• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    মুজিববর্ষে বাঙ্গালি জাতির সামনে মহামানবের আগমন বার্তা ধ্বনি, প্রতিধ্বনি

    মো. গোলাম সরোয়ার ফরহাদ, কার্যকরী সদস্য ডি-হল শাখা ছাত্রলীগ হাবিপ্রবি | ১১ জানুয়ারি ২০২০ | ১০:৪৭ অপরাহ্ণ

    মুজিববর্ষে বাঙ্গালি জাতির সামনে মহামানবের আগমন বার্তা ধ্বনি, প্রতিধ্বনি

    ১৯৭২ সালের ১০জানুয়ারি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তানি কারাগার থেকে মুক্তি লাভ করে দেশের মাটিতে পদার্পণ করেন। মাত্র ২৬ দিন আগে ১৬ ই ডিসেম্বর পাকিস্তানি বাহিনী আত্মসমর্পণ করেছে। বঙ্গবন্ধু নিশ্চয়ই এই দেশের মানুষের সেই অবিশ্বাস্য অফুরান ভালোবাসা অনুভব করেছিলেন। দেশের মাটিতে পা রেখে তাজউদ্দিন আহমেদ বঙ্গবন্ধুকে পারুল ফুলের মালা দিয়েছিলেন। ৯জানুয়ারি ১৯৭২ পাকিস্তানের কারাগার থেকে সদ্যমুক্ত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে পাঠানো হয় লন্ডনে। সেখানে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী এডওয়ার্ড হিথ তাকে শুভেচ্ছা জানান। সেইদিন ৩০ লক্ষ মানুষের রক্ত আর ২ লক্ষ মা বোনের ইজ্জতের বিনিময়ে পাওয়া বাংলার স্বাধীনতা, সোনার বাংলার সংগ্রামের কথা, ত্যাগের কথা। বলতে গিয়ে বেদনায় ভারাক্রান্ত হয়ে পড়েন বঙ্গবন্ধু।

    ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি দেশের মাটিতে পা রেখেই তিনি আইনশৃঙ্খলা রক্ষার কাজে প্রথমে মনোযোগী হন। তিনি খুবই দ্রুত মুক্তিযোদ্ধাদের অস্ত্রশস্ত্র জমা দেওয়ার আদেশ প্রদান করেন। মুক্তিযোদ্ধারা তা দ্রুত জমা দেয়। কিন্তু স্বাধীন বিরোধী শক্তি ও বামপন্থি একটি গোষ্ঠী তাদের অস্ত্রশস্ত্র জমা দেয় না বরং তারা সেসব অস্ত্র দিয়ে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি বিনষ্টের অপচেষ্টা চালায়। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন স্বাধীন ও নিরপেক্ষ পররাষ্ট্রনীতিতে বিশ্বাসী। এজন্যই ১৯৭২ সালের মে মাসে আমেরিকান ব্রডকাস্টিং কর্পোরেশনের সাথে এক সাক্ষাতকারে বলেছিলেন, আমি কোন ব্লকে নই। প্রাচ্য ব্লকেও নই, পাশ্চাত্য ব্লকেও নই। আমি স্বাধীন নিরপেক্ষ বৈদেশিক নীতিতে বিশ্বাসী। এজন্য তার নেতৃত্বে স্বাধীন বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতির অন্যতম মূলনীতি হিসাবে ঘোষনা করা হয় “সকলের সাথে বন্ধুত্ব, কারো সাথে শত্রুতা নয়”।


    পঁচাত্তর পরবর্তী কালো অমানিকা পার হয়ে অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশ আজ জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এগিয়ে চলছে দুর্বার গতিতে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, “জাতির জনকের আদর্শে উজ্জীবিত বাঙ্গালি জাতির সংগ্রামী ঐতিহ্য আর প্রতিরোধের মুখে স্বৈরাচার। ষড়যন্ত্রকারী ঘাতক ও স্বাধীনতা বিরোধী চক্রের সকল অপচেষ্টা আজ পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছে। তার আদর্শের আলোক বাঙ্গালি জাতিকে চিরকাল পথ দেখাবে। সকলের মিলিত প্রচেষ্টায় সুখী সমৃদ্ধ সোনার বাংলা গড়ে জাতির জনকের অসমাপ্ত কাজ সম্পূর্ণ করাই হোক আমাদের শপথ।

    তাই কবি বলেছেন,
    এই বাংলার আকাশ-বাতাস
    সাগর-গিরি ও নদী
    ডাকিছে তোমারে বঙ্গবন্ধু
    ফিরিয়া আসিতে যদি।

    জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু

    Comments

    comments

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০
    ১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
    ১৮১৯২০২১২২২৩২৪
    ২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী