আহত হন।

    ওই ঘটনার কিছুদিন পর ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নুরের একটি কথিত ফোনালাপকে কেন্দ্র করে ডাকসুতে তার কার্যালয়ে তালা দেয় এবং নুরের কুশপুতুল দাহ করে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের আরেক অংশের নেতা অধ্যাপক আ ক ম জামাল উদ্দিনপন্থীরা।

    সবশেষ ভারতে বিতর্কিত নাগরিকপঞ্জি (এনআরসি) ও সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের (সিএএ) প্রতিবাদে আন্দোলনরত দেশটির ছাত্র-জনতার প্রতি সংহতি জানিয়ে গত ১৭ ডিসেম্বর ডাকসুর ভিপি নুর ও তার অনুসারীরা সমাবেশ করতে গেলে সেখানেও হামলা চালায় মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ। এতে ‍ভিপি নুরসহ ১০ জন আহত হন, তাদের অনেককেই ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে হয়।

    এ ঘটনায় সেদিন সন্ধ্যায় ভিপি নুরের পক্ষে প্রতিবাদলিপি দিতে নেতাকর্মীরা উপাচার্যের বাসভবনে গেলে সেখানেও হামলা চালিয়ে পাঁচজনকে আহত করে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ।

    পরদিন এসব হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ করতে গেলে সেখানেও মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের নেতাকর্মীরা দেশীয় অস্ত্রশস্ত্রসহ মহড়া দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ত্রাসের সৃষ্টি করেন।

    মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের এসব কার্যক্রমে ক্রিয়াশীল সব ছাত্র সংগঠন ও তাদের নেতারা অস্বস্তিতে রয়েছেন। বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনের নেতাদের সাথে কথা বললে প্রায় সবাই তীব্র প্রতিক্রিয়া জানান।

    মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের নাম হওয়া উচিত দালালি মঞ্চ: ভিপি নুর
    এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সহ-সভাপতি (ভিপি) নুরুল হক নুর বলেন, মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ আসলে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ নয়। এটার নাম হওয়া উচিত ছিল দালালি এবং ভণ্ডামি মঞ্চ। তাদের নেতাদের বেশিরভাগই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র নয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র সংগঠন অথবা সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন কাজ করবে। মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ কোনো ছাত্র-সংগঠন বা সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন নয়, আবার তারা মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে কাজ করবে এমন সংগঠনও নয়। মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ নামে দালাল ও ভণ্ডদের সংগঠনের কাজটা কী, তা আসলে উদ্বেগের বিষয়।

    ছাত্রলীগের সঙ্গে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের সম্পর্ক নেই: নাহিয়ান খান জয়
    এ বিষয়ে ক্ষমতাসীন দলের সহযোগী সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় বলেন, মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কোনো সংগঠন নয়। মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের সাথে আমাদের কোনো ধরনের সংশ্লিষ্টতা নেই। মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের একাংশের সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুলকে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

    ছাত্রলীগের কেউ অন্য কোনো সংগঠন করতে পারবে কি-না, এ প্রশ্নে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বলেন, ছাত্রলীগের অনেক নেতাকর্মী বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের সাথে জড়িত। ছাত্রলীগ গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে। আমাদের যে কেউ চাইলে সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে জড়িত হতে পারে। এ নিয়ে আমরা কোনো বাধা দেই না। মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের ক্ষেত্রেও আমাদের সিদ্ধান্ত একই।

    আল নাহিয়ান খান জয় জানান, তিনি মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চকে ছাত্র সংগঠন হিসেবে দেখছেন না।

    মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের কার্যক্রমে আমরা হতবাক: ফজলুর রহমান খোকন
    বিএনপির সহযোগী সংগঠন ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন বলেন, মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের কার্যক্রম আমাদের হতবাক করছে। এ মঞ্চের কোনো ভালো কার্যক্রম আমরা দেখিনি। তারা কয়েক মাস আগে মধুর ক্যান্টিনে আমাদের ওপর অতর্কিত হামলা করেছে। ডাকসু ভিপির পূর্বনির্ধারিত সমাবেশে তারা হামলা করেছে। কোনো ছাত্র সংগঠন না হয়েও কীভাবে তারা প্রকাশ্যে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্রসহ বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে মহড়া দেয় তা আমাদের রীতিমতো অবাক করেছে। বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে এই সংগঠনটি কীভাবে কার্যক্রম চালায় তা আমাদের ভাবনার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। এখানে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন হয়তো ছাত্রলীগের বাইরে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চকে কাজে লাগিয়ে বিরোধী মতকে দমন-পীড়ন করতে পারে।

    মুক্তিযুদ্ধের চেতনার নামে প্রতারণা করছে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ: ছাত্র অধিকার পরিষদ
    কোটা সংস্কার আন্দোলনের শিক্ষার্থীদের প্লাটফর্ম বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম-আহবায়ক মুহাম্মদ রাঁশেদ খান বলেন, মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে সস্তা দামে বিক্রি করছে। তারা আসলে মুক্তিযোদ্ধাদের পরিবার বা মুক্তিযুদ্ধের কোনো কিছু বাস্তবায়ন করছে না। তারা পর্দার আড়ালে আওয়ামী লীগ ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের এজেন্ডা বাস্তবায়ন করছে।

    তিনি আরও বলেন, মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ আমাদের যৌক্তিক আন্দোলন কোটা সংস্কার আন্দোলনকে দমন করতে গঠন করা হয়েছিল। তারা ছাত্র-শিক্ষক-শ্রমিক, কারও ওপর হামলা করতে বাদ রাখেনি। শহীদ মিনারে শিক্ষকদের ওপর হামলা করেছিল। ভিপির ওপর হামলার প্রতিবাদে আমরা উপাচার্যের বাসায় প্রতিবাদলিপি দিতে গেলে সেখানেও তারা আমাদের ওপর হামলা করে। আমরা কাউকে জানিয়ে সেখানে যাইনি, তারপরও তারা কীভাবে সেখানে গেল সেটি সন্দেহের বিষয়। মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ বিশ্ববিদ্যালয়ে ত্রাস সৃষ্টি করে শিক্ষার্থীদের মনে ভয় ঢুকিয়ে দিচ্ছে।

    মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের কাজ কী জানতে চায় ছাত্র ইউনিয়ন
    বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক রাগীব নাইম বলেন, মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধা পরিবার নিয়ে কাজ করার জন্য মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ও কমান্ড রয়েছে। তারা মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সুরক্ষা ও অধিকার নিয়ে কাজ করছে। কিন্তু মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ কী নিয়ে কাজ করছে বা মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের উদ্দেশ্য কী, তা নিয়ে আমরা বেশ সংশয়ে আছি।

    মঞ্চের বিতর্কিত কর্মকাণ্ড তরুণদের মধ্যে মুক্তিযুদ্ধের প্রতি বিদ্বেষ সৃষ্টি করছে: ছাত্র ফেডারেশন
    সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক সালমান সিদ্দিকী মনে করেন, মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ মুক্তিযোদ্ধাদের স্বপ্নের স্বাধীন বাংলাদেশের আকাঙ্ক্ষা পরিপন্থী কাজ করছে, তাদের সাম্প্রতিক কার্যক্রম তা-ই প্রমাণ করছে। তাদের এসব কার্যক্রমের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি তরুণদের বিদ্বেষ সৃষ্টি করছে। মুক্তিযুদ্ধের যে মূল লক্ষ্য ছিল মৌলবাদবিরোধী উদার চিন্তার বাস্তবায়ন, তার বিপরীতে অবস্থান নিয়েছে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ। বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনের গণতান্ত্রিক কর্মসূচিতে বাধার মাধ্যমে তাদের নগ্ন চরিত্র ফুটে উঠেছে।

    মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের ‘আসল-নকল’ দ্বন্দ্ব
    কোটা সংস্কার আন্দোলনের সময় ২০১৮ সালের এপ্রিল মাসে সব ধরনের চাকরিতে ৩০ ভাগ মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাস্তবায়নের জন্য মুক্তিযোদ্ধাদের সন্তান, নাতি-নাতনিদের নিয়ে গড়ে ওঠে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ। কিন্তু ওই বছরের মে মাসেই সংগঠনের নেতৃত্ব নিয়ে কোন্দল বাঁধে। তখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. আ ক ম জামাল উদ্দিনকে আহবায়ক ও তৎকালীন নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খানের ছেলে আসিবুর রহমান খানকে সদস্য সচিব করে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়। কিছুদিন পর মঞ্চের আরেকপক্ষের আহ্বায়ক দাবিদার মেহেদী হাসান কমিটির বিষয়ে কিছু জানেন না উল্লেখ করে তাদের বিরুদ্ধে ‘ব্যক্তিস্বার্থ হাসিল ও আর্থিক অনিয়ম’র অভিযোগ আনেন। পরে অধ্যাপক জামালের নেতৃত্বাধীন ‘মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ’কেই মাঠে সরব দেখা যায়।

    মঞ্চের অধ্যাপক জামালের নেতৃত্বাধীন অংশের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) শাখার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছিলেন আমিনুল ইসলাম বুলবুল ও আল মামুন। কিন্তু গত ১০ অক্টোবর বিকেলে অধ্যাপক আ ক ম জামাল উদ্দিন সংবাদ বিজ্ঞপ্তি পাঠিয়ে জানান, সংগঠনের শৃঙ্খলা পরিপন্থী কাজ করার কারণে আমিনুল ইসলাম বুলবুল ও আল মামুনকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের সব দায়িত্ব ও কার্যক্রম থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। সেদিনই আমিনুল ইসলাম বুলবুল ও আল মামুন নিজেদের সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক দাবি করে নতুন কমিটি ঘোষণা করেন। এতে অধ্যাপক আ ক ম জামাল উদ্দিনকে উপদেষ্টা ঘোষণা করা হয়।

    ১৪ অক্টোবর রাতে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের দুটি পক্ষই গণমাধ্যমে পৃথক দুটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তি পাঠায়। এর মধ্যে অধ্যাপক জামাল উদ্দিন সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলেন, ‘তারা (আমিনুল ইসলাম বুলবুল ও আল মামুন) নিজেদের মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক দাবি করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে নানা ধরনের অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছে। তাদের সঙ্গে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের কোনো সম্পৃক্ততা নেই। মধুর ক্যান্টিনে ছাত্রদলের ওপর হামলার ঘটনায় মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ ছিল না।’ এছাড়া বুলবুল-মামুনকে বাদ দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় শাখার নতুন কমিটি গঠন হয়েছে বলেও জানান এ অধ্যাপক।

    অপর সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আমিনুল ইসলাম বুলবুল ও আল মামুন বলেন, ‘সংগঠনবিরোধী কার্যকলাপ এবং গঠনতন্ত্রবিরোধী কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়ায় অধ্যাপক আ ক ম জামাল উদ্দিনকে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের উপদেষ্টা পদ থেকে অব্যাহতি দেয়া হল। তার অসুস্থ কর্মকাণ্ডে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ বিব্রত। আমরা তার সুস্থতা কামনা করছি।’

    দুই অংশের সব বিজ্ঞপ্তিতে যুগ্ম-আহ্বায়কদের স্বাক্ষর থাকলেও সদস্য সচিবের কোনো স্বাক্ষর ছিল না।

    এ বিষয়ে জানতে চাইলে অধ্যাপক ড. আ ক ম জামাল উদ্দিন বলেন, মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের আহবায়ক আমি। আমার নেতৃত্বাধীন মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের বাইরে কোনো সংগঠন নেই।

    সাংবাদিকদের মধ্যে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী শক্তি আছে অভিযোগ করে তিনি বলেন, আপনাদের (সাংবাদিকদের) মধ্যে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী একটি শক্তি আছে, যারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন হোক চায় না। আপনারা সংবাদে বলেন মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের একাংশ। এটি বলে তাদেরকে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের অংশ বানিয়ে ফেলছেন। আপনারা তাদেরকে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের একাংশ না বলে বহিষ্কৃত অংশ বলবেন।

    অধ্যাপক ড. আ ক ম জামাল উদ্দিনের বক্তব্যের বিরোধিতা করে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের একাংশের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন বলেন, তিনি (অধ্যাপক জামাল) সংগঠনের টাকা ব্যক্তিগতভাবে ব্যবহার করেছেন। তিনি সংগঠনের নাম দিয়ে বিভিন্ন জায়গায় চাঁদাবাজি করেছেন। বিভিন্ন দোকানে তিনি মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের নামে টাকা বকেয়া করেছেন। আর বয়সের ভারে তিনি বিপর্যস্ত। তার বর্তমানে মানসিক সুস্থতা দরকার। তার মানসিক অসুস্থতার জন্য আমরা মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ থেকে তাকে অব্যাহতি দিয়েছি। আমরা এখন মুক্তিযুদ্ধ পরিবারের অধিকার আদায় ও দেশের বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য আন্দোলন করছি।

    Facebook Comments Box

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
    ১০১১১২১৩১৪
    ১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
    ২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
    ২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4757